নয়াদিল্লি: বিধানসভায় আস্থাভোটে জয়ী দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল। বিজেপির বিরুদ্ধে বিধায়ক ভাঙানোর ষড়যন্ত্রের অভিযোগ তুলে বিধানসভার শক্তিপরীক্ষায় যথারীতি উতরে গেলেন তিনি।

৭০ আসনের দিল্লি বিধানসভায় আস্থাভোটে আপের বিধায়ক সংখ্যা ৬২। এ দিনের আস্থাভোটে উপস্থিত ছিলেন দলের ৫৯ জন বিধায়ক। তিন অনুপস্থিত বিধায়কের মধ্যে দু’জন বিদেশে এবং এক জন (সত্যেন্দ্র জৈন) জেলে রয়েছেন। আপের সমর্থনে ভোট দিয়েছেন ৫৮ জন বিধায়ক। তাঁদের মধ্যে একজন স্বয়ং স্পিকার।

উপমুখ্যমন্ত্রী মণীশ সিসোদিয়ার উপর সিবিআই-এর পদক্ষেপ নিয়ে আজ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে কটাক্ষ করেন কেজরিওয়াল। তিনি বলেন, এর বিপরীতমুখি প্রতিক্রিয়া ভোগ করতে হবে বিজেপি-কে। তাঁর কথায়, “মণীশ সিসোদিয়ার বিরুদ্ধে কেন্দ্রীয় এজেন্সির অভিযানের পর থেকে গুজরাতে আপ-এর ভোটের হার ৪ শতাংশ বেড়েছে। তাঁকে গ্রেফতার করা হলে তা বেড়ে ৬ শতাংশে পৌঁছোবে”।

বিধানসভায় আচমকা আস্থাভোটের পরিকল্পনা প্রসঙ্গে কেজরিওয়াল বলেন, “অপারেশন লোটাস ব্যর্থ হবে তা প্রমাণ করার জন্য আমরা আজ এই আস্থাভোট করলাম। আমাদের কোনো বিধায়ক পক্ষ পরিবর্তন করেননি”। উল্লেখ্য, এ দিন বিজেপির পক্ষে ভোট দিয়েছেন আট জন বিধায়ক।

জাতীয় রাজধানীতে দিল্লি সরকারের পরিচালিত স্কুলগুলির ব্যাপক উন্নতির কথা তুলে ধরেন কেজরিওয়াল। তিনি বলেন, “আমার দুই সন্তানই আইআইটি (ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি)-তে পড়াশোনা করেছে। আমি ভারতের প্রতিটি শিশুর কাছে একই শিক্ষা পৌঁছে দিতে চাই”।

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন