selfi

মুম্বই: সেলফি তুলতে গিয়ে প্রাণ হারানো বা বড়োসড়ো কোনো বিপদে পড়ার খবর প্রায়ই শোনা যায়। কিন্তু তবুও বিপজ্জনক জায়গা থেকে সেলফি তুলে মানুষকে তাক লাগিয়ে দেওয়ার নেশা মানুষের কমেনি। সেই রকম একটি সাংঘাতিক ব্যাপারই কি করতে চেয়েছিলেন ইনি? রাজ্যের প্রধান প্রশাসকের ঘরণী হয়ে এ কি তাঁকে শোভা পায়? নাকি সেলফি এমনই একটি উন্মাদ করা বিষয় যার জন্য নিজের অবস্থান, পরিস্থিতি বা পারিপার্শ্বিক, স্থান-কাল-পাত্র মর্যাদা সবই ভুলে যাওয়া যায়!

 

মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবিসের স্ত্রী অমৃতা ফড়নবিস। তিনি জাহাজের এক দম প্রান্তে, সাংঘাতিক বিপজ্জনক একটি জায়গায় গিয়ে ছবি তুলছিলেন। সেখানে নিরাপত্তারক্ষীরা তাঁকে বাধা দিলে, সাবধান করলেও সেই কথা অমান্য করেই তিনি এক্কেবারে শেষ প্রান্তে গিয়ে ছবি তুলেছেন। এই ঘটনাটির ভিডিও টুইটারে পোস্ট হওয়ার পর থেকেই তা ভাইরাল হয়ে যায়। এখনও পর্যন্ত প্রায় দেড় লক্ষ বার দেখা হয়েছে ভিডিওটি। আর সঙ্গে সঙ্গে বয়ে গিয়েছে তাঁদের ওপর দিয়ে সমালোচনার ব্যাপক ঝড়। আর সেটাই তো স্বাভাবিক।

ঘটনাটি ঘটেছে দেশের প্রথম ক্রুজ শিপ অ্যাংগ্রিয়ায়। এ দিন এই বিলাসবহুল জাহাজটির উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এসেছিলেন অমৃতা ফড়নবিস। সঙ্গে ছিলেন স্বামী তথা মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবিস ও কেন্দ্রীয় পবিহনমন্ত্রী নিতিন  গড়কড়িও। ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে অমৃতাকে নিরাপত্তারক্ষীরা দূরে সরে যেতে বলছেন। কিন্তু নিরাপত্তারক্ষীর নিষেধ অমান্য করে জোর করে জাহাজের ডেকের বিপজ্জনক এলাকায় ঢুকে পড়েছেন অমৃতা। ছবি তুলছেন।

 

সমালোচকদের প্রশ্ন, যেখানে যুবসম্প্রদায়কে বারণ করা হচ্ছে এমন সব ঝুঁকিপূর্ণ ছবি তুলতে, সেখানে এক জন মুখ্যমন্ত্রীর স্ত্রী হয়ে এমন কাজ কী ভাবে করতে পারেন?

 

কারও কারও মতে, বিষয়টি তো শুধু আইনশৃঙ্খলা রক্ষার নয়, বিষয়টি ব্যক্তিগত নিরাপত্তারও। সমাজের একজন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্ব হয়ে সমাজের প্রতি কিছু দায়িত্ব তো পালন করা উচিত। কিন্তু এটি কী ধরনের দায়িত্ব? ইত্যাদি ইত্যাদি।

 

কারনেগি মেলান বিশ্ববিদ্যালয় আর দিল্লির ইন্দ্রপ্রস্থ ইনস্টিটিউট অব ইনফর্মেশনের গবেষকদের একটি গবেষণাপত্র থেকে জানা গিয়েছে, ২০১৭ সালে বিপজ্জনক ভাবে সেলফি তুলতে গিয়ে সব থেকে বেশি মৃত্যু ঘটেছে ভারতে। এমনকি মুম্বই পুলিশ অন্তত পক্ষে ১৫টি জায়গায় সেলফি তোলা নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে। কারণ জায়গাগুলি সেলফি তোলার ক্ষেত্রে সাংঘতিক ঝুঁকিপূর্ণ।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here