Ayodhya dispute
ছবি সৌজন্যে দ্য হিন্দুস্তান টাইমস।

নয়াদিল্লি: অযোধ্যার বিতর্কিত জমি মামলায় ঐতিহাসিক রায় দিল সুপ্রিম কোর্ট। বিতর্কিত জমিটি হিন্দুদের দেওয়ার নির্দেশ দিল আদালত। জেনে নিন বিস্তারিত রায়।

==============================================

১১:২০– বিস্তারিত রায়- বিতর্কিত জমি শর্তাধীনে হিন্দুদের হাতে দেওয়ার নির্দেশ দিল সুপ্রিম কোর্ট। শীর্ষ আদালত জানিয়েছে, ভিতরের চত্বরটি কেন্দ্রের নেতৃত্বাধীন একটি ট্রাস্টের হাতে দিতে হবে এবং পাঁচ একর আয়তন বিশিষ্ট একটি উপযুক্ত জায়গা সুন্নি ওয়াকফ বোর্ডকে দিতে হবে। ৩-৪ মাসের মধ্যে এই ট্রাস্ট গঠনের নির্দেশ দিল আদালত।

১১:১১- অযোধ্যার বিতর্কিত জমি হিন্দুদের দিল সুপ্রিম কোর্ট।

১১:০৭– বিকল্প জমিতে মসজিদ তৈরি করবেন মুসলিমরা। জানাল সুপ্রিম কোর্ট।

১১:০৩– বিতর্কিত জমিতে শেষবার নামাজ পড়া হয়েছিল ১৯৪৯-এর ডিসেম্বরে।

১০:৫৬- সাক্ষপ্রমাণ অনুযায়ী বিতর্কিত জমির বাইরের অংশটি হিন্দুদের তত্ত্বাবধানে ছিল।

১০:৫০– হিন্দুরা বিশ্বাস করে বিতর্কিত জায়গায় ভগবান রাম জন্মগ্রহণ করেছেন। সেই বিশ্বাসকে অবজ্ঞা করা যায় না।

১০:৪৭– এএসআইয়ের রিপোর্টে উল্লেখ নেই যে মন্দির ধ্বংস করে মসজিদ হয়েছে।

১০:৪৩– রাম লালা আইনি ব্যক্তি নন: সুপ্রিম কোর্ট।

১০:৪১– যে রায় আসবে সেটা সর্বসম্মত। নিরমোহী আখাড়ার আবেদন খারিজ সুপ্রিম কোর্টের।

১০:৪০- বাবরি মসজিদ তৈরি করেছিলেন মির বাকি। আমাদের পক্ষে ধর্মতত্ত্বের দিকে যাওয়া সম্ভব নয়: গগৈ

১০:৩৬– পুরো রায় পড়ে শোনাতে আধঘণ্টা লাগবে।

১০:৩৩– শিয়া ওয়াকফ্‌ বোর্ডের আবেদন খারিজ: গগৈ

সকাল সাড়ে ১০টা: আর কিছুক্ষণের মধ্যেই ঘোষিত হবে অযোধ্যা মামলার রায়। আদালতে রয়েছে পাঁচ বিচারপতি এবং আইনজীবীরা।

***** প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ সুপ্রিম কোর্টে পৌঁছলেন।

***** প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈয়ের নেতৃত্বাধীন পাঁচ সদস্যের ডিভিশন বেঞ্চ সকাল সাড়ে ১০টায় ওই রায় ঘোষণা করবে।

***** প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ ছাড়াও পাঁচ সদস্যের ডিভিশন বেঞ্চে রয়েছেন বিচারপতি এস এ বোবদে, বিচারপতি ডি ওয়াই চন্দ্রচূড়, বিচারপতি অশোক ভূষণ এবং বিচারপতি এস আবদুল নাজির।

***** শুক্রবার রাতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী টুইট করে বলেছেন, “অযোধ্যা মামলায় সুপ্রিম কোর্ট যা-ই রায় দিক, সেটা কারও পক্ষেই হার বা জিৎ হবে না। শান্তি, ঐক্য আর সদিচ্ছার যে ঐতিহ্য ভারতের আছে, এই সিদ্ধান্তে তা আরও শক্তিশালী হবে – এটাই যাতে আমাদের অগ্রাধিকার হয়, সেটা দেখার জন্য আমি আমার দেশবাসীর কাছে আবেদন জানাচ্ছি।”

***** শনিবার অযোধ্যা রায়দানের পরিপ্রেক্ষিতে সতর্কতা মূলক ব্যবস্থা হিসাবে গোটা উত্তর প্রদেশে ১৪৪ ধারা বলবৎ করা হয়েছে। ৯ নভেম্বর থেকে ১১ নভেম্বর পর্যন্ত রাজ্যের সমস্ত স্কুল, কলেজ এবং ট্রেনিং সেন্টার বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

***** দেশের বাকি অংশেও সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

(ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের বর্তমান পরিস্থিতি সম্পর্কে জানতে ক্লিক করুন এখানে)

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন