bhai

ওয়েবডেস্ক: মাস দুয়েকের জল্পনার অবসান ঘটতে চলেছে। তৃণমূল কংগ্রেস ছাড়ার পর তাঁকে নিয়ে আলোচনার অন্ত ছিল না। মাঝে শোনা গিয়েছিল তিনি হয়তো তৃণমূল ছেড়ে বিজেপির সঙ্গে সমঝোতার রাস্তায় যেতে পারেন। আবার এমনও শোনা গিয়েছিল তিনি সিকিমে নিজস্ব কোনো আঞ্চলিক দল গঠন করতে পারেন। এ ক্ষেত্রে দ্বিতীয় ধারণাটিই সত্য হতে চলেছে প্রাক্তন তৃণমূল নেতা ভাইচুং ভুটিয়ার ক্ষেত্রে।

বছরখানেক ধরেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর কাজ নিয়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে আসছেন দেশের প্রাক্তন ফুটবল অধিনায়ক ভাইচুং ভুটিয়া। ফিফার অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপের আগেই তিনি মোদীর প্রশংসায় বলেছিলেন, “খেলাধূলায় বর্তমান প্রধানমন্ত্রী যে ভাবে উৎসাহ প্রদান করে চলেছেন, তা তাঁর প্রতি আমার শ্রদ্ধা বাড়িয়ে দিয়েছে।” কয়েক দিন আগে গুজরাতের একটি অনুষ্ঠানে মোদীর সঙ্গে দেখা হয় ভাইচুংয়ের। মোদী প্রকাশ্যে ভাইচুংয়ের ভূয়সী প্রশংসা করেন। শোনা যায়, এর পর তাঁরা দু’জনে একান্তে কথাও বলেছেন। সেই সব ঘটনার স্মৃতিচারণ করেই রাজনীতির কারবারিরা ধারণা করছিলেন ভাইচুং বিজেপিতে যোগ দিতে পারেন।

বুধবারই জানা গেল ভাইচুং বিজেপিতে যাবেন না। তিনি সিকিমে পবন চামলিংয়ের বিকল্প হয়ে ওঠার চিন্তাভাবনা করছেন। সে কারণে পৃথক দল গঠন করতে চলেছেন আগামী বৃহস্পতিবার।নয়াদিল্লিতে ওই দিন তিনি নতুন দলের নাম ঘোষণা করবেন।

তবে তৃণমূল কংগ্রেসের একাধিক নেতা, যাঁরা কয়েক বছর ধরে ভাইচুংয়ের সঙ্গে কাজ করেছেন, তাঁদের দাবি, আর যা-ই হোক ওঁর সঙ্গে রাজনীতি করা যাবে না। ২০১৬ বিধানসভা নির্বাচেন শিলিগুড়িতে সিপিএমের অশোক ভট্টাচার্যের বিরুদ্ধে প্রার্থী হয়ে ভাইচুংয়ের সঙ্গে কাজ করার অভিজ্ঞতা মোটেই ভালো ছিল না বলে তাঁরা অভিযোগ করছেন। সে বার হেরে গিয়ে ভাইচুং তৃণমূলের একাংশের নিষ্ক্রিয়তা এবং তাঁকে হারানোর জন্য অন্তর্ঘাতের পালটা অভিযোগ করেছিলেন। আবার তার আগের লোকসভা নির্বাচনে দার্জিলিং কেন্দ্রে পার্থী হয়েও পরাজিত হয়েছেন।

যদিও ভাইচুংয়ের ঘনিষ্ঠ মহল সূত্রে দাবি, সিকিমের আগামী নির্বাচন থেকেই ভাইচুংয়ের নতুন রাজনৈতিক দল প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে চলেছে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here