ওয়েবডেস্ক: ইউনিক আইডেন্টিফিকেশন অথরিটি অব ইন্ডিয়া বা ইউআইডিএআই আগেই ঘোষণা করেছে, আধার কার্ডের উল্লেখিত ১২ সংখ্যার নম্বরটির নিরাপত্তাজনিত বিষয়ে তারা ভার্চুয়াল আইডি-র প্রবর্তন করতে চলেছে। এ বার তারা জানাল, ভার্চুয়াল আইডির প্রচলন হয়ে গেলে শৌখিন প্লাস্টিক অথবা পিভিসি দিয়ে তৈরি করানো আধার কার্ডের কোনো গুরুত্বই থাকবে না।

ইউআইডিএআই ভারতীয় নাগরিকদের পরিচয়পত্র হিসাবে যে আধার কার্ড দিয়ে থাকে তা তৈরি হয় অপেক্ষাকৃত মোটা কাগজের বোর্ডে ল্যামিনেশন করে। কিন্তু আগ্রহের বশে, আরও একটু বেশি টেকসই ও দৃষ্টিনন্দন করার উদ্দেশ্যে অনেকেই বে-সরকারি সংস্থার মাধ্যমে ওই প্লাস্টিক অথবা পিভিসি দিয়ে তৈরি করান নিজের আধার কার্ডটি। ইউআইডিএআই বলেছে, ওই আধার কার্ডের মধ্যে যে কিউআর কোডটি রয়েছে তা সঠিক ভাবে কার্যক্ষম নয়। ফলে ওই কার্ডের কোনো গুরুত্ব রয়েছে বলে তারা মনে করে না। তার পরিবর্তে ইন্টারনেটের মাধ্যমে ইউআইডিএআই-এর ওয়েবসাইট থেকে ডাউনলোড করা আধার কার্ডের অনেক বেশি গুরুত্ব রয়েছে।

Loading videos...

কর্তৃপক্ষ সাধারণ মানুষকে সতর্ক করে দেওয়ার জন্য জানিয়েছে, কয়েকটি ভেন্ডার এ ধরনের প্লাস্টিক বা পিভিসি আধার কার্ড তৈরির ব্যবসা ফেঁদে বসেছে। তারা এর ভুয়ো নামকরণ করেছে স্মার্ট আধার কার্ড। কিন্তু কর্তৃপক্ষের তরফে এ বিষয়ে কোনো নির্দেশ দেওয়া হয়নি। ফলে যে বা যাঁরা নিজের গ্যাঁটের কড়ি খরচ করে এই বিশেষ কার্ড তৈরি করাচ্ছেন তিনি বা তাঁরা আদতে টাকাটা জলেই ঢালছেন।

শহর এবং গ্রামে এই প্লাস্টিক অথবা পিভিসি আধার কার্ড তৈরি করতে খরচ পড়ছে ৫০ থেকে ৩০০ টাকা পর্যন্ত। ভবিষ্যৎ না জেনে যাঁরা এই কার্ড তৈরি করানোর কথা ভাবছেন, তাঁরা এখনই মত পরিবর্তন করুন, এমনটাই বলছে ইউআইডিএআই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.