মুম্বই: এই মুহূর্তে মহারাষ্ট্রে জল্পনার কোনো অন্ত নেই। রবিবার মহারাষ্ট্র নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে মহাগুরুত্বপূর্ণ শুনানি। তার ঠিক আগেই বিজেপি সাংসদের সঙ্গে বৈঠক হল এনসিপি প্রধান শরদ পাওয়ারের।

শুধু পাওয়ারই নন, বিজেপি সাংসদ সঞ্জয় কাকাডের সঙ্গে বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন বিধানসভায় এনসিপির নবনিযুক্ত দলনেতা জয়ন্ত পাটিলও।

উল্লেখ্য, শনিবার রাতেই অজিত পাওয়ারকে বিধানসভার দলনেতার পদ থেকে সরিয়ে দিয়েছে এনসিপি। তার পরেই ওই পদে বসেন জয়ন্ত পাটিল।

এই বৈঠক শেষে শরদ পাওয়ারের বাড়ি থেকে বেরোতেই ওই বিজেপি সাংসদকে ঘিরে ধরেন সাংবাদিকরা। শুধুমাত্র ‘ব্যক্তিগত কারণে’ শরদ পাওয়ারের সঙ্গে দেখা করতে তিনি এসেছেন বলেই ব্যাপারটাকে এড়িয়ে যান তিনি।

শনিবার সকালে কার্যত মহাঅভ্যুথানের মধ্যে দিয়ে মহারাষ্ট্রে ক্ষমতা দখল করে বিজেপি। মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন দেবেন্দ্র ফড়নবীস। উপমুখ্যমন্ত্রী হন এনসিপি নেতা অজিত পাওয়ার।

আরও পড়ুন প্রক্রিয়া শুরু, আগামী বছরের শুরুতেই সপ্তম পৌরনিগম পেতে চলেছে রাজ্য

কিন্তু ১০৫ বিধায়ক-বিশিষ্ট বিজেপিকে কারা সমর্থন করল, সে ব্যাপারে এখনও কিছুই স্পষ্ট নয়। এনসিপির যে ক’জন বিধায়ক শনিবার রাজভবনে গিয়েছিলেন, তাদের মধ্যে বেশির ভাগই আবার শরদ পাওয়ারের কাছে ফিরে এসেন বলে খবর।

ফলে মহারাষ্ট্রের নাটকের পরবর্তী অধ্যায়ের জন্য এখন সব নজর সুপ্রিম কোর্টের দিকে।

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন