assam gas leak

খবরঅনলাইন ডেস্ক: ৯০ দিন পেরিয়ে গেলেও অসমের তিনসুকিয়া জেলার বাঘজানে (Baghjan) অবস্থিত সেই তেলকূপের আগুন এখনও জ্বলছে। এরই মধ্যে ওই তেলকূপে কর্মরত এক ইঞ্জিনিয়ারের মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে। বুধবার, তেলকূপে কাজ করার সময়েই বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন তিনি।

বুধবার দুপুর দু’টো নাগাদ ঘটনাটি ঘটে। যে জায়গা থেকে আগুন বেরোচ্ছে, সেখানেই হাই-ভোল্টেজ কেবিনে কাজ করেছিলেন ইঞ্জিনিয়ার অর্ণব কিশোর বরদলৈ। সংস্থার এক আধিকারিক বলেন, “তাঁকে সঙ্গে সঙ্গে ডিব্রুগড়ের অসম মেডিক্যাল কলেজে নিয়ে যাওয়া হয়। বিকেলেই তাঁর মৃত্যু হয়।”

এই নিয়ে বাঘজানের তেলকূপের আগুনে সরকারি ভাবে মৃতের সংখ্যা ৩ হয়েছে। তবে স্থানীয় সূত্রে খবর, এই ঘটনায় কয়েক জন গ্রামবাসীরও মৃত্যু হয় যদিও স্থানীয় প্রশাসন তা স্বীকার করেনি।

উল্লেখ্য, বাঘজানের এই তৈলকূপটিতে গত ২৭ মে থেকে গ্যাস লিক করতে শুরু করে। ১৪ দিন ধরে গ্যাস লিক করার পরেও সেটা বন্ধ করতে পারেনি কেউ। এর পর গত ৫ জুন সেখানে বিধ্বংসী আগুন লেগে যায়।

এই আগুন নেভানোর কাজে বিদেশ থেকে ইঞ্জিনিয়াররা আসেন। তবে গত ২২ জুলাই এই তেলকূপে ভয়াবহ বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এতে তিন জন বিদেশি বিশেষজ্ঞ আহত হন।

আগুন নেভানোর লড়াইয়ে মাঝেমধ্যে অল্প কিছুক্ষণের জন্য সাফল্য এলেও এখনও পুরোপুরি বন্ধ করা যায়নি এই আগুনকে। গত সোমবারও ৮ ঘণ্টার জন্য এই আগুন নেভানো সম্ভব হয়, যদিও ফের তা জ্বলতে শুরু করে।

গত সপ্তাহে অসমের শিল্পমন্ত্রী চন্দ্রমোহন পটোয়ারি জানান যে এই আগুন পুরো নেভাতে আরও ছয় থেকে আট সপ্তাহ সময় লাগবে।

এই ঘটনায় ব্যাপক প্রভাব পড়েছে পরিবেশেও। ১৪ দিন ধরে লাগাতার গ‍্যাস লিকের ফলে মাগুরি বিল (Maguri Bil) জলাভূমিতে ভেসে বেড়ানো গঙ্গাশুশুকের মোড়ক লেগেছে। ডিব্রু-সৈখোয়া জাতীয় উদ্যানে (Dibru-Saikhowa National Park) থাকা বিভিন্ন প্রজাতির পশুপাখিরও জীবন বিপন্ন।

বাঘজানের এই গ্যাস লিক সংক্রান্ত আরও খবর পড়তে ক্লিক করুন এখানে

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন