অখিল ভারতীয় বিদার্থী পরিষদের (এভিবিপি) লাগাতার বিক্ষোভের জেরে ভারতে সমস্ত অফিস সাময়িক ভাবে বন্ধ করে দিল অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল। বাতিল করা হয়েছে সব কর্মসূচিও।

গত সপ্তাহে বেঙ্গালুরুতে ‘কাশ্মীরে মানবাধিকার’ সংক্রান্ত এক আলোচনাসভাকে কেন্দ্র করে বির্তকের সূত্রপাত হয়। অনুষ্ঠানে কাশ্মীরের ‘আজাদি’-র সপক্ষে স্লোগান দেওয়া হয় বলে অভিযোগ ওঠে। বিজেপির ছাত্র সংগঠন এবিভিপি পুলিশের কাছে অ্যামেনেস্টির বিরুদ্ধে ‘দেশদ্রোহিতা’-র অভিযোগ দায়ের করে। পুলিশ অভিযোগের তদন্ত শুরু করেছে।

এর পর মঙ্গলবার ও বুধবার এভিবিপি-সহ বেশ কয়েকটি সংগঠন অ্যামনেস্টির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখায়। সেই বিক্ষেভের কারণে মানবাধিকার সংগঠনটি দিল্লি, পুণে, চেন্নাই ও বেঙ্গালুরুর অফিস সাময়িক ভাবে বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

ঘটনার পর সোমবার এক বিবৃতি দিয়ে ‘রাষ্ট্রদোহের’ অভিযোগ অস্বীকার করে অ্যামনেস্টি জানিয়ে দিইয়েছিল কেন তারা ওই অনুষ্ঠানটির আয়োজন করেছিল। বিবৃতিতে বলা হয়, তাদের  সংগঠনের কোনও সদস্য কাশ্মীরের  পক্ষে ‘আজাদি’ স্লোগান দেয়নি।

অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল ইন্ডিয়ার মুখপাত্র হিমানীশ মাতা বলেন, “সেমিনারটি সবার জন্য উন্মুক্ত ছিল। সারাক্ষণই নানা মানুষ এসেছেন ও চলে গেছেন। তাঁদের কেউ স্লোগান দিয়ে থাকতে পারেন। এতে আমাদের কোনও কর্মকর্তা বা র্কমচারী জড়িত ছিলেন না।”

এর পর মুম্বই ও দিল্লিতে এ ধরনের আরও কয়েকটি সেমিনার হওয়ার কথা থাকলেও সংস্থার সদস্য এবং অংশগ্রহণকারীদের নিরাপত্তার কথা ভেবে সেগুলো স্থগিত করা হয়েছে বলে হিমানীশ জানিয়েছেন।

তিনি আরও বলেন, “যাঁরাই সাংবিধানিক অধিকার নিয়ে কাজ করছেন তাঁদেরই বাধা দেওয়া হচ্ছে।”

ইতিমধ্যেই বিদেশি অনুদান নিয়ন্ত্রণ আইনে অ্যামনেস্টির তহবিল নিয়ে তদন্ত শুরু করার কথা জানিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক।  

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here