মমতার ‘সংখ্যালঘু উগ্রপন্থা’র পাল্টা দিলেন আসাদুদ্দিন ওয়েইসি

asaduddin owaisi and Mamata Banerjee
প্রতীকী ছবি

ওয়েবডেস্ক: কোচবিহারের সভা থেকে গত সোমবার ‘সংখ্যালঘু উগ্রপন্থা’র অভিযোগে সরব হয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি নাম না করেই হায়দরাবাদের কথা উল্লেখ করায় তাঁর নিশানায় যে আসাদুদ্দিন ওয়েইসির এআইএমআইএম উঠে এসেছিল, তেমনটাই ধারণা রাজনীতির কারাবারিদের। পর দিনই মমতার উদ্দেশে পাল্টা প্রশ্ন ছুঁড়ে দিলেন আসাদুদ্দিন।

কোচবিহার রাজবাড়ি ইন্ডোর স্টেডিয়ামের একটি কর্মিসভায় মমতা বলেছিলেন, “রাজনীতির মধ্যে আমি দেখেছি হিন্দুদের মধ্যে উগ্রপন্থা রয়েছে, কিছু সংখ্যালঘুদের মধ্যেও উগ্রপন্থা বেরিয়ে গিয়েছে। বিজেপির কাছে এরা টাকা নেয়, সে কথা মাথায় রাখবেন। হায়দরাবাদে তাঁদের বাড়ি। এখানে বাড়ি নয়’’। 

মঙ্গলবার আসদুদ্দিন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে মুসলিমদের দুর্দশার বিষয়টি উপেক্ষা করার অভিযোগ করেন। তিনি টুইটারে লিখেছেন, “সংখ্যালঘুদের মানব বিকাশ সংক্রান্ত যে কোনো সূচকে বাংলার মুসলমানদের অবস্থা সব থেকে খারাপ, এ কথা বলার মধ্যে কোনো ধর্মীয় উগ্রপন্থা নেই”।

একই সঙ্গে সরাসরি দিদির উদ্দেশে প্রশ্ন ছুড়ে দিয়ে ওয়েইসি লিখেছেন, “দিদি যদি আমাদের ‘হায়দরাবাদ থেকে’ গোষ্ঠীর সম্পর্কে উদ্বিগ্ন হন তবে তাঁর বলা উচিত কী ভাবে লোকসভা ভোটে বিজেপি বাংলার ৪২টির মধ্যে ১৮টি আসন জিতেছে”?

উল্লেখ্য, পশ্চিমবঙ্গ লাগোয়া বিহারের একটি কেন্দ্রে জয়লাভ করে এআইএমআইএম। তার পরেই কোচবিহারের কিছু এলাকায় ওই দলের তরফে পোস্টার সাঁটা হয়। সেখানে লেখা হয় পরবর্তী মিশন পশ্চিমবঙ্গ। রাজনৈতিক মহলের মতে, সম্ভবত সে দিকে নজর রেখেই বিষয়টি নিয়ে সরব হয়ে থাকতে পারেন মুখ্যমন্ত্রী।

মমতা ওই সভা থেকেই সজাগ করে দিয়ে বলেন, ওই গোষ্ঠীর নেতারা এখানে এসেও মিটিং করছেন। তাঁদের কথা শুনে যেন ভুল না করেন বাংলার সংখ্যালঘু ভাই-বোনেরা।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.