প্রাক্তন সেনাপ্রধানের রোষে পড়েছিলেন, বিস্ফোরক বর্তমান সেনাপ্রধান

0

ভারতের ইতিহাসে যা কখনও হয়নি, তাই হল। সেনাপ্রধান দলবীর সিং শীর্ষ আদালতে নথি পেশ করে জানালেন প্রাক্তন সেনাপ্রধান ভিকে সিং-এর রোষে পড়েছিলেন তিনি, তাঁর পদোন্নতি আটকে দেওয়ার চেষ্টা করা হয়েছিল। আদালতে দাখিল করা নথিতে সেনাপ্রধান বলেছেন, তৎকালীন সেনাপ্রধান ভিকে সিং ’রহস্যময় কৌশল করে, দূরভিসন্ধি থেকে তাঁকে ইচ্ছামত শাস্তি’ দিয়ে পদোন্নতি আটকানোর চেষ্টা করেছিলেন। তাঁকে সেনা কমান্ডার পদে যাওয়া থেকে ঠেকানোর চেষ্টা করেছিলেন ভিকে, অভিযোগ দলবীরের। ভিকে সিং বর্তমানে বিদেশ প্রতিমন্ত্রী।

এই প্রথম নয়, ২০১২ সালে সেনাবাহিনীর ট্রাইবুনালেও এই কথা বলেন দলবীর। তিনি তখন সেনাপ্রধান ছিলেন না, ভিকে-ও বিদেশ প্রতিমন্ত্রী ছিলেন না। অভিযোগকারী শীর্ষ আদালতে মামলা করায় দলবীর তাঁর সেই পুরনো বক্তব্যই এখানে পেশ করলেন। এ নিয়ে আলোচনা করতে প্রতিরক্ষামন্ত্রী মনোহর পারিক্করের সঙ্গে দেখাও করেন সেনাপ্রধান। আদালতে এই নথি পেশ করার অধিকার তাঁর আছে, একথা সরকার মেনে নিয়েছে বলে সূত্রের খবর।

২০১১ সালের ২০ ডিসেম্বর অসমের জোড়হাটে একটি সেনা অভিযান চলাকালীন বাহিনীর ওপর ‘নিয়ন্ত্রণ রাখতে না পারা’র অভিযোগে ২০১২ সালে দলবীরের ওপর ‘শৃঙ্খলা ও নজরদারি’ সংক্রান্ত নিষেধাজ্ঞা জারি করেন জেনারেল ভিকে সিং।

ওই বিতর্কিত সেনা অভিযানে, সেনাবাহিনীর এক ঠিকেদারের স্ত্রী ও তিন ছেলেমেয়ের চোখ বেঁধে সেনাবাহিনীর পোশাকে মুখোশ পড়া কয়েকজন তাদের বাড়ি তছনছ করে টাকা পয়সা, গয়নাগাটি ও অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে চলে যায়। সেনাবাহিনীর গোয়েন্দা বিভাগ তদন্ত করে জানায়, ওই ঠিকেদার জঙ্গিদের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। এ নিয়ে তদন্তের নির্দেশ দেয় বাহিনী। সে সময় অসমে একজন সিনিয়র কমান্ডিং অফিসার ছিলেন দলবীর। সুপ্রিম কোর্টে দাখিল করা নথিতে তিনি জানিয়েছেন, ঘটনার সময় তিনি ছুটিতে ছিলেন, ২৬ ডিসেম্বর তিনি কাজে যোগ দেন। তাঁর বিরুদ্ধে যে অভিযোগ, তার কোনও প্রমাণ নেই বলে দাবি দলবীরের। তৎকালীন সেনাপ্রধান সম্পূর্ণ ‘বেআইনি ও পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে’ তাঁকে শোকজ করেন ও নিষেধাজ্ঞা জারি করেন বলে আদালতে জানিয়েছেন দলবীর।

ভিকে সিং-এর পর বিক্রম সিং সেনাপ্রধান হয়ে দলবীরের নিষেধাজ্ঞা তুলে নেন এবং পদোন্নতি হয়  দলবীরের। সেই বিলম্বিত পদোন্নতির বিরুদ্ধে শীর্ষ আদালতে মামলা করেন লেফটেনান্ট জেনারেল রবি দস্তানে। সেই সময় পদোন্নতির সুযোগ ছিল তাঁরও। রবির অভিযোগ দলবীরকে অন্যায্য সুবিধা পাইয়ে দিয়েছিলেন বিক্রম সিং।

এই নিয়ে দু’বার বড় মাপের বিতর্কে জড়ালেন জেনারেল ভিকে সিং। ২০১২ সালে তাঁর অবসরের কয়েক মাস আগে, তিনি আদালতে গিয়ে সেনাবাহিনীর রেকর্ডে নথিভুক্ত নিজের জন্ম তারিখ পাল্টানোর আবেদন করেন। যদিও আদালত তা মানেনি।  

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন