খবরঅনলাইন ডেস্ক: শুক্রবার সকাল পর্যন্ত কারও মৃত্যুর খবর ছিল না। কিন্তু শনিবার সকালেই জানা গেল এই বিহারে বন্যায় (Bihar Floods) এখনও পর্যন্ত ১৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। দুর্গত প্রায় ১০ লক্ষ মানুষ।

রাজ্যের বিপর্যয় মোকাবিলা দফতর জানিয়েছে, বন্যায় সব থেকে বেশি মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে পশ্চিম চম্পারন জেলায় (৭)। দুর্গত ১ লক্ষ ৪৩ হাজার মানুষ। এখনও পর্যন্ত এই জেলায় ৫ হাজার জনকে নিরাপদে উদ্ধার করে ত্রাণশিবিরে পাঠানো হয়েছে। এই জেলার বিভিন্ন জায়গায় দু’ কুল ভাসিয়ে বইছে গন্ডক।

তবে দুর্গতের সংখ্যা সব থেকে বেশি দ্বারভাঙা জেলায়। জেলায় দুর্গত ৩ লক্ষ ৪৬ হাজার মানুষ। তবে মৃত্যু হয়েছে এক জনের। এখনও পর্যন্ত গোটা রাজ্যে মোট ৯ লক্ষ ৪৬ হাজার মানুষ বন্যা কবলিত।

এ ছাড়াও পূর্ব চম্পারন, শেওহর, সুপৌল, কিষাণগঞ্জ, মুজফ্‌ফরপুর, গোপালগঞ্জ, খাগাড়িয়া, সীতামাঢ়ী জেলাও বন্যায় কবলিত।

এনডিআরএফ এবং এসডিআরএফের মোট ২২টি দল উদ্ধারকাজে নেমেছে। এখনও পর্যন্ত রাজ্যের ২২টি ত্রাণশিবিরে ১২ হাজার জনকে উদ্ধার করে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এ ছাড়াও বিভিন্ন জায়গায় ২৭১টি কমিউনিটি কিচেনে দুর্গত মানুষদের জন্য খাবার রান্না করা হচ্ছে।

গত কয়েক দিন ধরেই প্রবল বৃষ্টি হচ্ছিল বিহারে। তার সঙ্গে যোগ হয়েছিল নেপালের প্রবল বর্ষণও। এর জেরে বিহারের বন্যা পরিস্থিতি খারাপ হয়ে উঠেছে। তবে আগামী দিনের আবহাওয়ার পূর্বাভাস কিছুটা আশাব্যাঞ্জক হওয়ায় বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হতে পারে।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন