মুম্বই : বিলকিস বানো গণধর্ষণ ও গণহত্যা মামলায় ১১ ​​জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের রায় বহাল রাখল মুম্বই হাইকোর্ট। বৃহস্পতিবার বিচারপতি ভি কে থিলরামানি ও বিচারপতি মৃদুলা ভাটকরের বেঞ্চ এই মামলায় অভিযুক্ত জসবন্ত নাই, গোবিন্দ নাই-সহ তিন জনের মৃত্যুদণ্ডের দাবি খারিজ করল। কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থা (সিবিআই) এদের মৃত্যুদণ্ডের দাবি করেছিল। পাশাপাশি প্রমাণ নষ্ট করার দায়ে অভিযুক্ত গুজরাতের পাঁচ জন পুলিশ কর্মকর্তা ও দুই সরকারি হাসপাতালের চিকিৎসক-সহ সাতজনকে খালাস করার আর্জি খারিজ করল আদালত।

মুম্বই হাইকোর্টের এই রায়কে স্বাগত জানিয়ে বিলকিস বলেছেন, সত্য প্রতিষ্ঠিত হল। বিচারবিভাগের উপর তাঁর আস্থা প্রমাণিত হল। উল্লেখ্য, গোধরা-পরবর্তী দাঙ্গায় ২০০২ সালের ৩ মার্চ আমদাবাদের কাছে রনধিকাপুর গ্রামে জনতা বিলকিসদের বাড়ি আক্রমণ করে। বিলকিস পাঁচ মাসের গর্ভবতী হওয়া সত্ত্বেও তাঁকে গণধর্ষণ করা হয়। পরিবারের সাত জনকে খুন করা হয়। বাকি ছ’জন পালিয়ে বাঁচেন।

সিবিআই কর্তা হিতেন ভেনেগাঙ্কার জানান, এই মামলা বর্তমানে গণহত্যার মামলা। এমন ঘটনা দেখাই যায় না, যে এক সঙ্গে একই পরিবারের এত জনকে হত্যা করা হয়েছে। আবার যারা পালিয়ে প্রাণ বাঁচাতে চেষ্টা করেছেন তাঁদের ধরে গণধর্ষণ করা হয়েছে, তার পর হত্যা করা হয়েছে। শিশুদের পর্যন্ত রেয়াত করা হয়নি।

২০০৮ সালের ২১ জানুয়ারি বিশেষ আদালত বিলকিসের ওপর গণধর্ষণ আর তাঁর পরিবারের সাত সদস্যকে হত্যার দায়ে ১১ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছিল। সাজাপ্রাপ্তদের মধ্যে ছিল জাকাত নায়েক, গোবিন্দ নয়া, শৈলেন ভাট, রাধেশ্যাম শাহ, বিপিন চন্দ্র জোশি, কাসারবাই ভোহানিয়া, প্রদীপ মোরদিয়া, বাকাবাই ভোহানিয়া, রাজুভাই সোনি, মিতেশ ভাট, রমেশ চন্দন। এরাই বিশেষ আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে মুম্বই হাইকোর্টে আপিল করে। সেই মামলার রায়েই এ দিন একই সাজা বহাল রাখল উচ্চ আদালত।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here