চণ্ডীগড়: কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল চণ্ডীগড়কে পুরোপুরি ভাবে পঞ্জাবের অন্তর্ভুক্ত করা হোক। এই বার্তা দিয়ে কেন্দ্রের সঙ্গে সংঘাতের রাস্তায় এলেন পঞ্জাবের নবনির্বাচিত মুখ্যমন্ত্রী ভগবন্ত মান। শুক্রবার পঞ্জাব বিধানসভায় এই মর্মে একটি প্রস্তাবও পেশ করেছে মানের নেতৃত্বাধীন আম আদমি পার্টি (আপ)-র সরকার।

উল্লেখ্য, ১৯৬৬ সালের নভেম্বরে অবিভক্ত পঞ্জাব প্রদেশের জাঠ প্রধান অঞ্চল নিয়ে হরিয়ানা রাজ্য গঠন করা হয়েছিল। তবে দুই রাজ্যের রাজধানীই ছিল কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল চণ্ডীগড়। শুক্রবার পঞ্জাব বিধানসভায় মান বলেন, ‘‘১৯৬৬ সালের পঞ্জাব পুনর্গঠন আইনে হরিয়ানা গঠন করা হয়েছিল। পঞ্জাবের কিছু অংশ হিমাচল প্রদেশকেও দেওয়া হয়েছিল। আনুপাতিক প্রতিনিধিত্বের মাধ্যমে ভাকরা বিয়াস ম্যানেজমেন্ট বোর্ড’-এর মতো কিছু যৌথ সম্পদের পরিচালনার ব্যবস্থা করা হয়েছিল সে সময়।’’

এর পরেই চণ্ডীগড়কে পঞ্জাবের অন্তর্ভুক্ত করার দাবি তুলে মান বলেন, ‘‘অতীতে দেখা গিয়েছে, কোনো রাজ্য বিভাজন করা হলে রাজধানী শহর মূল রাজ্যটিকেই দেওয়া হয়। তাই আমরাও এ বার সেই দাবি তুলছি।’’

প্রসঙ্গত, চণ্ডীগড় নিয়ে পঞ্জাব-কেন্দ্র সঙ্ঘাত গত কয়েক দিন ধরেই চলছে। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ চণ্ডীগড়ের সরকারি কর্মীদের কেন্দ্রীয় সরকারের কর্মচারীদের সমান সুযোগ-সুবিধা দেওয়ার ঘোষণার পরে। শাহের ঘোষণার পরেই মান অভিযোগ করেন, পঞ্জাবের আপ সরকারকে বিপাকে ফেলতেই ওই পদক্ষেপ করছে কেন্দ্র।

এই মুহূর্তে ১১৭ আসনের পঞ্জাব বিধানসভায় আপ বিধায়কের সঙ্গে ৯২। ফলে প্রস্তাবটি খুব অনায়াসের পাশে হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

আরও পড়তে পারেন:

আয়কর দাখিলের ফর্ম পূরণে নয়া বিজ্ঞপ্তি, জানুন বিস্তারিত

ফের দাম কমল সোনা-রুপোর, জানুন কার দর কত

গ্রুপ-ডি নিয়োগ মামলায় সিবিআই-কে ‘স্বাধীনতা’ সিঙ্গল বেঞ্চের, ডিভিশন বেঞ্চে স্বস্তি শান্তিপ্রসাদের

ঝালদার কংগ্রেস কাউন্সিলার তপন কান্দু খুনে গ্রেফতার মূল চক্রী

প্রেসিডেন্টের পদত্যাগের দাবিতে উত্তাল কলম্বো, বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে দফায় দফায় সংঘর্ষ পুলিশের

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন