সরতাজ সিংহ

ভোপাল: ‘রাজনীতির চরিত্র বেজায় কঠিন, কিছুই বুঝতে পারবে না!’ গত কয়েক দিন ধরে রাজনীতিতে এমন অদ্ভুত অদ্ভুত ঘটনা ঘটে যাচ্ছে, তার ব্যাখ্যা কোনো ভাবেই দেওয়া সম্ভব নয়। কর্নাটকে উপনির্বাচনের মাত্র কয়েক দিন আগেই কংগ্রেসে যোগ দিয়েছিলেন রামনগর বিধানসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী। অনেকটা সে রকমই ঘটনা এ বার ঘটল মধ্যপ্রদেশে।

প্রবীণ এক বিজেপি নেতাকে টিকিট না দেওয়ায় প্রকাশ্যেই কেঁদে ভাসিয়েছিলেন তিনি। কয়েক ঘণ্টার মধ্যে তাঁকে প্রার্থী করে দিল কংগ্রেস।

১৯৯৮ সালে ১৩ দিনের বাজপেয়ী সরকারে স্বাস্থ্যমন্ত্রী ছিলেন সরতাজ সিংহ। এ ছাড়াও মধ্যপ্রদেশ বিধানসভায় গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রিত্বের দায়িত্ব সামলেছেন। কিন্তু এ বার আর তাঁকে প্রার্থী করেনি বিজেপি। যুক্তি, সরতাজের বয়স ৭৫-এর ওপরে। এই বয়সে কাউকে আর প্রার্থী করা হবে না। এই ঘটনায় প্রকাশ্যেই কাঁদতে শুরু করে দেন সরতাজ। বিজেপি ছেড়ে কংগ্রেসে যোগদান করার ঘোষণাও করেন তিনি। কংগ্রেসে যোগ দেওয়ার কিছুক্ষণের মধ্যেই তাঁকে প্রার্থী করে দিয়ে তাক লাগিয়ে দেয় রাজ্যের প্রধান বিরোধী দল।

মধ্যপ্রদেশের সিওনি-মালওয়া বিধানসভা কেন্দ্র থেকে বিজেপির প্রার্থী হতেন ৭৮ বছরের সরতাজ। কিন্তু এ বার তাঁকে টিকিট না দিয়ে বিধানসভার স্পিকার সীতাসরন শর্মাকে প্রার্থী করে দেয় দল। এটা কোনো ভাবেই মেনে নিতে পারেননি সরতাজ। রাগে দুঃখে কেঁদে ফেলে সরতাজ বলেন, “আমি ঘরে বসে দমবন্ধ হয়ে মরতে পারব না। আমি শহিদের মৃত্যু বরণ করব।”

আরও পড়ুন ফের আইনি প্যাঁচে জড়ালেন মুকুল রায়, থানায় অভিযোগ দায়ের জেলা শাসক ও পুলিশ সুপারের

এর পরেই কংগ্রেসে যোগ দেওয়ার কথা ঘোষণা করেন তিনি। এ দিকে সিওনি-মালওয়া থেকে তখনও কাউকে প্রার্থী করেনি কংগ্রেস। সরতাজ যোগ দেওয়ায় যেন হাতে চাঁদ পেয়ে যায় তারা। এক মুহূর্তও সময় নষ্ট না করে একই কেন্দ্র থেকে তাঁকে ‘হাত’ চিহ্নে দাঁড় করিয়ে দেয় ‘গ্র্যান্ড ওল্ড পার্টি।’

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here