NRC boy

নিজস্ব প্রতিনিধি, গুয়াহাটি: ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তের কাছে কাছাড়ের কাঠিঘোড়া এলাকার সাত বছরের এক বালককে ফরেনার ট্রাইবুনালের তরফে ‘বিদেশি’ নোটিশ পাঠানোয় হতবাক তার পরিবার-পরিজন। দ্বিতীয় দফার নাগরিকপঞ্জী (এনআরসি) প্রকাশের সপ্তাহ দুয়েক আগেই ওই নোটিশ এসে পৌঁছেছে বলে দাবি করেছেন ওই বালকের অভিভাবকেরা।

বালকের পরিবার এবং স্থানীয় মানুষের দাবি, ওই বালক জন্মসূত্রে যে ভারতীয় সে বিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই। কয়েক শতক ধরে তার পূর্বসূরিরা এই এলাকার বাসিন্দা।

ওই নোটিশ হাতে পাওয়ার পর আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে বালক ও তার পরিবারের। অভিভাবকরা জানান, নোটিশ এসে পৌঁছানোর পর থেকেই মানসিক ভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছেন তাঁরা। এমনকী কোনো এক অজানা আতঙ্কে তাঁদের সাত বছরের ছেলে স্কুলে যাওয়াও বন্ধ করে দিয়েছে।

যদিও অসম সরকারের দেওয়া জন্ম শংসাপত্রে স্পষ্ট ভাবে উল্লেখ করা হয়েছে, শিলচর মেডিক্যাল কলেজে ২৮ মার্চ, ২০১১ তারিখে বালকের জন্ম। সেখানে মা ও বাবার নাম যথাক্রমে বাপ্পি দাস ও নবীন্দ্র দাস।

আরও পড়ুন: অসমের নাগরিকপঞ্জি প্রক্রিয়া রাষ্ট্রের উদাসীনতা ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের শিকার, দাবি রিপোর্টে

সংবাদ মাধ্যমের কাছে ওই বালকের বাবা বলেন, এমন ঘটনা সম্পর্কে তাঁরা সম্পূর্ণ ভাবে অনভিজ্ঞ। এ রকম পরিস্তিতিতে ঠিক কী ধরনের পদক্ষেপ নেওয়া প্রয়োজন , সেটাও তাঁরা জানেন না। তবে এই লড়াইয়ে শেষ পর্যন্ত যেতে প্রস্তুত।

নবীন্দ্র জানান, “আমি অতীতে এ ধরনের সমস্যার মুখোমুখি হয়নি। এনআরসি দফতরে আমার ছেলের জন্ম শংসাপত্র-সহ সমস্ত নথিপত্র জমাও দিয়েছি। কিন্তু তারপরেও উদ্বেগের মধ্যে আছি। কারণ আমি যখন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে দেখা করে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়ার আর্জি জানাই, তখন তাঁরা বিষয়টিকে সে ভাবে গুরুত্ব দেননি। আমি রাজ্যের এনআরসি-কে অনুরোধ করছি আমাকে যথাযথ সাহায্য করা হোক”।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here