shatrughan sinha

পটনা: আগামী লোকসভা নির্বাচনে বিহারের উপমুখ্যমন্ত্রী সুশীল মোদীকে পটনা সাহিব থেকে প্রার্থী করতে পারে বিজেপি। বিগত কয়েক বছর ধরে দলবিরোধী কথা ও কাজের ভিত্তিতে সাংসদ শত্রুঘ্ন সিনহাকে আর ওই কেন্দ্রে প্রার্থী করতে চান না বিজেপি নেতৃত্ব। বুধবার জি নিউজকে এমনটাই জানিয়েছে দলের একটি সূত্র।

২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বে কেন্দ্রে সরকার গড়ার পর থেকেই ক্রমশ বিদ্রোহী হয়ে ওঠেন শত্রুঘ্ন। এ ব্যাপারে বিজেপির একটি অংশের যুক্তি, মন্ত্রিত্ব না পাওয়ার কারণেই শত্রুঘ্ন সরাসরি দলীয় নেতৃত্বকে আক্রমণের পথে পা বাড়ান। কারণ প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী অটলবিহারী বাজপেয়ীর জামানাতেও তিনি কেন্দ্রীয় মন্ত্রকের দায়িত্ব পেয়েছিলেন। সম্ভবত সে কারণেই তাঁর আক্রমণের নিশানা থেকে বাদ পড়েননি খোদ মোদী। নিজের দলকে আক্রমণের পাশাপাশি বিরোধী শিবিরের সঙ্গে নিরন্তর সম্পর্ক রেখে চলা এবং সরকার-বিরোধী কর্মসূচিতে অংশগ্রহণের অভিযোগও উঠেছে শত্রুঘ্নর বিরুদ্ধে।

সাম্প্রতিক কালে বিহারের বিরোধী দল আরজেডি বা দিল্লিতে একাধিক বিজেপি-বিরোধী রাজনৈতিক দলের অনুষ্ঠানে প্রকাশ্যে দেখা গিয়েছে পটনা সাহিবের এই বিজেপি সাংসদকে। দলের মধ্যে থেকেও দলীয় সিদ্ধান্তের বিরোধিতার ক্ষেত্রে তিনি রীতি মতো দৃষ্টান্ত গড়ে ফেলেছেন। কয়েক দিন আগেই শোনা গিয়েছিল, আরজেডির টিকিটে পটনা সাহিব থেকেই প্রার্থী হওয়ার পরিকল্পনা নিয়েছেন হিন্দি ছবির এই এককালের জনপ্রিয় নায়ক। তিনি মন্তব্য করেছিলেন, ২০১৯-এ তিনি একই আসন থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন তবে অবস্থান হতে পারে ভিন্ন। ফলে আরজেডির সঙ্গে তাঁর আঁতাঁত স্পষ্ট হওয়ায় আর কালক্ষেপ করতে চাইছে না বিজেপি-ও।


আরও পড়ুন: রাজ্যপালের কাছে কংগ্রেস নেতৃত্ব, গোয়ায় সরকার টিকিয়ে রাখতে পারবে কি বিজেপি?

গত কয়েক মাসের মধ্যে বেশ কয়েকবার শত্রুঘ্ন সাক্ষাৎ করেছেন প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী যশবন্ত সিনহার সঙ্গে। যিনি আবার বিজেপির বর্তমান দুই স্তম্ভ মোদী-অমিত শাহের তীব্র সমালোচক। একই ভাবে তাঁকে দেখা গিয়েছে আরজেডি সুপ্রিমো লালুপ্রসাদ যাদব এবং পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল কংগ্রেসনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়েক সঙ্গেও। সব মিলিয়ে পটনা সাহিব থেকে তিনি যে পদ্ম প্রতীক পাচ্ছেন না, সে বিষয়ে তিনিও যথেষ্ট সচেতন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন