ওয়েবডেস্ক: দু’বছর আগে নোটবন্দির সময়ে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি জোর গলায় বলেছিলেন, এর ফলে বিপুল পরিমাণ কালো টাকা উদ্ধার করা যাবে। কিন্তু দু’বছর ঘুরতেই নিজের অবস্থান থেকে ১৮০ ডিগ্রি ঘুরে গেলেন তিনি।

জেটলি দাবি করেছেন যে কালো টাকা উদ্ধার নয়, নোট বাতিলের লক্ষ্য ছিল করফাঁকি রোখা। তা হলে আদতে কি নোট বাতিলের ব্যর্থতার কথাই ঘুরিয়ে স্বীকার করে নিলেন জেটলি, এই কথাই এখন ঘুরছে লোকমুখে।

দু’বছর আগে ৮ নভেম্বর রাতে আচমকা পাঁচশো এবং এক হাজার টাকার নোট বাতিলের ঘোষণা করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী। জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেওয়ার সময়ে মোদী বলেন, কালো টাকার কারবার রুখতেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে তাঁর সরকার। এই উদ্দেশ্য সফল না হলে দেশবাসী তাঁকে যা সাজা দেবেন, সেটা তিনি মেনে নেবেন বলেও দাবি করেন মোদী।

তবে বৃহস্পতিবার নোট বাতিল নিয়ে ফেসবুকে একটি পোস্ট করেন জেটলি। সেখানে তিনি অবশ্য দাবি করেন নোট বাতিল সম্পূর্ণ সফল। তিনি লেখেন, “প্রাতিষ্ঠানিক অর্থনীতির প্রসারের জন্য সরকার যে সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ করেছে তারই একটি নোট বাতিল।”

বিশেষজ্ঞদের মতে, এ দিন জেটলির বক্তব্যে স্পষ্ট, কালো টাকা উদ্ধারের জিগির তুলে নোট বাতিলের সিদ্ধান্ত ঘোষণা করা হলেও শেষ পর্যন্ত তাতে সফল হয়নি সরকার।

আরও পড়ুন বিজেপির রেড্ডি ব্রাদার্সের বাড়িতে হানা, দেওয়ালের চাঙড় সরাতেই লকারের হদিশ!

তুলোধোনা মনমোহনের

নোট বাতিলের সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতে ফের একবার কেন্দ্রের বিরুদ্ধে তোপ দাগলেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংহ। বৃহস্পতিবার একটি বিবৃতি প্রকাশ করেন মনমোহন। নোটবাতিলের ব্যাখ্যা করতে গিয়ে তিনি বলেন, “অর্থনৈতিক দুর্ঘটনা কী ভাবে একটি দেশেকে দীর্ঘ সময়ের জন্য অস্থির করতে তুলতে পারে, তারই একটা উদাহরণ এই নোটবন্দি।”

নোট বাতিলকে অসুস্থ-চিন্তার এবং দুর্ভাগ্যের সিদ্ধান্ত বলেও আখ্যা দেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী। তাঁর কথায়, “ভাবনাচিন্তা করে এবং যত্ন করে অর্থনৈতিক সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত।”

সেই সঙ্গের কেন্দ্রের প্রতি তাঁর আবেদন, দেশের অর্থনীতিকে অনিশ্চয়তার দিকে ঠেলে দিতে পারে, এমন কোনো সিদ্ধান্ত তারা যেন ভবিষ্যতে না নেয়।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন