biplab kumar deb

আগরতলা: মহাভারতের যুগেও ইন্টারনেটের চল থাকার তত্ত্ব কিছু দিন আগেই দিয়েছিলেন তিনি। ফের একবার বেফাঁস মন্তব্য করলেন ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব। এ বার তাঁর লক্ষ্য বিখ্যাত মডেল ডায়ানা হেডেন। তিনি মনে করেন, মিস ওয়ার্ল্ড হওয়ার মতো ‘ভারতীয়’ নন ডায়ানা হেডেন।

১৯৯৭-তে মিস ওয়ার্ল্ড হয়েছিলেন হেডেন। এর তিন বছর আগে এই শিরোপা উঠেছিল ঐশ্বর্য রাইয়ের মাথায়। বিপ্লব মনে করেন, হেডেন নন, ঐশ্বর্যই ভারতীয় নারীদের প্রতিনিধিত্ব করেন।

ঠিক কী কারণে বিপ্লব এ রকম মনে করেন, সে কথাও বলে দিয়েছেন তিনি। তাঁর কথায়, “আগেকার দিনে ভারতীয় মহিলারা কসমেটিক্স ব্যবহার করতেন না। ভারতীয়রা মাথায় শাম্পু ব্যবহার করতেন না। তাঁরা মেথির জল মাথায় দিতেন, এবং কাদা দিয়ে চান করতেন। এই সব সৌন্দর্যের প্রতিযোগিতাগুলি বড়ো মাফিয়া ছাড়া আর কিছুই নয়। এদের জন্যই পাড়ায় পাড়ায় এখন বিউটি পার্লার গজিয়ে উঠছে।”

কিছু দিন আগেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী দলীয় নেতা-কর্মী-সাংসদ-বিধায়কদের সতর্ক করে বলেছিলেন মিডিয়ার হাতে ‘মশলা’ যেন না তুলে দেওয়া হয়। এ বার সেই ‘মশলাই’ তুলে দিলেন বিপ্লব।

আরও পড়ুন: মিডিয়াকে ‘মশলা’ তুলে দেওয়ার দায়ে দলীয় সাংসদ-বিধায়কদের দুষলেন মোদী

তাঁর দাবি, এই যে সৌন্দর্যের প্রতিযোগিতা হয় সেগুলি প্রসহন ছাড়া আর কিছুই নয়, এবং তাদের ফলও পূর্বনির্ধারিত থাকে। আগরতলার প্রজ্ঞা ভবনে তাঁতের একটি কর্মশালায় এই কথাগুলি বলেন বিপ্লব। ডায়ানা হেডেন কী ভাবে মিস ওয়ার্ল্ড উপাধি পেয়েছেন সে ব্যাপারেও প্রশ্ন তোলেন ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী।

তাঁর কথায়, “আমরা ভারতীয় মহিলাদের লক্ষ্মী, সরস্বতীর সঙ্গে তুলনা করি। ঐশ্বর্য রাই মিস ওয়ার্ল্ড হয়েছিলেন ঠিক আছে, কিন্তু কোন যুক্তিতে হেডেন মিস ওয়ার্ল্ড পেয়েছেন সেটা আমি কিছুতেই ভেবে পাই না।”

প্রত্যাশামতোই বিপ্লবের এই মন্তব্যের পরে বিস্তর সমালোচনা হয়েছে। তাঁর এই মন্তব্যকে নারী বিদ্বেষী, সাম্প্রদায়িক বলে মন্তব্য করেছেন সমাজকর্মী কবিতা কৃষ্ণণ।

দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালের উপদেষ্টা নগ্রেন্দ্র শর্মা টুইট করে বলেন, “এখন আমরা যদিও এপ্রিলে রয়েছি কিন্তু আমার মনে হচ্ছে বছরের সব থেকে হাস্যকর মন্তব্যটি করা হয়ে গেল।”

আরও পড়ুন: চার বছরেই বেহাল, নীরবতার ইমারত ভাঙছে বেফাঁস মন্তব্যে

একজন প্রবীণ সাংবাদিক টুইট করে বলেন, “ভারত একজন নতুন বিনোদনকারী পেয়েছে, শুধুমাত্র এই কারণেই আমি ত্রিপুরার মানুষের রায়কে সাধুবাদ জানাচ্ছি।”

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here