নয়াদিল্লি: বিমুদ্রাকরণের পরে দেশের অর্থনীতি কিছুটা দুর্বল হয়েছে। কমেছে আর্থিক বৃদ্ধির হার। কিন্তু কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি এই ব্যাপারে খুব একটা চিন্তিত নন। বরং অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে ‘ঠিক সময়ে যথাযথ পদক্ষেপ’ করার কথাই বললেন তিনি।

ভারতে বেসরকারি লগ্নিতে ভাটার টান পড়েছে। তবে সে ব্যাপারেও খুব একটা উদ্বিগ্ন নন জেটলি। বৃহস্পতিবার লগ্নিকারীদের একটি সম্মেলনে যোগ দিয়ে অর্থমন্ত্রীর দাবি, বেসরকার লগ্নি কেন আসছে না, তার কারণ খুঁজে বের করেছে কেন্দ্র। অর্থনীতিকে চাঙ্গা করার জন্য বাকি মন্ত্রীদের সঙ্গেও বৈঠক করা হচ্ছে বলে জানান তিনি। পাশাপাশি জমি-জমাকেও জিএসটির আওতায় আনা হবে বলে ঘোষণা করেন তিনি।

জেটলি বলেন, “প্রথম দিন থেকেই এই সরকার খুব ভালো কাজ করছে। আমরা অর্থনৈতিক লক্ষণগুলির ওপরে নজর রাখছি। ঠিক সময়ে ঠিক পদক্ষেপ করা হবে।” বেসরকারি লগ্নি না আসার কথা স্বীকার করে অর্থমন্ত্রী বলেন, “খুব শীঘ্রই ভালো খবর আমরা শোনাতে পারব।”

দু’বছর চিনকে প্রায় ছুঁয়ে ফেলেছিল ভারতের জিডিপি। কিন্তু ২০১৬ থেকে ত্রৈমাসিক ভিত্তিতে ক্রমশ কমতে শুরু করেছে তা। এই বছর এপ্রিল-জুন ত্রৈমাসিক হিসেবে ভারতের জিডিপি নেমেছে ৫.৭ শতাংশে, গত তিন বছরে সর্বনিম্ন। শুধু জিডিপি নয়, গত পাঁচ বছরে সর্বনিম্ন হয়েছে শিল্পে বৃদ্ধির হার।

জেটলি এ দিন বলেন, সরকারি সংস্থাগুলির বেসরকারিকরণের ব্যাপারে কোনো ছুৎমার্গ নেই কেন্দ্রের। তবে এখনও বেসরকারিকরণের সময় আসেনি বলে জানান তিনি। এই আর্থিক বছরে বেসরকারিকরণের মাধ্যমে অন্তত ৭২,৫০০ কোটি আয় করার কথা কেন্দ্রের। গত বছর বেসরকারিকরণের মাধ্যমে সরকারের আয় হয়েছিল ৪৬,০০০ কোটি টাকা।

জিএসটি চালু করা যে এই সরকারের অন্যতম সাফল্য, সে কথাও বলেন অর্থমন্ত্রী। এই কর চালু করার পর মুদ্রাস্ফীতির হার কমানো গিয়েছে বলে জানান তিনি। পাশাপাশি কালো টাকার কারবারিরা যে ভারতে নিরাপদ নন, সে কথাও উল্লেখ করেন জেটলি।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন