ভবিষ্যৎ কি অনিশ্চিত? ছবি: পিটিআই

গুয়াহাটি: নাগরিকপঞ্জি থেকে নাম বাদ গেল অসমের প্রথম মহিলা মুখ্যমন্ত্রীর। এই ঘটনায় বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে।

১৯৮০-এর ডিসেম্বর থেকে ১৯৮১-এর জুন পর্যন্ত অসমের মুখ্যমন্ত্রিত্বের দায়িত্ব সামলেছেন তৎকালীন কংগ্রেস নেত্রী সায়েদা আনোওয়ারা তৈমুর। নাগরিকপঞ্জি থেকে তাঁর নাম বাদ পড়ায় রীতিমতো চিন্তিত সায়েদা। শারীরিক অসুস্থতার জন্য এই মুহূর্তে অস্ট্রেলিয়ায় নিজের ছেলের কাছে রয়েছেন সায়েদা। আগস্টের শেষে অসমে ফিরে নাগরিকপঞ্জির জন্য প্রয়োজনীয় নথিপত্র দিয়ে পুনরায় আবেদন জানাবেন তিনি।

আরও পড়ুন নাগরিকপঞ্জি নিয়ে ঢাকাকে অবহিত রেখেছিল দিল্লি, ‘ফেরত পাঠানো’র প্রসঙ্গই ওঠেনি

সায়েদার কথায়, “আমার সমস্ত নথিপত্র নাগরিকপঞ্জির আধিকারিকদের কাছে জমা দিতে বলেছিলেন এক আত্মীয়কে। কিন্তু সম্ভবত কোনো অসুবিধার জন্য সেই নথিপত্র তিনি জমা দিতে পারেননি।”

১৯৭২, ৭৮, ৮৩ এবং ১৯৯১-এ কংগ্রেসের টিকিটে বিধায়ক হয়েছিলেন সায়েদা। ২০১১-তে কংগ্রেস ছেড়ে এআইইউডিএফ-এ যোগদান করেন তিনি। এই প্রসঙ্গে দলের সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম বলেন, “আমাদের দলের নেত্রী এবং রাজ্যের এক প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর নাম নাগরিকপঞ্জিতে নেই। কিছু দিন আগে খবর পেয়েছিলাম প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি ফকরউদ্দিন আলি আহমেদের ভাইপোর নামও এই তালিকা থেকে বাদ পড়েছে, এটা খুব গুরুত্বপূর্ণ একটা ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে।”

আরও পড়ুন নাগরিকপঞ্জিতে বাদ ভারতের প্রাক্তন এক রাষ্ট্রপতির ভাইপোর পরিবার

কিছু দিনের মধ্যেই নাগরিকপঞ্জির সমন্নয়ক প্রতীক হাজেলার সঙ্গে দেখা করে এই বিষয়ে কথা বলবেন তাঁরা।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন