tatkal booking in indian railways

ওয়েবডেস্ক:  হঠাৎ সিউড়ি যাওয়ার প্রয়োজন হয়েছে।  সিউড়ি ইন্টারসিটি ধরার কথা ভাবলেন। এসি চেয়ার কারের তৎকাল টিকিটের দাম মাত্র ৪৪২ টাকার মতো। সেটা কোনো ব্যাপার নয়। সমস্যা অন্য জায়গায়। রেলের সাইট খুলতে দেখা যাচ্ছে, সিট অ্যাভেলেবল নেই। ওয়েটিং লিস্ট এবং আরএসি। ফলে টিকিট কাটার উপায় থাকলেও কনফার্মেশন না মিললে তো মহা মুশকিল।

আপনার মুশকিল আসান করতে হাজির ট্রাভেল এজেন্ট। তারা বলছে, কোনো সমস্যাই নেই। তৎকালে হয়ে যাবে ব্যবস্থা। কিন্তু ভুক্তভোগীরা জানেন, তৎকালে টিকিট কাটা মানেই তো সারা রাত জেগে লাইনে দাঁড়ানো। মুশকিল আসানকারী ট্রাভেল এজেন্ট বলছেন, ও সবের চিন্তা নেই, কতগুলি টিকিট লাগবে বলুন। ঘরে বসেই পেয়ে যাবেন তৎকাল টিকিট। তবে ওই ৪৪২ টাকার টিকিটের জন্য আপনাকে খসাতে হবে আরও প্রায় পাঁচশো টাকা। মানে ট্রাভেল এজেন্টের পারিশ্রমিক।

কী ভাবে সম্ভব?

সেই বে-আইনি কৌশলেই এবার ঘা দিতে চলেছে সিবিআই। বে-আইনি সফটওয়্যারের মাধ্যমে ঘরে বসে ট্রাভেল এজেন্টরা যে ভাবে একই সঙ্গে একাধিক টিকিট তৎকালে বুকিং করছেন, তা হাতেনাতে ধরতে নেমেছে সিবিআই।

সিবিআইয়ের মুখপাত্র অভিষেক দয়াল জানিয়েছেন, এ সপ্তাহেই অজয় গর্গ নামে এক সফটওয়্যার প্রোগ্রামারকে গ্রেফতার করা হয়েছে। যে এই ধরনের প্রতারণার কাজে ব্যবহৃত সফটওয়্যার তৈরি করতে। এ ছাড়া অনিল গুপ্তা নামে আরও এক জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে একই অভিযোগে। যে বে-আইনি তৎকাল বুকিং সফটওয়্যারের জোগান দিত ট্রাভেল এজেন্টদের। এই বিশেষ সফটওয়্যার পাওয়া যায় অনলাইনেই।

সংবাদ সংস্থা পিটিআই জানিয়েছে, ওই বে-আইনি সফটওয়্যারের মাধ্যমে একই সঙ্গে একাধিক সংখ্যক টিকিটের বুকিং সেরে ফেলা কয়েক মিনিটের কাজ। এমনকী আইআরসিটিসি সকাল ১০টা থেকে তৎকাল বুকিং খোলার আগে থেকেই ওই সফটওয়্যারে তথ্য ভরে ফেলা যায়। যে কারণে পিএনআর জেনারেশনের কাজ দ্রুতগতিতে সম্পন্ন হয়। একাধিক লগিন আইডেন্টি থেকে বুকিং করার সুবিধা থাকায় একাধিক টিকিট বুকিং করতে কোনো সমস্যা দেখা দেয় না।

সিবিআই জানিয়েছে, দেশের প্রায় সব শহরেই বড় মাপের ট্রাভেল এজেন্টদের হাতে এ ধরনের সফটওয়্যার থাকার সম্ভাবনা রয়েছে। আপাতত তারা সেই সব ট্রাভেল এজেন্টদের হাতেনাতে ধরে উপযুক্ত ব্যবস্থা নিতে চায়।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here