Reliance Jio

ওয়েবডেস্ক: রাষ্ট্রায়ত্ত টেলিকম পরিষেবা সংস্থা বিএসএন-কে কেন ৪জি পরিষেবার জন্য স্পেকট্রাম বরাদ্দ করা হয়নি? সে প্রশ্নের নির্দিষ্ট উত্তরকে সামনে রেখেই অনির্দিষ্টকালীন ধর্মঘটের নামছে বিএসএনএলের কর্মী সংগঠন। সংস্থার আর্থিক দুরাবস্থার জন্য সরকারের পক্ষপাতিত্বমূলক আচরণকে দায়ী করেই আগামী ৩ ডিসেম্বর থেকে শুরু হচ্ছে ওই ধর্মঘট।

BSNL

বিএসএনএলের একাধিক কর্মী সংগঠন যৌথ বিবৃতি বুধবার জানিয়েছে, বর্তমানে প্রায় সমস্ত টেলি পরিষেবা প্রদানকারী সংস্থাগুলি আর্থিক সংকটের মুখে পড়েছে শুধু মাত্র রিলায়েন্স জিও-র ‘লুন্ঠনকারী’ মনোভাবের জন্যই। মুকেশ অম্বানির সংস্থা সমস্ত ওই সংস্থাগুলিকে অসম প্রতিযোগিতার দিকে ঠেলে দিয়েছে। যার মধ্যে রয়েছে রাষ্ট্রায়ত্ত বিএসএনএল-ও।

অল ইউনিয়নস অ্যান্ড অ্যাসোসিয়েশন অব বিএসএলএন (এইউএবি)-এর তরফে জানানো হয়েছে, “অগাধ পুঁজিকে সম্বল করে জিও যে ভাবে সস্তার কল রেট দিয়ে ছক কষেছে, তার বলি হতে হচ্ছে অন্যান্য সংস্থাগুলিকে। যার কবলে পড়ে ইতিমধ্যেই এয়ারসেল, টাটা টেলি সার্ভিস, অনিল অম্বানির রিলায়েন্স কমিউনিকেশনস এবং টেলিনরের মতো সংস্থাগুলি ব্যবসা গুটিয়ে নিতে বাধ্য হয়েছে”।

4g spectrum india

বিবৃতিতে বলা হয়ছে, “প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর পৃষ্ঠপোষকতায় রিলায়েন্স জিও অত্যন্ত কম দরে কল এবং ডেটা ব্যবহারের সুযোগ দিচ্ছে। যার ফলে সরকারি সুবিধা পায় না এমন সংস্থাগুলি বিপাকে পড়েছে। তারা অসম প্রতিযোগিতায় টিকে না থাকতে পেরে ব্যবসায় ঝাঁপ ফেলতে বাধ্য হচ্ছে। এ ভাবে একের পর এক সংস্থাকে নিকেষ করার পর জিও ফের নিজেদের কল এবং ডেটা চার্জ বাড়িয়ে দেবে। কারণ তখন আর ব্যবহারীকারীদের সামনে কোনো বিকল্প থাকবে না”।

আরও পড়ুন: হিন্দু ভাবাবেগে আঘাত দেওয়ার অভিযোগ, যোগী আদিত্যনাথকে আইনি নোটিশ

সংগঠনের দাবি, বিএসএলএন সরকারের কাছে ৪জি স্পেকট্রামের আবেদন জানিয়ে এলেও সরকার ‘কালা’র মতো আচরণ করেছে। এটা শুধু মাত্র জিও-র সঙ্গে প্রতিযোগিতা থেকে বিএসএলএন-কে সরিয়ে রাখার পূর্বপরিকল্পিত ছক অনুযায়ীই করা হয়েছে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here