কলকাতা: এই প্রথম কোনো কর্মরত বিচারপতির কারাদণ্ডের আদেশ দিল ভারতের শীর্ষ আদালত। আদালত অবমাননার অভিযোগে ৬ মাসের কারাদণ্ড হল কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি চিন্নাস্বামী স্বামিনাথন কারনানের।

বিতর্কের শুরুটা হয়েছিল চলতি বছরের জানুয়ারিতে। গত ২৩ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে একটি চিঠি লেখেন কারনান। চিঠির বিষয় ছিল ‘বিচার ব্যবস্থায় ব্যাপক দুর্নীতি’। সেখানে ২০ জন ‘দুর্নীতিগ্রস্ত’ বিচারপতির একটি ‘প্রাথমিক তালিকা’-ও দেন তিনি।সুপ্রিম কোর্ট এবং বিভিন্ন হাইকোর্টের বেশ কয়েকজন কর্মরত ও অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতির বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে দুর্নীতির অভিযোগ করা ও প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি লেখার অভিযোগে কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি সি এস কারনানের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার নোটিশ পাঠায় সুপ্রিম কোর্ট।একাধিক অভিযোগ, পালটা অভিযোগ, গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি এবং তা অস্বীকারের পর অবশেষে  দোষী সাব্যস্ত হলে ‘বিচারবিভাগকে সুরক্ষিত করতে কারনানের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি’র নির্দেশ দেন অ্যাটর্নি জেনেরাল মুকুল রোহাতগি।

চিন্নাস্বামী স্বামিনাথন কারনানের জন্ম ১৯৫৫-এর ১২ জুন, তামিলনাড়ুর কুদ্দালর জেলার কর্নাতম গ্রামে। রাষ্ট্রপতি সম্মান পাওয়া শিক্ষক বাবার ছেলে চিন্নাস্বামী ছোটবেলা থেকেই শিক্ষার পরিবেশ পেয়েছিলেন বাড়িতে। মঙ্গলপেট হাই স্কুলের পর বিরুধাচলম আর্ট কলেজ থেকে প্রাক বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়া শেষ করে চেন্নাই-এর নিউ কলেজে ভর্তি হন। বিজ্ঞানে স্নাতক হওয়ার পর মাদ্রাজ ল’ কলেজ থেকে আইন পাশ করেন ১৯৮৩ সালে।

পেশাগত জীবনে কখনও হয়েছেন মেট্রো ওয়াটার অর্গানাইজেশনের আইনি পরামর্শদাতা, কখনও বা গুরুত্বপূর্ণ মামলার সরকারি আইনজীবী। ২০০৯ থেকে মাদ্রাজ হাইকোর্টের বিচারপতি ছিলেন তিনি। ২০১৬-এর ফেব্রুয়ারিতে কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি হিসেবে নিযুক্ত হন সিএস কারনান।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here