cpim

ওয়েবডেস্ক: ফলাফল যে ১৮০ ডিগ্রি উল্টো হয়ে যাবে, তা কল্পনা করেননি কেরলের আরএসএস-বিজেপি নেতৃত্ব। সে রাজ্যের চেঙ্গান্নুর বিধাসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচন বামফ্রন্টকে ধরাশায়ী করতে ত্রিপুরা থেকে উড়িয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল বিজেপির নতুন মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লবকুমার দেবকে। তিনি প্রচারে গিয়ে নির্বাচনী বিধি শিকেয় তুলে আর্থিক অনুদানের কথাও ঘোষণা করে দেন। কিন্তু তাঁর সেই তাৎক্ষণিক-রাজনীতি যে চেঙ্গান্নুরের ভোটারদের মধ্যে নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে তা স্পষ্ট হয়ে গেল ফলাফলেই।

গত ২০১৬ কেরল বিধানসভা নির্বাচনে চেঙ্গান্নুরের সিপিএম প্রার্থী ভোট পেয়েছিলেন ৫২,৮৮০টি। এ বার তাঁর ভোট বেড়ে হয়েছে ৫৭,৪০৪টি। তবে সিপিএম প্রার্থীর ভোট বাড়ার নেপথ্যে যে একটি মাত্র কারণই উঠে আসছে, সে বিষয়ে নিশ্চিত। এ বার সিপিএম প্রার্থী সাজি চেরিয়ান যে বাড়তি ভোট পেয়েছেন, তার বৃহদাংশই এসেছে বিজেপি প্রার্থী পি এস শ্রীধরন পিল্লাইয়ের পকেট থেকে। গতবার ওই কেন্দ্রে তিনি বিজেপি প্রার্থী হিসাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে পেয়েছিলেন ৪২,৬৮২টি ভোট। আর এ বার পেয়েছেন ৩০,৩৫০টি ভোট।

আরও পড়ুন: সরকারি তহবিল: ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ তুলল সিপিএম

ফলে বিজেপি প্রার্থীর কমে যাওয়া প্রায় ১২ হাজার ভোট চলে গিয়েছে সিপিএমের কাছে। কারণ দ্বিতীয় স্থানে থাকা জাতীয় কংগ্রেসের ভোটও প্রায় আড়াই হাজারের মতো কমে গিয়েছে। স্বাভাবিক ভাবেই কেরলের সিপিএম রাজ্য সম্পাদক কে বালাকৃষ্ণাণ বলেছেন, কেন্দ্রের জনবিরোধী নীতি এবং আরএসএসে ধর্মীয় মেরুকরণের বিরুদ্ধে চেঙ্গান্নুরের মানুষ ঐক্যবদ্ধ ভাবে সিপিএম প্রার্থীকে ভোট দিয়েছেন।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here