ফের দলের জন্য ‘বিরক্তিকর’ মন্তব্য করে বসলেন অধীররঞ্জন চৌধুরী

0
Adhir Ranjan Chowdhury

নয়াদিল্লি: গত সোমবার ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ রদ নিয়ে কেন্দ্রের প্রস্তাবের সমালোচনা করতে গিয়ে পর দিনই লোকসভায় ‘আত্মঘাতী গোল’ করে বসেছিলেন কংগ্রেসের দলনেতা অধীররঞ্জন চৌধুরী। বৃহস্পতিবার ফের তাঁর মন্তব্যে নিয়ে বিতর্ক দানা বাঁধল। যা দলীয় নেতৃ্ত্বের কাছে যথেষ্ট বিরক্তির উদ্রেকজনক। তিনি বলেন, নতুন পুনর্গঠিত কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল এখন কনসেনট্রেশন ক্যাম্পে পরিণত হয়েছে।

এ দিন সংবাদ সংস্থা এএনআইয়ের কাছে অধীর বলেন, “লালকেল্লা থেকে ভাষণে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, তিনি কাশ্মীরিদের উদ্দেশে বুলেট ব্যবহার করবেন না। তাঁদের আলিঙ্গন করে কাছে টানবেন। কিন্তু কাশ্মীর এখন কনসেনট্রেশন ক্যাম্পের মতো হয়ে গিয়েছে”।

একই সঙ্গে তিনি বলেন, “সেখানে (জম্মু ও কাশ্মীরে) মোবাইল বা ইন্টারনেট সংযোগ নেই। নিরাপত্তা বাহিনীর জোরালো উপস্থিতি সত্ত্বেও অমরনাথ তীর্থযাত্রা সংকুচিত করা হয়েছে। এ সব কী হচ্ছে সেখানে”?

গত মঙ্গলবার তিনি অবশ্য সংসদে দাঁড়িয়ে দাবি করেন, ‘‘আপনি বলছেন এটা অভ্যন্তরীণ ব্যাপার। কিন্তু এটা ১৯৪৮ সাল থেকে নজরে রেখেছে রাষ্ট্রপুঞ্জ। তা হলে এটা অভ্যন্তরীণ ব্যাপার কী করে হয়? আমরা সিমলা চুক্তি এবং লাহোর ঘোষণায় সই করেছিলাম, সেটা কী অভ্যন্তরীণ বিষয় ছিল, নাকি দ্বিপাক্ষিক? জম্মু-কাশ্মীর কি তা হলে অভ্যন্তরীণ বিষয় হতে পারে? আমরা জানতে চাই। পুরো কংগ্রেস পার্টি সেটা জানতে চায়।”

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের উদ্দেশে এহেন মন্তব্যের পর দলের মধ্যেই বিপাকে পড়েন অধীর। তবে এ দিন তাঁর নতুন বক্তব্যে অধীরের বোধোদয় হয়েছে বলে মনে করছেন বিজেপি নেতৃত্ব। লোকসভায় কংগ্রেস দলনেতার নতুন মন্তব্যের পরই বিজেপি নেতা রাম মাধব তেমনই ইঙ্গিত দেন টুইটারে।

অধীরের বক্তব্যকে ব্যবহার করেই তিনি লিখেছেন, “৪৮ ঘণ্টায় হৃদয় পরিবর্তন”।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here