Connect with us

দেশ

নারদকাণ্ডে তৃণমূল সাংসদকে তলব সিবিআইয়ের

cbi congress narendra modi

ওয়েবডেস্ক: আগামী বুধবার দিল্লিতে সিবিআইয়ের সদর দফতরে তলব করা হল তৃণমূলের রাজ্যসভার সাংসদ কে ডি সিংকে। বহুচর্চিত নারদকাণ্ডে তাঁর ভূমিকা খতিয়ে দেখতেই তাঁকে ফের জেরা করতে চলেছে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। এর আগেও তাঁকে তলব করেছিল সিবিআই। সূত্রের খবর, আগের দেওয়া বয়ানের সততা যাচাইয়ে তাঁকে এ বার নারদকাণ্ডের মূল হোতা ম্যাথু স্যামুয়েলের মুখোমুখি বসিয়ে জেরা করা হতে পারে।

নারদ স্ট্রিং অপারেশনের মূল হোতা ম্যাথু স্যামুয়েল দাবি করেছিলেন, অপারেশন চালানোর জন্য প্রয়োজনীয় টাকা তাঁকে সরবরাহ করেছিল তৃণমূল সাংসদের সংস্থা। কিন্তু পরে কে ডি-র সংস্থা ম্যাথুর দাবি নস্যাৎ করে জানিয়ে দেয়, তাঁরা এই ধরনের কোনো উদ্যোগে অর্থ বিনিয়োগ করেনি।

এর আগেও ম্যাথু এবং কে ডি-কে জেরা করেছে সিবিআই। দু’জনের কাছ থেকে পৃথক ভাবে সংগৃহীত তথ্য কতটা সত্যি, তা যাচাই করার স্বার্থে সিবিআই চাইছে দু’জনকে মুখোমুখি বসিয়ে জেরা করতে।

তবে ঠিক কোন বিষয়ের উপর দু’জনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে, সে বিষয়ে স্পষ্ট করে কোনো তথ্য জানায়নি সিবিআই। দু’জনকে যে আগামী ২৮ আগস্ট সিবিআইয়ের সদর দফতরে তলবের নোটিশ পাঠানো হয়েছে, সে কথা স্বীকার করা হয়েছে।

[ আরও পড়ুন: ২০১৯-এ রাজনৈতিক দলগুলিকে সব থেকে বেশি অনুদান দেওয়া ১০টি সংস্থা ]

লোকসভা ভোট মিটতেই বেশ কিছু পুরনো মামলার তদন্তে সক্রিয়তা দেখাচ্ছে সিবিআই। তারই মধ্যে অন্যতম নারদকাণ্ড। বিভিন্ন রাজ্যে সিবিআইয়ের তদন্তাধীন এ ধরনের মামলাগুলির দ্রুত নিষ্পত্তিতে অধিক মনোনিবেশ করেছে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। যদিও ওয়াকিবহাল মহলের মতে, গত ২০১৬ সালের রাজ্য বিধানসভা নির্বাচনের সময় ঘটা নারদকাণ্ড নিয়ে এ ভাবেই একাধিক বার সক্রিয়তা দেখা গিয়েছে সিবিআইয়ের।

দেশ

কর্নাটক, মধ্যপ্রদেশের পর কংগ্রেসের হাতছাড়া হতে পারে আরও এক রাজ্য?

কর্নাটক এবং মধ্যপ্রদেশেরও হাই-প্রোফাইল কংগ্রেস নেতৃত্বের দলত্যাগের সঙ্গেই কংগ্রেস সরকারের পতন হয়।

sachin pilot and ashok gehlot

নয়াদিল্লি: শেষ দু’দিন ধরে মুখ্যমন্ত্রী অশোক গহলৌত (Ashok Gehlot) এবং উপ-মুখ্যমন্ত্রী সচিন পায়লটের (Sachin pilot) নিরবচ্ছিন্ন সংঘাতের আবহ রাজস্থানের কংগ্রেস সরকারের স্থায়িত্ব নিয়ে প্রশ্ন তুলে দিয়েছে।

সূত্রের খবর, উপ-মুখ্যমন্ত্রী তথা রাজ্যের কংগ্রেস প্রধান সচিন পায়লট নিজের অনুগামী বিধায়কদের সমর্থন নিয়ে বিজেপির সঙ্গে কথা চালিয়ে যাচ্ছেন। তেমনটা হলে কর্নাটক এবং মধ্যপ্রদেশের মতোই রাজস্থানও কংগ্রেসের হাতছাড়া হয়ে যেতে পারে। ওই দুই রাজ্যেও হাই-প্রোফাইল কংগ্রেস নেতৃত্বের দলত্যাগের সঙ্গেই কংগ্রেস সরকারের পতন হয়।

এক নজরে ঘটনাপ্রবাহ

১. করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যেই গত মার্চ মাসের শেষ দিক থেকে সচিন-বিজেপি কথোপকথন শুরু হয় বলে সূত্রের খবর।

২. সচিনের ঘনিষ্ঠমহলের দাবি, রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রীপদের অন্যতম দাবিদার ছিলেন তরুণ কংগ্রেস নেতা। কিন্তু ২০১৮ সালে দল রাজ্যের ক্ষমতা দখল করলেও তাঁকে অশোক গহলৌতের কাছে ‘আত্মসমর্পণ’ করতে হয়।

৩. বিজেপির যুক্তি, সচিনকে যদি শীর্ষপদ পেতে হয়, তা হলে কংগ্রেসকে গদি থেকে টেনে নামাতে হবে।

৪. তবে বিজেপির অভ্যন্তরীণ ইস্য়ুর জন্য তাঁকে শীর্ষপদ ছাড়তে রাজি নয় একাংশ। কারণ, প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বসুন্ধরা রাজের (Vasundhara Raje) সঙ্গে ৪৫ জন বিধায়ক রয়েছেন।

৫. সূত্রের খবর, সচিন হাইকমান্ডের সঙ্গে আলোচনায় আগ্রহী। সমঝোতা না হলে তিনি আঞ্চলিক দল গঠন করতে পারেন। তবে বিজেপিতে যোগ দেবেন না।

এখন পরিস্থিতি এমনই, সচিন যদি কংগ্রেস ছেড়ে দেন, তা হলে রাজস্থানের কংগ্রেস সরকারের স্থায়িত্ব ভঙ্গুর হয়ে পড়তে পারে। সচিনের ঘনিষ্ঠ সূত্রে খবর, তাঁর সঙ্গে রয়েছেন কংগ্রেসের ১৬ এবং তিন নির্দল মিলিয়ে ১৯ জন বিধায়ক। ফলে তিনি যদি আঞ্চলিক দল গঠন করে কংগ্রেসের উপর থেকে সমর্থন তুলে নেন অথবা সদলবলে বিজেপিতে যোগ দেন, তা হলে সরকার উল্টে যাওয়াটাও অস্বাভাবিক নয় বলেই মত রাজনীতির কারবারিদের।

আরও পড়তে পারেন: সংকটে রাজস্থানের কংগ্রেস সরকার! জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়ার পথে সচিন পায়লট?

Continue Reading

দেশ

সংকটে রাজস্থানের কংগ্রেস সরকার! জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়ার পথে সচিন পায়লট?

কংগ্রেস সূত্রে খবর, সচিন হাইকমান্ডকে ইঙ্গিত দিয়েছেন, তিনি কংগ্রেস ছেড়ে নিজের আঞ্চলিক দল গঠন করতে পারেন। তবে কোনো মতেই বিজেপিতে যোগ দেবেন না।

নয়াদিল্লি: গভীর সংকটে রাজস্থানের কংগ্রেস সরকার। প্রাক্তন কংগ্রেস নেতা জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়ার (Jyotiraditya Scindia) দলত্যাগের পরেই সরকার পড়ে যায় মধ্যপ্রদেশে। কতকটা একই ধরনের পরিস্থিতির সম্মুখীন রাজস্থান কংগ্রেসও।

সূত্রের খবর, রাজস্থানের উপ-মুখ্যমন্ত্রী সচিন পায়লট (Sachin Pilot) বিজেপির সঙ্গে কথা চালাচালি করছেন। এমনিতে মুখ্যমন্ত্রী অশোক গহলৌতের (Ashok Gehlot) সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক মোটেই ‘মধুর’ নয়। সূত্রটি জানাচ্ছে, এমন পরিস্থিতি দলের ১৬ এবং আরও তিন জন নির্দল-সহ মোট ১৯ বিধায়কের সমর্থন নিয়ে সচিন জ্যোতিরাদিত্যর পথেই হাঁটতে পারেন।

একই সঙ্গে সূত্রটি জানিয়েছে,আপাতত দলের অভ্যন্তরীণ ইস্যুতে সচিনকে রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রীপদ দিতে রাজি নয় বিজেপি। কংগ্রেসকে সরকারকে নামিয়ে নিয়ে আসা প্রথম লক্ষ্য হলেও প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বসুন্ধরা রাজের (Vasundhara Raje) সঙ্গে এখনও ৪৫ জন বিধায়কের সমর্থন রয়েছে।

অন্য দিকে কংগ্রেস সূত্রে খবর, সচিন হাইকমান্ডকে ইঙ্গিত দিয়েছেন, তিনি কংগ্রেস ছেড়ে নিজের আঞ্চলিক দল গঠন করতে পারেন। তবে কোনো মতেই বিজেপিতে যোগ দেবেন না।

কংগ্রেসের একটি অংশের দাবি, সচিনের বিরুদ্ধে রাজ্য সরকারের স্থায়িত্ব নিয়ে অস্থিরতা তৈরির লক্ষ্য নিয়ে তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে কংগ্রেস হাইকমান্ডের তরফেও এই পদক্ষেপের সমালোচনা করা হয়েছে। রাজ্যসভা ভোটের আগে রাজস্থানের চিফ হুইপ মহেশ যোশীর দায়ের করা অভিযোগের ভিত্তিতে শুক্রবারই স্পেশাল অপারেশন গ্রুক সচিনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করে। গহলৌতকেও একটি নোটিশ পাঠানো হয়।

গত শনিবার গহলৌত অভিযোগ করেন, “রাজস্থানের সরকার ফেলে দেওয়ার জন্য কংগ্রেসের বিধায়কদের ১৫ কোটি টাকার টোপ দিচ্ছে বিজেপি”। তাঁর অভিযোগের পরেই রাজস্থানের তিনজন নির্দল বিধায়কের বিরুদ্ধে সরকার ফেলার চেষ্টার অভিযোগ এনে তদন্ত শুরু করে রাজস্থান সরকারের দুর্নীতিদমন শাখা। গহলৌতের এই পদক্ষেপে খোদ দলনেত্রী সনিয়া গান্ধীও (Sonia Gandhi) সন্তুষ্টু নয় বলে তাঁর ঘনিষ্ট মহল সূত্রে খবর।

সর্বশেষ খবর অনুযায়ী, মুখ্যমন্ত্রীর ডাকা বৈঠকে যোগ না দিয়ে অনুগামী বিধায়কদের নিয়ে দিল্লি পৌঁছেছেন সচিন। তিনি দলনেত্রীর সঙ্গে কথা বলতে চান। সমাধান সূত্র অধরা রয়ে গেলে তিনি কংগ্রেস ছাড়তে আর কালক্ষেপ করবেন না বলেও জানা গিয়েছে।

প্রসঙ্গত, ২০১৮ সালের রাজস্থান বিধানসভা ভোট জয়লাভের পর মুখ্যমন্ত্রীপদের অন্যতম দাবিদার ছিলেন সচিন। এ নিয়ে বিস্তর জলঘোলা হয়। শেষমেশ গহলৌতকে মুখ্যমন্ত্রী করে সচিনকে উপ-মুখ্যমন্ত্রীপদে বসিয়ে সাময়িক ভাবে বিতর্কে ইতি টানা হয়। তবে তার পর থেকেই মুখ্যমন্ত্রী বনাম উপ-মুখ্যমন্ত্রী শিবিরের দ্বন্দ্ব পুরোমাত্রায় বজায় রয়েছে।

Continue Reading

দেশ

জয়া বচ্চন, ঐশ্বর্য রাই বচ্চন করোনা নেগেটিভ

দু’ জনকেই ১৪ দিনের জন্য কোয়ারান্টাইনে রাখা হয়েছে।

খবরঅনলাইন ডেস্ক: জয়া বচ্চন (Jaya Bachchan) ও তাঁর পুত্রবধূ ঐশ্বর্য রাই বচ্চনের (Aishwarya Rai Bachchan) করোনা (coronavirus) পরীক্ষার ফল নেগেটিভ এসেছে। রবিবার এই খবর দিয়েছেন মুম্বইয়ের মেয়র কিশোরী পেড়নেকর।  

আরও পড়ুন: অমিতাভ বচ্চনের ‘জলসা’কে কনটেনমেন্ট জোন ঘোষণা করল স্থানীয় পুরপ্রশাসন

এর আগে অমিতাভ বচ্চন ও পুত্র অভিষেক টুইট করে জানান, তাঁরা করোনা পজিটিভ হয়েছেন এবং নানাবতী হাসপাতালে ভরতি আছেন। এর পর পরিবারের অন্যদের ও কর্মীদের করোনা পরীক্ষা হয়। সেই করোনা পরীক্ষার ফল নেগেটিভ এল জয়া আর ঐশ্বর্যের ক্ষেত্রে।

মুম্বইয়ের মেয়র কিশোরী পেড়নেকর বলেন, “র‍্যাপিড আন্টিজেন কিট ব্যবহার করে গত রাতেই জয়া বচ্চন ও ঐশ্বর্য রাই বচ্চনের করোনা পরীক্ষা হয়। দু’ জনেরই ফল নেগেটিভ আসে। তবে দু’ জনকেই ১৪ দিনের জন্য কোয়ারান্টাইনে রাখা হয়েছে। কোয়ারান্টাইনের সময়সীমা পেরিয়ে গেলেই আবার তাঁদের করোনা পরীক্ষা করা হবে।”

পেড়নেকর জানান, “আজ সকালে অমিতাভ বচ্চনের বাড়ি ‘জলসা’ স্যানিটাইজ করেছে বৃহন্মুম্বই মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশন (বিএমসি BMC)। আজ থেকেই এই বাড়ি কনটেনমেন্ট জোন করা হয়েছে। কাউকেই ওই বাড়িতে ঢুকতে দেওয়া হবে না বা কাউকেই ওই বাড়ি থেকে বেরোতে দেওয়া হবে না। বাড়িকে ঘিরে ব্যারিকেড করে দিয়েছে মুম্বই পুলিশ। শুধু নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী ঢুকতে দেওয়া হবে।”

নানাবতী সুপার স্পেশ্যালিটি হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে, অমিতাভের হালকা উপসর্গ আছে। তাঁকে আইসোলেশন ইউনিটে রাখা হয়েছে।

Continue Reading
Advertisement

কেনাকাটা

কেনাকাটা3 days ago

ঘরের একঘেয়েমি আর ভালো লাগছে না? ঘরে বসেই ঘরের দেওয়ালকে বানান অন্য রকম

খবরঅনলাইন ডেস্ক : একে লকডাউন তার ওপর ঘরে থাকার একঘেয়েমি। মনটাকে বিষাদে ভরিয়ে দিচ্ছে। ঘরের রদবদল করুন। জিনিসপত্র এ-দিক থেকে...

কেনাকাটা5 days ago

বাচ্চার জন্য মাস্ক খুঁজছেন? এগুলোর মধ্যে একটা আপনার পছন্দ হবেই

খবরঅনলাইন ডেস্ক : নিউ নর্মালে মাস্ক পরাটাই দস্তুর। তা সে ছোটো হোক বা বড়ো। বিরক্ত লাগলেও বড়োরা নিজেরাই নিজেদেরকে বোঝায়।...

কেনাকাটা6 days ago

রান্নাঘরের টুকিটাকি প্রয়োজনে এই ১০টি সামগ্রী খুবই কাজের

খবরঅনলাইন ডেস্ক : লকডাউনের মধ্যে আনলক হলেও খুব দরকার ছাড়া বাইরে না বেরোনোই ভালো। আর বাইরে বেরোলেও নিউ নর্মালের সব...

কেনাকাটা7 days ago

হ্যান্ড স্যানিটাইজারে ৩১ শতাংশ পর্যন্ত ছাড় দিচ্ছে অ্যামাজন

অনলাইনে খুচরো বিক্রেতা অ্যামাজন ক্রেতার চাহিদার কথা মাথায় রেখে ঢেলে সাজিয়েছে হ্যান্ড স্যানিটাইজারের সম্ভার।

নজরে