বাংলাদেশ এবং নেপালের থেকেও পিছিয়ে পড়বে ভারতের বৃদ্ধি: বিশ্বব্যাঙ্ক

0
world Bank

ওয়েবডেস্ক: ভারতের থেকে দ্রুত বাড়বে প্রতিবেশ দেশ নেপাল এবং বাংলাদেশের অর্থনীতি। বিশ্বব্যাঙ্কের সদ্য প্রকাশিত একটি রিপোর্টে এমন তথ্যই তুলে ধরা হয়েছে।

বিশ্বব্যাঙ্কের ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০১৯ সালে বাংলাদেশ ও নেপাল ভারতের তুলনায় দ্রুত বৃদ্ধি পাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে দক্ষিণ এশিয়ার সামগ্রিক বৃদ্ধি বিশ্বব্যাপী নিম্নমুখী প্রবণতার সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে চলতি অর্থবছরে কমবে বলে আশা করা হচ্ছে। পাকিস্তানের বৃদ্ধি চলতি অর্থবছরে আরও অবনতি হয়ে মাত্র ২.৪ শতাংশ ঠেকতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চলতি বছর ভারতের অর্থনৈতিক বৃদ্ধি ৬ শতাংশে নেমে যেতে পারে। ধারাবাহিকভাবে ২০২১ সাল নাগাদ তা ভালো হয়ে ৬.৯ শতাংশে উঠতে পারে। এমনকী পরের বছর তা ৭.২ শতাংশে উন্নীত হতে পারে।

অন্য দিকে বাংলাদেশের বৃদ্ধি ২০১৮ সালের ৭.৯ শতাংশ থেকে বেড়ে চলতি অর্থবছর ৮. ১ শতাংশে পৌঁছাতে পারে বলে আশা করা হয়েছে। একই সঙ্গে ২০২০ ও ২০২১ সালে এই বৃদ্ধির পরিমাণ যথাক্রমে ৭.২ এবং ৭.৩ হতে পারে বলে আশাপ্রকাশ করা হয়েছে।

অন্য দিকে পর্যটন ব্যবসার উন্নতি এবং সরকারি উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডের জেরে নেপালের বৃদ্ধিও যথেষ্ট হতে চলেছে বলে আশা করছে বিশ্বব্যাঙ্ক। তাদের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০১৯ সালে নেপালের বার্ষিক বৃদ্ধি গড়ে ৬.৫ শতাংশ এবং পরের বছর এর পরিমাণও আরও বেড়ে যেতে পারে।

একই সঙ্গে জানানো হয়েছে, চলতি বছরের এপ্রিলে বিশ্বব্যাঙ্কের অনুমান অনুযায়ী সামগ্রিক ভাবে দক্ষিণ এশিয়ার বৃদ্ধির লক্ষ্য ধরা হয়েছিল ৭ শতাংশ। কিন্তু সাম্প্রতিক পর্যবেক্ষণে তা ১.১ শতাংশ নিম্নমুখী হয়ে ৫.৯ শতাংশে গিয়ে ঠেকতে পারে।

প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, দক্ষিণ এশিয়ার বর্তমান অর্থনৈতিক মন্দা এবং ২০১২ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত হ্রাসপ্রবণ বৃদ্ধি এবং বাণিজ্য মন্দার নেতিবাচক প্রভাব পড়তে চলেছে বৃদ্ধির হারে।

দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের বিশ্বব্যাঙ্কের প্রধান অর্থনীতিবিদ হ্যানস টিমমার বলেছেন, “দক্ষিণ এশিয়ায় বিকেন্দ্রীকরণ এখনও তার প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করতে পারেনি এবং এটি সঠিকভাবে পরিচালিত না হলে খণ্ডাকারে পরিণত হতে পারে”।

টিমমার বলেন, “দেশের নাগরিকদের বিকেন্দ্রীকরণের কাজ করার জন্য, আমরা দক্ষিণ এশিয়ার কেন্দ্রীয় সরকারগুলিকে ন্যায়সঙ্গত ভাবে তাদের সংস্থানগুলি বরাদ্দ করতে, স্থানীয় সম্প্রদায়কে সংহত বাজারে প্রতিযোগিতা অংশগ্রহণে উৎসাহ দিতে এবং ওই দেশগুলির মানুষকে সমান সুযোগ পাইয়ে দিতে সমস্ত রকমের সহযোগিতা করে চলেছি”।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন