পরিচারিকাকে আটকে রাখার অভিযোগ, নয়ডার আবাসনে হামলা

0
194

নয়াদিল্লি : দিল্লির কাছে এক হাউসিং সোসাইটিতে লাঠি পাথর নিয়ে হামলা করল গ্রামবাসীরা। ঘটনা বুধবার সকালের। নয়ডার ৭৮ নম্বর সেক্টরের মহাগুণ মডার্ন হাউসিং সোসাইটিতে ক্ষিপ্ত গ্রামবাসীরা আক্রমণ করে। গ্রামবাসীদের দাবি, চুরির অভিযোগে এক জন তরুণীকে এখানে রাতভর আটকে রাখা হয়েছে। শুধু আটকে রাখা হয়নি, তাকে মারধরও করা হয়েছে। এই তরুণী এখানে ঠিকে কাজ করেন।

তরুণীর নাম জহরা বিবি। বয়স ২৬। এই হাউসিং সোসাইটির একাধিক বাড়িতে ঠিকে কাজ করে্ন জহরা। তাঁর স্বামী নয়ডা থানায় বাড়ির মালিক মিতুল শেঠি আর হারসু শেঠির বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করেছে। তরুণীর পরিবারের অভিযোগ, গত কাল সে বাড়ি ফেরেনি।

প্রসঙ্গত মিতুল একটা প্লে স্কুল চালান, হারসু রিয়েল এস্টেটের ব্যবসা করেন।

জহরার এক আত্মীয় বলেন, সারা রাত তাঁরা সোসাইটির বাইরে অপেক্ষা করেছেন। কিন্তু জহরা ফেরেননি। তার পর অ্যাপার্টমেন্টের ভেতরে গিয়ে তাঁর খোঁজ করা হয়েছে। কিন্তু তাঁদের জানিয়ে দেওয়া হয়েছে জহরা সেখানে নেই। এমনকি তাঁরা পুলিশকেও নিয়ে গিয়েছিলেন। তাতেও লাভ হয়নি। অবশেষে এ দিন সকালে তাঁকে সোসাইটি থেকেই বেরিয়ে আসতে দেখা যায়। জহরাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

অন্য দিকে শেঠি দম্পতির দাবি, জহরা তাঁদের বাড়িতে ঠিকে কাজ করেন। তা ছাড়াও কমপ্লেক্সের অন্যান্য বাড়িতেও কাজ করেন। জহরা ১০ হাজার টাকা চুরি করেছিলেন। শুধু তাই নয় চুরির কথা তিনি স্বীকারও করেছিলেন। তখন তাঁকে ভয় দেখানো হলে তিনি পালিয়ে যান। পালানোর সময় তিনি তাঁর মোবাইল ফোনটা ফেলে রেখে যান।

হাউসিং-এর অন্য বাসিন্দারা জানিয়েছেন, জহরাকে সেখানে আটকে রাখা হয়নি। জহরা কমপ্লেক্সেই এক জন বয়স্ক মহিলার বাড়িতে কাজ করেন। রাতে সোখনেই ছিলেন।

মিতুল শেঠির অভিযোগ, সকালে গ্রামবাসীরা সোসাইটিতে ঢুকে পড়ে। বাড়ির দরজার কাচ ভেঙে ঘরের মধ্যে ঢুকে পড়ে। ঘটনাটা খুবই ভয়াবহ। প্রাণ সংশয় হয়ে গিয়েছিল। তিনি তাঁর পরিবার আর সন্তানের নিরাপত্তার বিষয়ে চিন্তিত। এর পরে পুলিশের অনুমতি ক্রমে শেঠি দম্পতিকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেন, প্রায় ২০০ জন এলাকায় ঢুকে পড়ে। এদের অনেকেই ঠিকে কাজ করে। সোসাইটির নিরাপত্তারক্ষীরা বাধা দিতে গেলে তাদের সঙ্গে ধ্বস্তাধস্তি শুরু হয়। তাদের সঙ্গে ছিল লাঠি, পাথর। তারা সোসাইটির দরজা ভেঙে ফেলে। সোসাইটি অফিসেও ভাঙচুর করে। পুলিশ এসে পরিস্থিতি শান্ত করে।

এক ক্লিকে মনের মানুষ,খবর অনলাইন পাত্রপাত্রীর খোঁজ

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here