‘ওদের গ্রেফতার করুন…’, দিল্লির জহাঙ্গিরপুরীর হিংসা, উচ্ছেদের ঘটনায় সরব বৃন্দা কারাট

0

নয়াদিল্লি: দিল্লির জহাঙ্গিরপুরীর ‘বেআইনি’ উচ্ছেদ অভিযান নিয়ে বিজেপি-কে একহাত নিলেন সিপিএম পলিটব্যুরো সদস্য বৃন্দা কারাট। তিনি মনে করেন, শুধুমাত্র একটি নির্দিষ্ট ধর্মীয় সম্প্রদায়ের মানুষের বিরুদ্ধে পরিকল্পিত ভাবে ওই অভিযান চালানো হয়েছিল।

হিন্দুস্তান টাইমস-এর সঙ্গে একটি সাক্ষাৎকারে বিজেপি এবং সঙ্ঘ পরিবারকে নিশানা করেন বৃন্দা। বুলডোজারকে তিনি ‘ভারতীয় জনতা পার্টি এবং সঙ্ঘ পরিবারের রাজনৈতিক মতাদর্শ এবং কৌশলের প্রতিনিধি’ বলে অভিহিত করেন।

গত ২০ এপ্রিল জহাঙ্গিরপুরীতে তথাকথিত অবৈধ নির্মাণ উচ্ছেদ অভিযানে স্থগিতাদেশ দিয়েছিল সুপ্রিম কোর্ট। কিন্তু তার পরেও অব্যাহত ছিল উচ্ছেদ অভিযান। সকাল থেকেই এলাকায় ঢুকে পড়ে বুলডোজার। শুরু হয় উচ্ছেদ অভিযান। এর পর দুপুর ১২টা নাগাদ কার্যত এক অবিশ্বাস্য ঘটনা। সবাইকে চমকে দিয়ে পুলিশকর্মী, স্থানীয় মানুষের ভিড় ঠেলে সিপিএম নেত্রী বৃন্দা গিয়ে দাঁড়িয়ে পড়েন একটি বুলডোজারের সামনে। হইহই পড়ে যায় ওই জায়গায়। কোর্টের নির্দেশের কপি দেখান। কিছুক্ষণের মধ্যেই উচ্ছেদ অভিযান বন্ধ করে পুরনিগম।

সাক্ষাৎকারে বৃন্দা বলেন, “প্রথম বিষয়টা হল বাছাইয়ের। দ্বিতীয় বিষয় হল এই বাছাই বৈধ এবং অবৈধ দৃষ্টির ভিত্তিতে নয়। আপনি কোনো বিশেষ ধর্মে বিশ্বাস করেন, এটা তার উপর ভিত্তি করে। তাই, আমি যদি ইসলামে বিশ্বাস করি বা আমি একজন মুসলিম হই, তা হলে অন্য কারো চেয়ে আমার বাড়িটি বিনা নোটিশে ভেঙে ফেলার সম্ভাবনা বেশি”।

বেআইনি উচ্ছেদ অভিযানের নামে এই ধ্বংসাত্মক কাণ্ডের জন্য দিল্লির বিজেপি প্রধান আদেশ গুপ্তাকে কাঠগড়ায় তুলেছেন বৃন্দা। তিনি বলেন, “উত্তর দিল্লি মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশনের চিঠিতে খুব স্পষ্ট ভাবেই বলা হয়েছিল, যে বাড়িগুলি ভেঙে ফেলা হবে, সেগুলো ‘দাঙ্গাকারীদের’ বৈআইনি দখল। তাই তারা সিদ্ধান্ত নেয় কারা দাঙ্গাকারী এবং কোন বাড়িটি বেআইনি। তারা সেখানে বুলডোজার নিয়ে যাওয়ার নির্দেশ দেয়। অন্য দিকে, পুলিশ বাহিনী দিয়ে তাদের সাহায্য করে কেন্দ্রীয় সরকার”।

দীর্ঘ ওই সাক্ষাৎকারে বৃন্দার প্রশ্ন, “আমি যদি দাঙ্গাবাজ হই, তা হলে সেটা প্রমাণ করে শাস্তি দেওয়ার মতো আদালত কি নেই? ক্ষমতায় থাকা দলকে কি আমার বাড়িতে বুলডোজার পাঠিয়ে আমার জীবন-জীবিকা ও সঞ্চয় নষ্ট করার অধিকার দেওয়া হয়েছে”?

তবে শুধু বৃন্দা নন, জহাঙ্গিরপুরীর ঘটনায় সাম্প্রদায়িক গন্ধ রয়েছে বলে অভিযোগ বিরোধীদের। বেছে বেছে সংখ্যালঘু মহল্লাতেই প্রশাসন এই আস্ফালন দেখায় বলে অভিযোগ তাদের। আর এমনিতেও দিল্লিতে সরকার আম আদামি পার্টির হলেও পুলিশ-প্রশাসন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের নিয়ন্ত্রণে।

আরও পড়তে পারেন:

মুখময় কাঁচা-পাকা দাড়ি, নিজের বদলে যাওয়া ইমেজের জট খুলে দিলেন ববি দেওল

বাবুল সুপ্রিয়র শপথগ্রহণ নিয়ে ফের অনিশ্চয়তা, নারাজ ডেপুটি স্পিকার

আইডিবিআই ব্যাঙ্কে আংশিক অংশীদারিত্ব ধরে রাখবে এলআইসি, জানালেন চেয়ারম্যান

মে দিবসে ছুটি: পথ দেখিয়েছিল কেরল, ২০ বছর পর যুক্ত হয় পশ্চিমবঙ্গের নাম

ক্ষোভের আগুনে জল! কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকের পর সুরবদল অর্জুন সিংহের

বগটুই হত্যাকাণ্ডে মৃত্যু আরও এক জনের, এই নিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১০

একটি উত্তরণ: এক অজানা প্রণম্য কাহিনি

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন