অ্যাসিড রুখতে ‘ক্যান্সার-আতঙ্ক’! এই অ্যান্টাসিড কি আপনি নেন?

0
tablets
র‍্যানিটিডিন জাতীয় অ্যান্টাসিডে ক্যান্সার আতঙ্ক। প্রতীকী ছবি

ওয়েবডেস্ক: কয়েকটি অ্যান্টাসিডে ক্যান্সার সৃষ্টিকারী রাসায়নিকের উপস্থিতির খবরে নড়েচড়ে বসল গোটা বিশ্ব। ঘটনা‌টির দিকে নজর রাখছে দেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রকও।

আমেরিকার ড্রাগ রেগুলেটর সংস্থার দাবি, কিছু অ্যান্টাসিডে ক্যান্সার সৃষ্টিকারী রাসায়নিক এন-নাইট্রোসোডিমিথালানিন বা এনডিএমএ-র উপস্থিতি ধরা পড়েছে। র‍্যানিটিডিন জাতীয় অ্যান্টাসিডে এই যৌগ ব্যবহার করা হয়। যা ক্যান্সারের কারণ হিসাবে বিবেচিত হয়।

বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার ‘প্রয়োজনীয় ওষুধের মডেল তালিকা’য় অন্তর্ভুক্ত রয়েছে র‍্যানিটিডিন জাতীয় অ্যান্টাসিড। সাধারণত অ্যাসিডিটি বা অম্বলের ক্ষেত্রে এই ওষুধ ব্যবহার বহুল প্রচলিত।

ভারতের মতো দেশেও একাধিক সংস্থা র‍্যানিটিডিন জাতীয় অ্যান্টাসিড তৈরি করে। গ্ল্যাক্সোস্মিথলাইন, জেবি কেমিক্যালস, ক্যাডিলা ফার্মা, জাইদাস ক্যাডিলা, ডক্টক রেড্ডি’স, সান ফার্মা সব মিলিয়ে প্রায় ১৮০ ধরনের এই ওষুধ বিক্রি করে। এআইওসিডি ফার্মা ট্র্যাকের রিপোর্ট অনুযায়ী, শুধুমাত্র ভারতেই র‍্যানিটিডিন জাতীয় অ্যান্টাসিডের ব্যবসার পরিমাণ ৬৮৮.৬ কোটি টাকা।

গত মঙ্গলবারই কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক রাজ্য সরকারগুলির সংশ্লিষ্ট স্বাস্থ্য বিভাগের উদ্দেশে এ বিষয়ে নির্দেশিকা জারি করে। বলা হয়, এই জাতীয় ওষুধে ক্যান্সারজনক পদার্থ বা কার্সিনোজেনের উপস্থিতি রয়েছে কি না, তা খতিয়ে দেখতে। এ ধরনের ওষুধ উৎপাদক সংস্থাগুলির কাছে উপাদান-সংক্রান্ত বিশদ রিপোর্ট চেয়ে পাঠানোর নির্দেশও দেওয়া হয়।

স্বাস্থ্যমন্ত্রক জানায়, এ দেশের বিভিন্ন ফরমুলেশনে র‍্যানিটিডিন জাতীয় অ্যান্টাসিড পাওয়া যায়। ট্যাবলেট এবং ইঞ্জেকশন হিসাবেও রোগীকে দেওয়া হয়। এই ধরনের ওষুধ তফসিল-এইচ-এর অন্তর্ভুক্ত। ফলে নিবন্ধীকৃত মেডিক্যাল প্র্যাকটিশনারের প্রেসক্রিপশন ব্যতিরেকে এই ওষুধ বিক্রি করা উচিত নয়।

বিশেষজ্ঞদের মতে, র‍্যানিটিডিন জাতীয় অ্যান্টাসিড অ্যাসিডিটি এবং উপরের অন্ত্রের আলসারের জন্য প্রাচীন ব্যবহৃত একটি ওষুধ। এটি বর্তমানে নিরাপদ হিসাবেই বিবেচিত হয়।

চিকিৎসদের একাংশের মতে, এটি বহুল ব্যবহৃত একটি ওষুধ। বিশেষ করে রেনাল ডিসফাংশনের জন্য এটি প্রচুর পরিমাণে ব্যবহার করা হয়।

একই সঙ্গে চিকিৎসকদের একাংশ জানিয়েছেন, এখনই এ বিশয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই। র‍্যানিটিডিন জাতীয় অ্যান্টাসিডগুলি প্রায় ৩৫ বছর ধরে বাজারে অনুমোদিত হয়েছে। এর বেশ কয়েকটি ওটিসি সংস্করণ দুই দশকেরও বেশি সময় ধরে গ্রাহকরা নিচ্ছেন। সংশ্লিষ্ট বিভাগগুলি পুরো ঘটনা খতিয়ে দেখার পরই সিদ্ধান্তে পৌঁছাবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here