babri masjid

ওয়েবডেস্ক: আদালতের চার দেওয়ালের মধ্যে নয়, আদালতের বাইরে শান্তিপূর্ণ ভাবেই মিটে যাবে অযোধ্যা বিতর্ক। সে জন্য খসড়া চুক্তিও তৈরি হচ্ছে এবং সেটা এ মাসের শেষের মধ্যেই তৈরি হয়ে যাবে। হিন্দুস্তান টাইম্‌সকে এমনই বললেন শিয়া ওয়াকফ বোর্ডের প্রধান ওয়াসিম রিজভি।

তিনি বলেন, “আদালতের বাইরে এই বিতর্ক মিটমাট করে দেওয়ার জন্য অযোধ্যার মহান্ত এবং বাকি আবেদনকারীদের সঙ্গে আলোচনা করেছি আমি। এই খসড়া সম্পূর্ণ করার জন্য সামনেই সপ্তাহে আমাদের মধ্যে আরও এক দফা বৈঠক হবে।” এরই মধ্যে আগামী কয়েক দিনের মধ্যে তিনি অযোধ্যা যাবেন বলেও জানান রিজভি।

সব আবেদনকারীর সঙ্গে বৈঠকের পর ওয়াকফ বোর্ডের বৈঠক ডাকবেন বলেও জানান রিজভি। তাঁর কথায়, “বোর্ডের সদস্যদের বৈঠকের পরেই এই খসড়া চুক্তিকে জনসমক্ষে নিয়ে আসা হবে।” এই ব্যাপারে আরও প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, “৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত অপেক্ষা করুন, তত দিনে পাকাপাকি কিছু সমাধান বেরিয়ে যাবে।” উল্লেখ্য, ১৯৯২-এর ৬ ডিসেম্বরেই ভাঙা হয়েছিল বাবরি মসজিদ।

বিতর্কিত জমি থেকে দূরে সরে মুসলিম প্রধান অঞ্চলে মসজিদ তৈরি করার যেতে পারেও বলে মত দিয়েছেন রিজভি। পাশাপাশি তিনি বলেন, যে কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়ার ব্যাপারে ওয়াকফ বোর্ডের পূর্ণ অনুমোদন রয়েছে তাঁর ওপরে।

উল্লেখ্য, ২০১০-এর সেপ্টেম্বরে এই জমি সংক্রান্ত রায় দিতে গিয়ে এলাহাবাদ হাইকোর্ট বলেছিল, এই মামলার তিন পক্ষ সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড, নির্মোহী  আখাড়া এবং হিন্দু মহাসভাকে সমান ভাবে তিন ভাগ করে দেওয়া হোক জমি। তবে এর ফলে বিতর্ক বাড়তে পারে বলে মনে করেন রিজভি। তাঁর কথায়, “তিন পক্ষকে সমান ভাবে জমি ভাগ করে দেওয়া হলে এই সমস্যার আদৌ কোনো সমাধান বেরোবে না।”

গত ৮ আগস্ট সুপ্রিম কোর্টে একটি হলফনামা পেশ করে শিয়া ওয়াকফ বোর্ড জানায় যে এই মামলার প্রধান পক্ষ তারাই। বাবরি মসজিদ আদতে শিয়া মসজিদ বলেও দাবি করে তারা। এই মামলার শান্তিপূর্ণ সমাধান করানোর জন্য গত ৩১ অক্টোবর শ্রীশ্রীরবিশঙ্করের সঙ্গেও দেখা করেন রিজভি।

 

 

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here