হাসান উল হক ইনু। ছবি: ফিনান্সিয়াল এক্সপ্রেস

ঢাকা: নাগরিকপঞ্জিতে ৪০ লক্ষ মানুষের নাম না থাকায় বিস্তর বিতর্কের সৃষ্টি হচ্ছে। যাঁদের নাম নেই, এখন থেকেই তাঁদের কপালে উঠে গিয়েছে বাংলাদেশ থেকে বেআইনি অনুপ্রবেশকারীর তকমা। এই প্রসঙ্গে এ বার জবাব দিল বাংলাদেশ। অনুপ্রবেশকারীদের সঙ্গে তাদের কোনো সম্পর্ক নেই বলে সাফ জানিয়ে দিলেন বাংলাদেশের এক মন্ত্রী।

সংবাদসংস্থা এএনআইয়ের সঙ্গে একটি টেলিফোন সাক্ষাৎকারে বাংলাদেশের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী হাসান উল হল ইনু বলেন, “সবাই জানে অসমে এটা নতুন কিছু নয়। গত একশো বছর ধরে এই জাতিদ্বন্দ চলছে। গত ৪৮ বছরে ভারতের কোনো সরকারই আমাদের সঙ্গে অনুপ্রবেশকারীদের ব্যাপারে কোনো তথ্য ভাগ করেনি। আমার মনে হয় এটা ভারত সরকার নিজেরাই মিটিয়ে নিতে পারবে। আমি জানি নরেন্দ্র মোদী সরকার এই সমস্যা নিজের থেকেই মিটিয়ে নেবে। আমাদের সঙ্গে এর কোনো সম্পর্ক নেই।”

আরও পড়ুন নাগরিকপঞ্জি থেকে বাদ পড়ল খোদ বিজেপি বিধায়কের নাম

অনুপ্রবেশকারীদের বাংলাদেশ ফিরিয়ে নেবে কি না, এ ব্যাপারে প্রশ্ন করা হলে ইনু বলেন, “এখনও পর্যন্ত এই ব্যাপারে কোনো তথ্য ভারত আমাদের দেয়নি। ভারত যতক্ষণ এই ব্যাপারে কিছু না বলবে, আমরাও বলব না।” তিনি আরও যোগ করেন, “অসমের সব বাংলাভাষী মানুষ বাংলাদেশজাত হতে পারে না।”

আরও পড়ুন নাগরিকপঞ্জিতে থেকে বাদ ভারতের প্রাক্তন এক রাষ্ট্রপতির ভাইপোর পরিবার

উল্লেখ্য, নাগরিকপঞ্জি নিয়ে শাসক এবং বিরোধীদের মধ্যে দ্বন্দ তুঙ্গে। বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ তাঁর বক্তব্যে বারবারই বাংলাদেশি অনুপ্রবেশকারীদের প্রসঙ্গ নিয়ে আসছেন। এই আবহে ইনুর বক্তব্য তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করা হচ্ছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন