BJP stages silent protests

নয়াদিল্লি: বিজেপি সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহের রোড শোয়ে দফায় দফায় হামলার অভিযোগ তুলে দিল্লির যন্তরমন্তরে নি‌ঃস্তব্দ প্রতিবাদে শামিল হলেন বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব।

কেন্দ্রীয় মন্ত্রী নির্মলা সীতারমন, জিতেন্দ্র সিং, বিজয় গোয়েল এবং হর্ষ বর্ধনকে দেখা যায় মুখে কালো কাপড় বেঁধে অথবা ঠোঁটে আঙুল দিয়ে বসে ওই প্রতিবাদে অংশ নিতে। একই সঙ্গে কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব-সহ বিজেপির কর্মীদের হাতে ধরা ছিল প্ল্যাকার্ড। যেখানে লেখা ছিল: “বাংলাকে বাঁচান, গণতন্ত্র রক্ষা করুন”।

ওই প্রতিবাদ সভা থেকে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে গণতন্ত্র হরণের অভিযোগ তোলেন বিজেপি নেতৃত্ব। নির্মলা বলেন, “গতকাল (মঙ্গলবার) আমাদের জাতীয় সভাপতির সমাবেশ হিংস্রতার শিকার হয়েছিল, সিআরপিএফ যদি না থাকত, তা হলে তিনি হয়তো নিরাপদে ফিরতে পারতেন না”।

কেন্দ্রের বিদায়ী প্রতিরক্ষামন্ত্রী নির্মলা বলেন, “আমি মনে করি, পরাজয়ের আভাস পেয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় হতাশ হয়ে পড়েছেন। যে কারণে বিজেপিকে ঠেকাতে তিনি কর্মীদের সহিংস্রতার আশ্রয় নেওয়ার নির্দেশ দিচ্ছেন”। নির্মলা বিস্ময় প্রকাশ করে বলেন, বাইরের গেট বন্ধ থাকার পরেও কী ভাবে বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙা হল। আসলে আগে থেকেই পরিকল্পনা মাফিক ভিতরে ছিলেন তৃণমূলকর্মীরা। তাঁরাই এই কাজ করেছে।

অন্য দিকে আর এক বিদায়ী মন্ত্রী হর্ষ বর্ধন বলেন, “তারা (তৃণমূল) প্রশাসনকে ব্যবহার করে গুন্ডামিতে লিপ্ত হচ্ছে। কখনো তিনি (মমতা) হেলিকপ্টার নামার অনুমতি দেন না, কখনো আবার বিজেপির পোস্টার তারা ছিঁড়ে দিচ্ছে, একই সঙ্গে বিজেপি কর্মীদের খুনও করছে। এর জন্য কোনো প্রমাণের প্রয়োজন পড়ে না”।

অন্য দিকে বিজয় গোয়েল দাবি করেন, “নরেন্দ্র মোদীর জনপ্রিয়তা উত্তরোত্তর বাড়ছে দেখে ভয় পেয়েছেন মমতা”।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন