কোভিডে মৃত্যু হলে পরিবারকে ৪ লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়া যাবে না, সুপ্রিম কোর্টকে জানাল কেন্দ্র

0
covid death
কোভিডে এখনও পর্যন্ত ৩.৮৫ লক্ষের বেশি মৃত্যু হয়েছে। প্রতীকী ছবি

খবর অনলাইন ডেস্ক: কোভিডের কারণে ক্ষতিগ্রস্তদের চার লক্ষ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দিতে পারবে না বলে সুপ্রিম কোর্টেকে জানিয়ে দিল কেন্দ্রীয় সরকার। কারণ হিসেবে বলা হয়েছে, এ ভাবে ক্ষতিপূরণ দেওয়া হলে বিপর্যয় মোকাবিলা তহবিলে টান পড়বে।

কোভিডে মৃত্য়ুর ক্ষেত্রে ত্রাণের ন্যূনতম পরিমাণ এবং পরিবারকে আর্থিক সহযোগিতার বিষয়ে সুপ্রিম কোর্টে দায়ের হওয়া জনস্বার্থ মামলার প্রেক্ষিতে হলফনামা দাখিল করেছে কেন্দ্র। ওই জনস্বার্থ আবেদনে বলা হয়েছিল, কোভিডরোগীর মৃত্যুর পর মৃত্যুশংসাপত্রের সঙ্গেই মাথা পিছু চার লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণের ব্যবস্থা করতে হবে। তবে কেন্দ্রের হলফনামায় বলা হয়েছে, বিপর্যয় ব্যবস্থাপনা আইন অনুযায়ী, শুধুমাত্র ভূমিকম্প, বন্যা ইত্যাদি প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্তদের আর্থিক সহযোগিতার কথা বলা হয়েছে।

Loading videos...

শনিবার রাতে দাখিল করা ১৮৩ পাতার হলফনামায় কেন্দ্র বলেছে, কোভিডের ক্ষেত্রে যদি ক্ষতিপূরণের ঘোষণা করা হয়, তা হলে ভবিষ্যতে অন্য রোগের ক্ষেত্রেও এ ধরনের দাবি নস্যাৎ করা যথাযথ হবে না।

এখনও পর্যন্ত ৩.৮৫ লক্ষের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে কোভিডের কারণে। যা আরও বাড়তে পারেই ধরে নেওয়া যায়। রাজ্যগুলিও আর্থিক সংকটে ভুগছে। ফলে তাদের পক্ষেও এই বিশাল সংখ্যক ক্ষতিগ্রস্তকে আর্থিক সহযোগিতা করা সম্ভব নয়।

কেন্দ্র আরও বলেছে, এখনও পর্যন্ত কোভিডের কারণে মৃত প্রত্যেকের পরিবারকে যদি মাথা পিছু চার লক্ষ টাকার আর্থিক ক্ষতিপূরণ দেওয়া হয়, তা হলে সম্ভবত এসডিআরএফ-এর পুরো তহবিলটাই শূন্য হয়ে যাবে। মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে, ফলে পরিস্থিতি কী হতে পারে, তা সহজেই বোঝা যাচ্ছে।

এসডিআরএফ-এর পুরো তহবিলটাই যদি কোভিডে ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য ব্যয় করা হয়, তা হলে বিভিন্ন প্রয়োজনীয় চিকিৎসা বা অন্য়ান্য প্রাকৃতিক দুর্যোগের জন্য তহবিলে টান পড়বে। রাজ্যগুলির কাছে পর্যাপ্ত তহবিল নেই। ঘূর্ণিঝড়, বন্যা ইত্যাদির ফলে কোভিডে মৃতের পরিবারকে আর্থিক সাহায্য দেওয়ার ব্যাপারটা তাদেরও সামর্থ্যের বাইরে চলে যেতে পারে বলে জানিয়েছে কেন্দ্র

আরও পড়তে পারেন: ৮১ দিন পর ভারতে দৈনিক কোভিড আক্রান্তের সংখ্যা ৬০ হাজারের নীচে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.