Rajnath Singh in Rajya Sabha
প্রতীকী ছবি

নয়াদিল্লি: ন্যাশনাল সিটিজেন্স রেজিস্টার(এনসিআর)-এর চুড়ান্ত তালিকা প্রকাশের আগে পুনরায় আবেদনের সুযোগ পাবে প্রত্যেকেই। অসমের খসড়া নাগরিকপঞ্জি প্রকাশের পর উদ্ভুত ঘটনাবলির দিকে তাকিয়ে সংসদের উচ্চকক্ষে এমনটাই মন্তব্য করলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং। একই সঙ্গে তিনি বলেন, দেশের সর্বোচ্চ আদালতের নির্দেশ মেনেই নাগরিকদের নাম নথিভুক্তকরণের কাজ হয়েছে।

গত ৩০ জুলাই দ্বিতীয় দফার খসড়া নাগরিকপঞ্জি প্রকাশ করা হয়। ওই তালিকা প্রকাশের মাস সাতেক আগে গত ৩১ ডিসেম্বরও প্রথম তালিকাটি প্রকাশ করেছিল কেন্দ্র। রাজনাথের বক্তব্য, ১৯৫১ সালে অসমে নাগরিকপঞ্জির কাজ হয়েছিল। ওই তালিকায় যাদের নাম ছিল তাদের নামই প্রথম তালিকায় ছিল। এ ছাড়া ১৯৭১ সালের ২৪ মার্চের আগে যারা অসমে ছিল, তাদের নামও প্রথম তালিকায় ঠাঁই পায়। ওই তালিকায় নাম বাদ পড়া নাগরিকদের আবেদনের ভিত্তিতে দ্বিতীয় তালিকা প্রকাশ করা হয়। আবেদন করার জন্য ১২টি নথিকে বৈধ হিসাবে গণ্য করা হয়েছে। তবে আক্ষেপের কিছু নেই, যাদের নাম দ্বিতীয় তালিকাতেও স্থান পায়নি, চুড়ান্ত তালিকার জন্য তারা আবেদন করতে পারবে।

রাজনাথের দাবি, অসমে আড়াই হাজারের কাছাকাছি কেন্দ্র খুলে আবেদন জমা নেওয়ার কাজ হয়েছে। তালিকায় থাকা যে কোনো একটি বৈধ নথি নিয়ে আগামীতে নাম নথিভুক্তকরণের আবেদন জানাতে কোনো অসুবিধা হবে না।

আরও পড়ুন: মমতার ‘গৃহযুদ্ধ’ পুঁথিগত মান্যতা না পেলেও নাগরিকপঞ্জি নিয়ে বিজেপির উৎফুল্ল হওয়ার কারণ নেই

এ দিন রাজনাথ কারও নাম না করেই বলেন, “কোনো কোনো মহল থেকে নাগরিকপঞ্জি নিয়ে ভুল বার্তা রটানো হচ্ছে। এটা একটা খসড়া তালিকা। নাগরিকপঞ্জি নিয়ে কারও সঙ্গে বৈষম্য মূলক আচরণ করবে না সরকার। কারণ, সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ অনুসরণ করেই নাগিরকপঞ্জিতে মানুষের নাম নথিভুক্ত করা হয়েছে। সমস্ত ঘটনাক্রমের উপর নজর ছিল সর্বোচ্চ আদালতের। ফলে এই প্রক্রিয়ার মধ্যে কোনো কিছুই অস্পষ্ট নয়।। এই নিয়ে কারও সঙ্গে বৈষম্য হয়নি, হবেও না। কোনো অপ্রত্যাশিত অভিযোগ করা অনুচিত|।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন