অঙ্কিতা ভাণ্ডারী। ছবি: টইটার

তরুণী রিসেপশনিস্ট অঙ্কিতা ভাণ্ডারী খুনে নানা রহস্য প্রকাশ্যে আসছে। পুলিশ জানতে পেরেছে নিখোঁজ হওয়ার দিন কাঁদতে কাঁদতে এক সহকর্মীকে ফোন করেছিলেন তিনি। শুধু তাই যে রিসর্টে তিনি রিসেপশনিস্টের কাজ করতে তার মালিক পুলকিত সঙ্গে কোনও বিষয়ে কথা কাটাকাটি হয়েছিল। সে কথাই তিনি কাঁদতে কাঁদতে সেই সহকর্মীকে জানাচ্ছিলেন।

গত ১৮ সেপ্টেম্বর থেকে নিখোঁজ হয়ে যান অঙ্কিতা। ওই তাঁকে খালে ঠেলে ফেলে মেরা ফেলা হয় বলে অভিযোগ। পাঁচ দিন নিখোঁজ থাকার পর ওই খাল থেকে তাঁর দেহ উদ্ধার হয়

পুলকিত

অঙ্কিতাকে দেহ ব্যবসায় নামাতে চেয়েছিলেন বিজেপি নেতার ছেলে?

তাঁর পরিবার অভিযোগ, দেহ ব্যবসায় নামার জন্য অঙ্কিতাকে চাপ দিত উত্তরাখণ্ডের বিজেপি নেতা বিনোদ আর্যর ছেলে পুলকিত আর্য। তাতে বাধা দেওয়াতেই খুন হয়ে হয়েছে তাঁকে।

পরিবারের দাবি, যারা হোটেলে আসতেন তাদের শয্যাসঙ্গিনী হওয়ার জন্য অঙ্কিতাকে চাপ দিতেন পুলকিত। কিন্তু তিনি তা একাধিকবার প্রত্যাখান করেছেন। সেই আক্রোশেই তাঁদের মেয়েকে খুন করা হয়েছে বলে দাবি তাঁর পরিবারের।

খালে ফেলে মোমো দিয়ে মদ্যপান

রিসর্টের নিরপত্তারক্ষী জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ জানতে পেরেছে, ১৮ সেপ্টেম্বর খুব বিচলিত ছিলেন তরুণী। সেই সময় তিনি সহকর্মীকে ফোন করে ব্যাগ আনতে বলেন। তার কিছু ক্ষণ পর, রাত ৮টা নাগাদ তরুণীকে নিয়ে পুলকিত ও তাঁর দুই বন্ধু সৌরভ এবং অঙ্কিত হৃষিকেশের উদ্দেশে বেরিয়ে যান। রাত সাড়ে ১০টা থেকে সাড়ে ১১টার মধ্যে ওই তিন জন রিসর্টে ফিরে আসেন। কিন্তু তরুণীকে তাঁদের সঙ্গে দেখতে পাননি বলে পুলিশকে জানিয়েছেন রিসর্টের নিরাপত্তারক্ষী।

চার জনে এক সঙ্গে রিসর্ট ছাড়লেও আলাদা আলাদা গাড়িতে গিয়েছিলেন। হৃষিকেশ ব্যারেজ হয়ে তাঁরা সকলে এমসের কাছে পৌঁছন। এর পর তাঁরা সেখান থেকে চিলা রোডে যান। খালের পাশেই এই রোড। খালের ধারে একটি অন্ধকার জায়গা বেছে নেন পুলকিতরা। পুলিশকে ধৃতরা জানিয়েছেন, খালের ধারে বসেও তরুণীর সঙ্গে আর এক দফা কথা কাটাকাটি হয় পুলকিতের।

তবে এ বার পরিস্থিতি আরও উত্তপ্ত হয়ে উঠেছিল। অঙ্কিতা পুলকিতকে ধমকি দেন, রিসর্টে তাঁর সঙ্গে যা ঘটেছে, সব বলে দেবেন। তার পরই পুলকিতের ফোন খালে ছুড়ে ফেলে দেন তরুণী। তখন পুলকিতরা মত্ত অবস্থায় ছিলেন।

ফোন খালে ফেলে দেওয়ার পরই তরুণীকে মারধর করেন তিন জন মিলে। তার পর খালের জলে ঠেলে ফেলে দেন। পুলিশ জানিয়েছে, সেখানে বসে অভিযুক্তরা মোমো দিয়ে মদ পান করেন। অঙ্কিতা তখন খালের জলে ডুবে যাচ্ছিলেন। ডুবে যাওয়ার আগে বার দুয়েক বাঁচানোর জন্য আর্জিও জানিয়েছিলেন। কিন্তু তাঁকে ডুবতে দেখেও গাড়ি নিয়ে বেরিয়ে যান তাঁরা।

বিজেপি নেতার বাড়িতে আগুন

এই ঘটনার খবর প্রকাশ্যে আসতেই বিজেপি নেতা বাড়িতে হামলা চালায় উত্তেজিত জনতা। আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয় তাঁর বাড়িতে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে ওই রিসর্টে বুলডাজোর চালানো হয়।

অভিযুক্তের দোষ স্বীকার

শুক্রবারই মূল অভিযুক্ত পুলকিত-সহ তিনজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। জেরার জলে ঠেলে ফেলে দেওয়ার কথা সে স্বীকার করে নিয়েছে।

আরও দেশ-বিদেশের খবর, খেনা, বিনোদন বাছাই খবর পেতে দেখুন: https://www.khaboronline.com/

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন