স্বাস্থ্য পরিকাঠামো নিয়ে গুজরাত সরকারের ভূমিকায় প্রশ্ন তোলা হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চে আচমকা বদল

0

খবর অনলাইনডেস্ক: বিভিন্ন রাজ্য যখন নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা উত্তরোত্তর বাড়াচ্ছে, তখন গুজরাতে (Gujarat) নমুনা পরীক্ষা বেশ কম। এই নিয়ে কিছু দিন আগেই গুজরাত সরকারের ভূমিকার তীব্র সমালোচনা করেছিল হাইকোর্টের একটি ডিভিশন বেঞ্চ। আচমকা সেই ডিভিশন বেঞ্চের এক সদস্যকে বদলি করে দেওয়া হল।

ওই বেঞ্চের দুই সদস্য ছিলেন বিচারপতি জেবি পরদিওয়ালা আর বিচারপতি আইজে ভোহরা। হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি বিক্রম নাথ একটি নির্দেশে জারি করে ওই বেঞ্চ থেকে ভোহরাকে সরিয়ে দিয়েছেন। তাঁর বদলে তিনি নিজে থাকছেন ওই বেঞ্চে।

Loading videos...

অমদাবাদে (Ahmedabad) কেন যথেষ্ট সংখ্যায় নমুনা পরীক্ষা হচ্ছে না, তা নিয়ে হাসপাতাল ও নার্সিং হোমগুলির সংগঠন প্রশ্ন তুলেছিল। তাদের বক্তব্য, রাজ্যের স্বাস্থ্যসচিবের কাছে নমুনা পরীক্ষার অনুমতি চাইলে তিন দিন পরে সাড়া মিলছে। তা-ও মাত্র ১০ থেকে ২০ শতাংশ ক্ষেত্রে অনুমতি দেওয়া হচ্ছে। এই নিয়েই হাইকোর্টে মামলা করা হয়।

কয়েক দিন আগেই এই সংক্রান্ত শুনানিতে রাজ্যের ভূমিকার তীব্র সমালোচনা করে হাইকোর্টের এই ডিভিশন বেঞ্চ।

গুজরাতে এখনও পর্যন্ত কোভিডে (Covid 19) মারা গিয়েছেন ৯৬০ জন, এদের মধ্যে অমদাবাদেই ৭৬০। এর মধ্যে শুধুমাত্র অমদাবাদ সিভিল হাসপাতালে মারা গিয়েছেন চারশোরও বেশি।

অমদাবাদ সিভিল হাসপাতালের পরিকাঠামোগত ভাবে অবস্থা খুবই খারাপ। এই পরিস্থিতিতে রাজ্যের ভূমিকার তীব্র সমালোচনা করে ওই ডিভিশন বেঞ্চ মন্তব্য করে, “অবস্থাটা একটা অন্ধকূপের মতো, বা তার থেকেও হয়তো খারাপ।”

ডিভিশন বেঞ্চ আরও বলে, “খুব খারাপ লাগছে এটা বলতে যে অমদাবাদ সিভিল হাসপাতালের অবস্থা এই মুহূর্তে অত্যন্ত করুণ।” রাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী নীতিন পটেল আর স্বাস্থ্য সচিব জয়ন্তী রবির ভূমিকার তীব্র সমালোচনা করে হাইকোর্ট প্রশ্ন তোলে কেন তাঁরা হাসপাতালে বেশি যান না।

এ ছাড়া গুজরাতে কম নমুনা পরীক্ষার নিয়েও প্রশ্ন তোলে হাইকোর্ট। উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত গুজরাতে নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ১ লক্ষ ৯৮ হাজার ৪৭। এর মধ্যে পজিটিভ হয়েছেন ১৫,৫৬২। অর্থাৎ নমুনা পজিটিভ হওয়ার হার ৭.৮ শতাংশ, যা ভারতের বেশির ভাগ রাজ্যের থেকেই বেশি।

শুধু অমদাবাদের ছবিটা কিন্তু আরও খারাপ। শহরে আক্রান্তের সংখ্যা ১১,৩৪৪। নমুনা পজিটিভ হওয়ার হার ১৪.৬ শতাংশ।

পরীক্ষা কেন কম হচ্ছে, এর উত্তর দিতে দিয়ে কার্যত হাস্যকর একটি যুক্তি দিয়েছেন রাজ্যের অ্যাডভোকেট জেনারেল কমল ত্রিবেদী। তিনি বলেন, পরীক্ষা ইচ্ছাকৃত ভাবেই কম করানো হচ্ছে। যুক্তি, বেশি পরীক্ষা হলে ৭০ শতাংশই পজ়িটিভ বেরোবে। তাতে মানুষের মধ্যে আতঙ্ক ছড়াবে।

বিজেপি নেতৃত্ব এতে যে প্রবল অস্বস্তিতে পড়েছেন তা বলার অপেক্ষা রাখে না। উল্লেখ্য, কম নমুনা পরীক্ষা নিয়ে পশ্চিমবঙ্গের ভূমিকার তীব্র সমালোচনা করেছিল বিজেপি। রাজ্য কিন্তু এখন নমুনা পরীক্ষা বাড়িয়ে বাড়িয়ে প্রায় গুজরাতের কাছে চলে গিয়েছে। এখানে নমুনা পজিটিভ হওয়ার হার মাত্র আড়াই শতাংশ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.