Drone

ওয়েবডেস্ক: খেলার মাঠে ড্রোন উড়তে দেখার দিন শেষ। এ বার তো নিজের ব্যক্তিগত কাজেও ব্যবহার করা যাবে ড্রোন। সরকারি ভাবে বলা হয়েছে, বিনোদন মূলক, ব্যক্তিগত বা বাণিজ্যিক উদ্দেশে ড্রোন ব্যবহার করা যাবে। কিন্তু এর জন্য প্রয়োজন অনুমতির।

সরকারি সূত্রের খবর. আগামী ডিসেম্বর থেকেই মিলবে ব্যক্তিগত উদ্দেশে ড্রোন ব্যবহারের ছাড়পত্র। তবে এর জন্য মেনে চলতে হবে নির্দিষ্ট কয়েকটি নিয়ম। যেগুলির মধ্যে উল্লেখযোগ্য, ব্যবহারকারী সশরীরে উপস্থিত থেকেই ড্রোন চালনা করবেন। এখনও পর্যন্ত সরকারি ভাবে সম্পূর্ণ নির্দেশিকা তৈরি না হলেও জানা গিয়েছে, ড্রোন ব্যবহারের যাবতীয় বিষয় খুঁটিনাটি জানতে এবং শিখতে নিতে হবে বিশেষ প্রশিক্ষণ।

Drone

মোট পাঁচ ধরনের ড্রোন ব্যবহার করা যাবে। ১৫০-২৫০ গ্রামের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকবে এর ওজন। ওজনের দিক থেকে এগুলি হবে মাইক্রো, স্মল, মিডিয়াম, লার্জ এবং স্মলেস্ট। এর জন্য অনুমোদনের প্রয়োজন থাকলেও বিশেষ ক্ষেত্রে কোনো রকমের অনুমতি লাগবে না বলেই সূত্রটি জানাচ্ছে। যেমন ২০০ ফুটের চৌহদ্দির মধ্যে কাজ করবে এমন ২ কেজি ওজনবাহী কোনো ড্রোন ব্যবহারে অনুমতির প্রয়োজন নেই। কিন্তু জনবহুল এলাকায় ড্রোন ব্যবহার করতে হলে অনুমোদনের প্রয়োজন আবশ্যক।

বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গঠনমূলক কাজে ড্রোন ব্যবহার করতে পারবে। তবে সে ক্ষেত্রে ইউনিক আইডেন্টিফিকেশন নাম্বার বা ইউআইএন নিতে হবে। আবার কোনো বিমানবন্দরের কাছে এই ধরনের ড্রোন ব্যবহার পুরোপুরি নিষিদ্ধ। একই ভাবে সীমান্ত থেকে ৫০ কিমির মধ্যে ড্রোন ব্যবহার করা যাবে না। সমুদ্র উপকূল থেকে ৫০০ মিটারের মধ্যেও একই ভাবে ড্রোন ব্যবহার নিষিদ্ধ। একই ভাবে রাজধানী শহরগুলির নির্দিষ্ট কয়েকটি জায়গায় ড্রোন ব্যবহার করা যাবে।

এখানেই শেষ নয়। আগামী ডিসেম্বরের আগেই সম্ভবত সম্পূর্ণ নির্দেশিকা জারি হবে। তখন না হয় কেনার আগে ভালো করে চোখ বুলিয়ে নেবেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন