bengaluru water shortage

ওয়েবডেস্ক: শেষের সে দিনের প্রহর গোনা শুরু করে দিয়েছে কেপটাউন। আধুনিক সভ্যতার প্রথম বড়ো শহর হিসেবে সামনের এপ্রিলেই পুরোপুরি জলশূন্য হয়ে যাওয়ার ফাঁড়া ঝুলছে শহরটার ওপরে। এপ্রিলে এমন একটা দিন আসবে যখন কল খুললে আর জল পড়বে না টেবিল মাউন্টেনের এই শহরটায়। এই পথে পিছিয়ে নেই বেঙ্গালুরুও।

বিবিসির একটি রিপোর্টে দেখা গিয়েছে, অচিরেই কেপটাউনের মতো জলশূন্য হয়ে যেতে পারে বেঙ্গালুরু। অতি সম্প্রতি রাষ্ট্রপুঞ্জের সহযোগিতায় একটি সমীক্ষা করেছিল বিবিসি। জল ফুরিয়ে যাওয়ার ফাঁড়া ঝুলছে এমন এগারোটি শহরকে নিয়ে একটি তালিকা বানিয়েছে তারা।

সেই তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে বেঙ্গালুরু। রিপোর্টে বলা হয়েছে, কর্নাটকের রাজধানীতে যে ভাবে জনসংখ্যার চাপ বাড়ছে সেই অনুযায়ী পরিকাঠামো খুবই দুর্বল। এই শহরে জলের সমস্যাও বেশ গুরুতর। বেঙ্গালুরু শহরে একাধিক হ্রদ রয়েছে, কিন্তু রিপোর্টে বলা হয়েছে, কোনো হ্রদের জলই ব্যবহারযোগ্য নয়। বেঙ্গালুরুতে জলের দূষণ এতটাই বেশি যে মাঝেমধ্যেই সেখানকার একটি হ্রদে আগুন ধরে যায়।

এই তালিকায় প্রথম শহর হিসেবে বিবিসি রেখেছে ব্রাজিলের সাও পাওলোকে। ২০১৫ সালে একবার কেপটাউনের দশা হয়েছিল সাও পাওলোর। একটা সময়ে এমনও বলা হয়েছিল যে কুড়ি দিনের মধ্যেই শহরের সমস্ত জল শেষ হয়ে যাবে। যদিও সেই পরিস্থিতি থেকে কিছুটা বেরিয়ে এসেছে শহরটা, তবুও জলশূন্য হওয়ার ফাঁড়া তাদের ওপরেও ঝুলছে।

বেঙ্গালুরুর পরে এই তালিকায় বিবিসি রেখেছে বেজিং, কায়রো, জাকার্তা, মস্কো, ইস্তানবুল, মেক্সিকো সিটি, লন্ডন, টোকিও এবং মিয়ামি। বিবিসির এই রিপোর্টে বলা হয়েছে ২০৩০-এর মধ্যে পরিচ্ছন্ন জলের চাহিদা, জোগানের থেকে চল্লিশ শতাংশ বেড়ে যাবে।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন