Connect with us

দেশ

নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত সিলেবাস কমাল সিবিএসই

তিরিশ শতাংশ সিলেবাস কমানো হয়েছে বলে মঙ্গলবার জানিয়েছে সিবিএসই।

খবরঅনলাইন ডেস্ক: করোনাভাইরাসের কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ। অনলাইনে ক্লাস চললেও, দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে বসবাসকারী পড়ুয়ারা সেই সুযোগ নিতে পারছে না অনেক ক্ষেত্রেই। ফলে একটা অলিখিত বৈষম্য তৈরি হচ্ছে।

আগামী বছর পরীক্ষায় বসার সময়ে কারও যাতে সমস্যা না হয়, সে কারণে নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত সিলেবাস কমানোর সিদ্ধান্ত নিল সিবিএসই।

তিরিশ শতাংশ সিলেবাস কমানো হয়েছে বলে মঙ্গলবার জানিয়েছে সিবিএসই। কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়নমন্ত্রী রমেশ পোখরিয়াল এ দিন বলেন, “এমন একটা পরিস্থিতি এখন, যেখানে গোটা বিশ্ব ভুগছে করোনাভাইরাসে। এই পরিস্থিতিতে ছাত্রছাত্রীদের উপর থেকেও বোঝা কমাতে নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত সিলেবাস কমিয়ে দেওয়া হল।”

তবে মূল সিলেবাসের বিষয়গুলি কোনো ভাবেই বাতিল করা হবে না বলে জানিয়েছেন পোখরিয়াল।

উল্লেখ্য, সিবিএসইর দশম আর দ্বাদশ শ্রেণির পরীক্ষা ১ থেকে ১৫ জুলাই পর্যন্ত নেওয়া কথা বলা হলেও পরবর্তীকালে তা বাতিল হয়ে যায়।

দ্বাদশ শ্রেণির ক্ষেত্রে বলা হয়েছে, শেষ তিনটে পরীক্ষায় প্রাপ্ত নম্বরের ভিত্তিতে মূল্যায়ন করা হবে। তবে যাঁরা পরীক্ষা দিতে চাইবে, পরিস্থিতি অনুকূল হলে, সেই সুযোগ দেওয়া হবে বলেও জানায় সিবিএসই।

Advertisement
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দেশ

আয়ারল্যান্ড, দিল্লি পুলিশ আর মুম্বই পুলিশের অনবদ্য সমন্বয়, আত্মহত্যা রুখে দিল ফেসবুক

লকডাউনে (Lockdown) আর্থিক অনটনের জেরে আত্মহত্যা করতে যাচ্ছিলেন তিনি।

খবরঅনলাইন ডেস্ক: আয়ারল্যান্ডের (Ireland) এক ফেসবুক কর্মচারীর তৎপরতা, দিল্লি আর মুম্বই পুলিশের মধ্যে অনবদ্য সমন্বয়ে হয়ে গেল একটা অসাধ্য সাধন। মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরিয়ে আনা হল এক ব্যক্তিকে।  লকডাউনে (Lockdown) আর্থিক অনটনের জেরে আত্মহত্যা করতে যাচ্ছিলেন তিনি।

জানা গেছে, আত্মহত্যা করার আগে ওই যুবক ফেসবুকে একটি ভিডিও পোস্ট করেন। সেই ভিডিওটিতেই এমন কিছু ইঙ্গিত ছিল, যা দেখে মনে হয় তিনি আত্মহত্যা করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

ফেসবুকের নিজস্ব ফিল্টার পদ্ধতিতে সেই ভিডিওটি ধরা পড়তেই সতর্ক হন আয়ারল্যান্ডের ওই ফেসবুক কর্মী। প্রথমে তিনি ভেবেছিলেন ফেসবুকের অরফে সরাসরি ওই যুবকের সঙ্গে যোগাযোগ করবেন। কিন্তু পরে সেই সিদ্ধান্ত বদলে পুলিশের ওপরে ভরসা করেন তিনি।

এর পরেই ফেসবুক সংস্থার তরফে যোগাযোগ করা হয় দিল্লির (Delhi Police) ডেপুটি কমিশনার (সাইবার) অন্বেষ রায়ের সঙ্গে। ফেসবুকে ওই যুবকের ফোন নম্বর নথিভুক্ত ছিল। সেই সব কিছু দিয়ে, যুবকের সন্দেহজনক ভিডিওর কথা জানিয়ে, শনিবার রাত আটটা নাগাদ মেল করা হয় রায়কে।

এর পরেই সক্রিয় হয় দিল্লির সাইবার দফতর। ফোন নম্বরটি পূর্ব দিল্লির বাসিন্দা এক মহিলার। সেই নম্বর ট্র্যাক করে ওই মহিলার বাড়ি পৌঁছোয় দিল্লি পুলিশ। কিন্তু সেখানে গিয়ে চমক। ওই মহিলা তো একদমই সুস্থ রয়েছেন।

কিন্তু এর পরেই গোটা ব্যাপারটিতে নাটকীয় মোড় আসে। জানা যায়, এক সময়ে তাঁর ফোন নম্বর দিয়ে খোলা অ্যাকাউন্টটি বর্তমানে ব্যবহার করেন তরুণীর স্বামী।

সপ্তাহ দুয়েক আগে স্ত্রীর সঙ্গে ঝগড়া করে বাড়ি ছেড়ে মুম্বই চলে যান তিনি। সেখানে একটি হোটেলে রাঁধুনির কাজ করেন তাঁর স্বামী। স্বামীর ফোন নম্বর মিললেও, মুম্বইয়ের ঠিকানা দিতে পারেননি স্ত্রী।

সঙ্গে সঙ্গে মুম্বই পুলিশের (Mumbai Police) সাইবার শাখার ডিসিপি রেশমি করন্ডিকারের সঙ্গে যোগাযোগ করে সমস্ত তথ্য দেন অন্বেষ রায়। কিন্তু ওই যুবকের ফোন নম্বর ‘আনরিচেবল’ আসে বারবার। তখন রাত ১১টা বাজে। ঘণ্টা তিনেক সময় পার হয়ে গেছে।

এই প্রসঙ্গেই রেশমি কারান্ডিকার বলেন, “যত তাড়াতাড়ি সম্ভব ওই যুবকের কাছে পৌঁছোনোই আমাদের কাছে সবচেয়ে বড়ো চ্যালেঞ্জ ছিল। আমরা এগোনোর আগেই দেখতে পারি যে ওই ব্যক্তি চারটে ভিডিও আপলোড করে ফেলেছেন। গলায় দড়ি দেওয়ার প্রস্তুতির ভিডিও ছিল ওগুলো।”

উপায়ন্তর না দেখে ওই যুবকের মাকে দিয়ে ভিডিও কল করানোর চেষ্টা করা হয় হোয়াটসঅ্যাপে। কিন্তু সেটা বারবারই কেটে যেতে থাকে। এর পরে ওই যুবক নিজেই মাকে কল করেন, অন্য একটা নম্বর থেকে।

রেশমি বলেন, “ফোনে যোগাযোগ হওয়া মাত্র আমাদের এক অফিসার ওর সঙ্গে কথা বলতে থাকে, ওকে ব্যস্ত রাখে, আর অন্য একটি দল বেরিয়ে যায় নির্দিষ্ট লোকেশন ট্রেস করে।”

অবশেষে রাত দেড়টায় ওই যুবকের ঘরে পৌঁছোয় মুম্বই পুলিশ। রুখে দেওয়া সম্ভব হয় ওই যুবকের আত্মহত্যা।

লকডাউনের কারণে কয়েক মাস ধরে ওই যুবকের কোনো রোজগার নেই। এই কারণেই নিজের জীবন শেষ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু অনবদ্য একটা সমন্বয়ের কারণে রুখে দেওয়া সম্ভব হল সেটা।

Continue Reading

দেশ

দেশে করোনামুক্তির সংখ্যা পেরোলো ১৫ লক্ষের গণ্ডি, সুস্থতার হার প্রায় ৭০ শতাংশ

দেশে বর্তমানে সুস্থতার হার অনেকটা বেড়ে ৬৯.৩৩ শতাংশে এসেছে। দেশে বর্তমানে মৃত্যুহার এসে ঠেকেছে মাত্র ২ শতাংশে।

খবরঅনলাইন ডেস্ক: ভারতে কোরনা-আক্রান্তের সংখ্যা ২২ লক্ষের গণ্ডি পেরোলেও একই সঙ্গে সুস্থ হয়ে উঠলেন ১৫ লক্ষেরও বেশি মানুষ। দেশে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে সুস্থতার হার আর হুহু করে কমছে মৃত্যুর হার।

দেশের করোনা-তথ্য

সোমবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) প্রকাশিত তথ্য দেখা যাচ্ছে যে এই মুহূর্তে ভারতে মোট করোনারোগীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ২২ লক্ষ ১৫ হাজার ৭৪। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন জন ৬ লক্ষ ৩৪ হাজার ৯৪৫। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১৫ লক্ষ ৩৫ হাজার ৭৪৩ জন। অন্য দিকে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৪৪,৩৮৬।

অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৬২,০৬৪ জন। সুস্থ হয়েছেন ৫৪,৮৫৯ জন। মৃত্যু হয়েছে ১০০৭ জনের।

দেশে বর্তমানে সুস্থতার হার অনেকটা বেড়ে ৬৯.৩৩ শতাংশে এসেছে। দেশে বর্তমানে মৃত্যুহার এসে ঠেকেছে মাত্র ২ শতাংশে।

মহারাষ্ট্রে এক দিনে সুস্থ ১৩ হাজার

দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যায় রেকর্ড করেছে মহারাষ্ট্র। আবার সেই সংখ্যাটাকেও ছাপিয়ে গেল সুস্থ হওয়া মানুষের সংখ্যা। গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে ১২,২৪৮ জন নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন। আর সুস্থ হয়েছেন ১৩,৩৪৮ জন।

মহারাষ্ট্রে আক্রান্তের সংখ্যা ৫ লক্ষ পেরিয়ে গেলেও মোট সুস্থ হয়ে উঠেছেন সাড়ে তিন লক্ষের কিছু বেশি। এ রাজ্যেও সুস্থতার হার প্রায় ৭০ শতাংশ ছুঁইছুঁই।

ভরসা দেখাচ্ছে তামিলনাড়ুও

কোভিডে আশার আলো দেখাচ্ছে তামিলনাড়ুও। সে রাজ্যে দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যায় বিশেষ কোনো পতন হয়নি ঠিকই, কিন্তু টেস্টের সংখ্যা বেড়েছে হুহু করে। গত মাসে, দৈনিক ৫০ হাজার টেস্টে সে রাজ্যে আক্রান্ত হচ্ছিলেন পাঁচ হাজার জন। এখন দৈনিক ৭০ হাজার টেস্টে আক্রান্ত হচ্ছেন সাড়ে পাঁচ হাজারের কিছু বেশি মানুষ।

অর্থাৎ এ রাজ্যে দৈনিক সংক্রমণের হার কিছুটা কমে দশ শতাংশের নীচে চলে এসেছে। আশা দেখাচ্ছে চেন্নাইও। দু’মাস এই প্রথমবার চেন্নাইয়ে দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা এক হাজারের নীচে চলে এসেছে।

চিন্তায় রাখছে যে তিন রাজ্য

আপাতত সব থেকে বেশি চিন্তার কারণ তিনটে রাজ্যকে নিয়ে। কর্নাটক, অন্ধ্রপ্রদেশ আর পশ্চিমবঙ্গ। এই তিন রাজ্যেই বর্তমানে দৈনিক সংক্রমণের হার দশ শতাংশের বেশি। গত ২৪ ঘণ্টায় কর্নাটকে ৪৩ হাজার টেস্টে আক্রান্ত হয়েছেন ৫৮০০ জন, অন্ধ্রপ্রদেশে ৬৩ হাজার টেস্টে ১০ হাজার আক্রান্ত হয়েছেন আর পশ্চিমবঙ্গে ২৬ হাজার টেস্টে আক্রান্ত হয়েছেন ২৯৩৯ জন।

তবে দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা (৪,৭৫১) বেশি হলেও উত্তরপ্রদেশ নিয়ে চিন্তা কিছুটা কম। কারণ সে রাজ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় ১ লক্ষের বেশি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে। অর্থাৎ দৈনিক সংক্রমণের হার কার্যত নগণ্য।

Continue Reading

দেশ

কোভিড আপডেট: নতুন করে আক্রান্ত ৬২০৬৪, সুস্থ ৫৪৮৫৯

খবরঅনলাইন ডেস্ক: ভারতে করোনা-আক্রান্তের সংখ্যায় কোনো রকম লাগাম না টানা গেলেও লকডাউনের কড়াকড়ি অনেকটাই শিথিল করা হয়েছে। শুরু হয়েছে আনলক পর্ব। মানুষ রাস্তায় বেরিয়ে পড়েছেন। স্বাভাবিক ভাবেই এখন আক্রান্তের সংখ্যা আগের থেকে অনেকটাই বাড়বে। মঙ্গলবার, তথা ১ জুলাই থেকে নতুন করে কোভিড আপডেট শুরু করল খবরঅনলাইন। ৩০ জুন পর্যন্ত যাবতীয় আপডেট পড়ার জন্য ক্লিক করুন এখানে

==================================================================

১০ আগস্ট, সকাল সাড়ে ন’টা

সোমবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) প্রকাশিত তথ্য দেখা যাচ্ছে যে এই মুহূর্তে ভারতে মোট করোনারোগীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ২২ লক্ষ ১৫ হাজার ৭৪। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন জন ৬ লক্ষ ৩৪ হাজার ৯৪৫। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১৫ লক্ষ ৩৫ হাজার ৭৪৩ জন। অন্য দিকে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৪৪,৩৮৬।

অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৬২,০৬৪ জন। সুস্থ হয়েছেন ৫৪,৮৫৯ জন। মৃত্যু হয়েছে ১০০৭ জনের।

দেশে বর্তমানে সুস্থতার হার অনেকটা বেড়ে ৬৯.৩৩ শতাংশে এসেছে। দেশে বর্তমানে মৃত্যুহার এসে ঠেকেছে মাত্র ২ শতাংশে।

৯ আগস্ট, সকাল ১০টা

রবিবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, ভারতে করোনা-আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ২১ লক্ষ ৫৩ হাজার ১০। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ৬ লক্ষ ২৮ হাজার ৭৪৭। সুস্থ হয়েছেন ১৪ লক্ষ ৮০ হাজার ৮৮৪। মৃত্যু হয়েছে ৪৩ হাজার ৩৭৯ জনের।

এ দিন স্বাস্থ্যমন্ত্রক জানায়, গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে নতুন করে করোনাভাইরাস আক্রান্ত হয়েছেন ৬৪ হাজার ৩৯৯ জন। সুস্থ হয়েছেন ৫৩ হাজার ৮৭৯ জন। মৃত্যু হয়েছে ৮৬১ জনের।

৮ আগস্ট, সকাল ১০টা

শনিবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) প্রকাশিত তথ্য দেখা যাচ্ছে যে এই মুহূর্তে ভারতে মোট করোনারোগীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ২০ লক্ষ ৮৮ হাজার ৬১১। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন জন ৬ লক্ষ ১৯ হাজার ৮৮। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১৪ লক্ষ ২৭ হাজার ৫ জন। অন্য দিকে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৪২,৫১৮।

অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৬১,৫৩৭ জন। সুস্থ হয়েছেন ৪৮,৯০০ জন। মৃত্যু হয়েছে ৯৩৩ জনের।

দেশে বর্তমানে সুস্থতার হার অনেকটা বেড়ে ৬৮.৩২ শতাংশে এসেছে। মৃত্যুহার আরও কিছুটা কমে হয়েছে ২.০৩ শতাংশে।

৭ আগস্ট, সকাল দশটা

শুক্রবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) প্রকাশিত তথ্য দেখা যাচ্ছে যে এই মুহূর্তে ভারতে মোট করোনারোগীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ২০ লক্ষ ২৭ হাজার ৭৪। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন জন ৬ লক্ষ ৭ হাজার ৩৮৪। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১৩ লক্ষ ৭৮ হাজার ১০৫ জন। অন্য দিকে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৪১,৫৮৫।

অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৬২,৫৩৮ জন। সুস্থ হয়েছেন ৪৯,৭৬৯ জন। মৃত্যু হয়েছে ৮৮৬ জনের।

দেশে বর্তমানে সুস্থতার হার অনেকটা বেড়ে ৬৭.৯৮ শতাংশে এসেছে। মৃত্যুহার আরও কিছুটা কমে হয়েছে ২.০৫ শতাংশে।

৬ আগস্ট, সকাল সাড়ে ন’টা

বৃহস্পতিবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) প্রকাশিত তথ্য দেখা যাচ্ছে যে এই মুহূর্তে ভারতে মোট করোনারোগীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৯ লক্ষ ৬৪ হাজার ৫৩৬। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন জন ৫ লক্ষ ৯৫ হাজার ৫০১। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১৩ লক্ষ ২৮ হাজার ৩৩৬ জন। অন্য দিকে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৪০,৬৯৯।

অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৫৬,২৮২ জন। সুস্থ হয়েছেন ৪৬,১২১ জন। মৃত্যু হয়েছে ৯০৪ জনের।

দেশে বর্তমানে সুস্থতার হার অনেকটা বেড়ে ৬৭.৬১ শতাংশে এসেছে। মৃত্যুহার আরও কিছুটা কমে হয়েছে ২.০৭ শতাংশে।

৫ আগস্ট, সকাল সাড়ে ন’টা

বুধবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) প্রকাশিত তথ্য দেখা যাচ্ছে যে এই মুহূর্তে ভারতে মোট করোনারোগীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৯ লক্ষ ৮ হাজার ২৫৪। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন জন ৫ লক্ষ ৮৬ হাজার ২৪৪। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১২ লক্ষ ৮২ হাজার ২১৫ জন। অন্য দিকে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৩৮,৭৯৫।

অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৫২,৫০৯ জন। সুস্থ হয়েছেন ৫১,৭০৬ জন। মৃত্যু হয়েছে ৮৫৭ জনের। দেশে বর্তমানে সুস্থতার হার অনেকটা বেড়ে ৬৭.২৯ শতাংশে এসেছে। মৃত্যুহার আরও কিছুটা কমে হয়েছে ২.০৮ শতাংশে।

দেশে রোগীবৃদ্ধির হার এখন নেমে এসেছে ২.৮২ শতাংশে

৪ আগস্ট, সকাল সাড়ে ন’টা

মঙ্গলবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) প্রকাশিত তথ্য দেখা যাচ্ছে যে এই মুহূর্তে ভারতে মোট করোনারোগীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৮ লক্ষ ৫৫ হাজার ৭৪৫। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন জন ৫ লক্ষ ৮৬ হাজার ২৯৮। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১২ লক্ষ ৩০ হাজার ৫০৯ জন। অন্য দিকে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৩৮,৯৩৮।

অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৫২,০৫০ জন। সুস্থ হয়েছেন ৪৪,৩০৬ জন। মৃত্যু হয়েছে ৮০৩ জনের। দেশে বর্তমানে সুস্থতার হার অনেকটা বেড়ে ৬৬.৩০ শতাংশে এসেছে। মৃত্যুহার আরও কিছুটা কমে হয়েছে ২.০৯ শতাংশে।

উল্লেখযোগ্য বিষয় হল, এই প্রথমবার ভারতে রোগীবৃদ্ধির হার নামক তিন শতাংশরও নীচে (২.৮৮ শতাংশ)।

৩ আগস্ট, সকাল সাড়ে ন’টা

সোমবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) প্রকাশিত তথ্য দেখা যাচ্ছে যে এই মুহূর্তে ভারতে মোট করোনারোগীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৮ লক্ষ ৩ হাজার ৬৯৫। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন জন ৫ লক্ষ ৭৯ হাজার ৩৫৭। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১১ লক্ষ ৮৬ হাজার ২০৩ জন। অন্য দিকে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৩৮,১৩৫।

অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৫২,৯৭২ জন। সুস্থ হয়েছেন ৪০,৫৭৪ জন। মৃত্যু হয়েছে ৭৬৪ জনের। দেশে বর্তমানে সুস্থতার হার অনেকটা বেড়ে ৬৫.৭৬ শতাংশে এসেছে। মৃত্যুহার আরও কিছুটা কমে হয়েছে ২.১১ শতাংশে।

উল্লেখযোগ্য বিষয় হল ভারতে রোগীবৃদ্ধির হারও কিন্তু অনেকটা কমেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে মাত্র ৩.০২ শতাংশ হারে রোগী বেড়েছে। রোগীবৃদ্ধির হারের কমে আসা কিন্তু সোমবারের আগে ভারতে কখনও হয়নি।

২ আগস্ট, সকাল সাড়ে ৯টা

রবিবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) প্রকাশিত তথ্য দেখা যাচ্ছে যে এই মুহূর্তে ভারতে মোট করোনারোগীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৭ লক্ষ ৫০ হাজার ৭২৩। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন জন ৫ লক্ষ ৬৭ হাজার ৭৩০। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১১ লক্ষ ৪৫ হাজার ৬২৯ জন। অন্য দিকে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৩৭,৩৬৪।

অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৫৪,৭৩৫ জন। সুস্থ হয়েছেন ৫১২৫৫ জন। মৃত্যু হয়েছে ৮৫৩ জনের। দেশে বর্তমানে সুস্থতার হার রয়েছে ৬৫,৪৩ শতাংশে। মৃত্যুহার আরও কিছুটা কমে হয়েছে ২.১৩ শতাংশে।

১ আগস্ট, সকাল সাড়ে ন’টা

শুক্রবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) প্রকাশিত তথ্য দেখা যাচ্ছে যে এই মুহূর্তে ভারতে মোট করোনারোগীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৬ লক্ষ ৯৫ হাজার ৯৮৮। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন জন ৫ লক্ষ ৬৫ হাজার ১০৩। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১০ লক্ষ ৯৪ হাজার ৩৭৪ জন। অন্য দিকে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৩৬,৫১১।

অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৫৭,১১৮ জন। সুস্থ হয়েছেন ৩৬,৫৬৯ জন। মৃত্যু হয়েছে ৭৬৪ জনের। দেশে বর্তমানে সুস্থতার হার রয়েছে ৬৪.৫২ শতাংশে। মৃত্যুহার আরও কিছুটা কমে হয়েছে ২.১৫ শতাংশে।

৩১ জুলাই, সকাল সাড়ে ন’টা

সোমবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) প্রকাশিত তথ্য দেখা যাচ্ছে যে এই মুহূর্তে ভারতে মোট করোনারোগীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৬ লক্ষ ৩৮ হাজার ৮৭০। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন জন ৫ লক্ষ ৪৫ হাজার ৩১৮। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১০ লক্ষ ৫৭ হাজার ৮০৫ জন। অন্য দিকে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৩৫,৭৪৭।

অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৫৫,০৭৮ জন। সুস্থ হয়েছেন ৩৭,২২৩ জন। মৃত্যু হয়েছে ৭৭৯ জনের। দেশে বর্তমানে সুস্থতার হার রয়েছে ৬৪.৫৪ শতাংশে। মৃত্যুহার আরও কিছুটা কমে হয়েছে ২.১৮ শতাংশে।

৩০ জুলাই, সকাল সাড়ে ন’টা

সোমবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) প্রকাশিত তথ্য দেখা যাচ্ছে যে এই মুহূর্তে ভারতে মোট করোনারোগীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৫ লক্ষ ৮৩ হাজার ৭৯২। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন জন ৫ লক্ষ ২৪ হাজার ২৪২। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১০ লক্ষ ২০ হাজার ৫৪২ জন। অন্য দিকে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৩৪,৯৬৮।

অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৫২,১২৩ জন। সুস্থ হয়েছেন ৩২,৫৫৩ জন। মৃত্যু হয়েছে ৭৭৫ জনের। দেশে বর্তমানে সুস্থতার হার রয়েছে ৬৪.৪৩ শতাংশে। মৃত্যুহার আরও কিছুটা কমে হয়েছে ২.২০ শতাংশে।

২৯ জুলাই, সকাল সাড়ে দশটা

সোমবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) প্রকাশিত তথ্য দেখা যাচ্ছে যে এই মুহূর্তে ভারতে মোট করোনারোগীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৫ লক্ষ ৩১ হাজার ৬৬৯। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন জন ৫ লক্ষ ০৯ হাজার ৪৪৭। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৯ লক্ষ ৮৮ হাজার ২৯ জন। অন্য দিকে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৩৪,১৯৩।

অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৪৮,৫১৩ জন। সুস্থ হয়েছেন ৩৫,২৮৫ জন। মৃত্যু হয়েছে ৭৬৪ জনের। দেশে বর্তমানে সুস্থতার হার আরও কিছুটা বেড়ে ৬৪.৫০ শতাংশ হয়েছে, মৃত্যুহার আরও কিছুটা কমে হয়েছে ২.২৩ শতাংশে।

২৮ জুলাই, সকাল সাড়ে ন’টা

সোমবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) প্রকাশিত তথ্য দেখা যাচ্ছে যে এই মুহূর্তে ভারতে মোট করোনারোগীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৪ লক্ষ ৮৩ হাজার ১৫৬। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন জন ৪ লক্ষ ৯৬ হাজার ৯৮৮। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৯ লক্ষ ৫২ হাজার ৭৪৪ জন। অন্য দিকে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৩৩,৪২৫।

অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৪৭,৭০৩ জন। সুস্থ হয়েছেন ৩৫,১৭৬ জন। মৃত্যু হয়েছে ৬৫৪ জনের। দেশে বর্তমানে সুস্থতার হার আরও কিছুটা বেড়ে ৬৪.২৩ শতাংশ হয়েছে, মৃত্যুহার কমে এসেছে ২.২৫ শতাংশে।

২৭ জুলাই, সকাল সাড়ে ন’টা

সোমবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) প্রকাশিত তথ্য দেখা যাচ্ছে যে এই মুহূর্তে ভারতে মোট করোনারোগীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৪ লক্ষ ৩৫ হাজার ৪৫৩। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন জন ৪ লক্ষ ৮৫ হাজার ১১৪। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৯ লক্ষ ১৭ হাজার ৫৬৮ জন। অন্য দিকে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৩২,৭৭১।

অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৪৯,৯৩১ জন। সুস্থ হয়েছেন ৩১,৯৯১ জন। মৃত্যু হয়েছে ৭০৮ জনের। দেশে বর্তমানে সুস্থতার হার আরও কিছুটা বেড়ে ৬৩.৯২ শতাংশে এসেছে, মৃত্যুহার কমে এসেছে ২.২৮ শতাংশে।

২৬ জুলাই, সকাল ১০টা

রবিবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) তথ্য অনুযায়ী ভারতে করোনা-আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৩ লক্ষ ৮৫ হাজার ৫২২। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ৪ লক্ষ ৬৭ হাজার ৮৮২। সুস্থ হয়েছেন ৮ লক্ষ ৮৫ হাজার ৫৭৭। মৃত্যু হয়েছে ৩২ হাজার ৬৩ জনের।

এ দিন স্বাস্থ্যমন্ত্রক জানায়, গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে নতুন করে করোনাভাইরাস আক্রান্ত হয়েছেন ৪৮ হাজার ৬৬১ জন। সুস্থ হয়েছেন ৩৬ হাজার ১৪৫ জন। মৃত্যু হয়েছে ৭০৫ জনের।

২৫ জুলাই, সকাল সাড়ে ন’টা

শনিবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) প্রকাশিত তথ্য দেখা যাচ্ছে যে এই মুহূর্তে ভারতে মোট করোনারোগীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৩ লক্ষ ৩৬ হাজার ৮৬১। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন জন ৪ লক্ষ ৫৬ হাজার ৭১। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৮ লক্ষ ৪৯ হাজার ৪৩২ জন । অন্য দিকে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৩১,৩৫৮।

অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৪৮,৯১৬ জন। সুস্থ হয়েছেন ৩২,২২৩ জন। মৃত্যু হয়েছে ৭৫৭ জনের। দেশে বর্তমানে সুস্থতার হার আরও কিছুটা বেড়ে ৬৩.৫৩ শতাংশে এসেছে, মৃত্যুহার কমে এসেছে ২.৩৪ শতাংশে।

২৪ জুলাই, সকাল সাড়ে ন’টা

শুক্রবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) প্রকাশিত তথ্য দেখা যাচ্ছে যে এই মুহূর্তে ভারতে মোট করোনারোগীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১২ লক্ষ ৮৭ হাজার ৯৪৫। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন জন ৪ লক্ষ ৪০ হাজার ১৩৫। তবে বিশাল বড়ো স্বস্তির ব্যাপার হল সুস্থতার সংখ্যা আট লক্ষ ছাড়িয়েছে। এই মুহূর্তে সেটা রয়েছে ৮ লক্ষ ১৭ হাজার ২০৯-এ । অন্যদিকে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৩০,৬০১।

অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৪৯,৩০১ জন। সুস্থ হয়েছেন ৩৪,৬০৩ জন। মৃত্যু হয়েছে ৭৪০ জনের। দেশে বর্তমানে সুস্থতার হার রয়েছে ৬৩.৪৫ শতাংশে , মৃত্যুহার রয়েছে ২.৩৭ শতাংশে।

২৩ জুলাই, সকাল সাড়ে ন’টা

বৃহস্পতিবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) পেশ করা রিপোর্টে দেখা যাচ্ছে যে বর্তমানে ভারতে করোনা-আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১২ লক্ষ ৩৮ হাজার ৬৩৫। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ৪ লক্ষ ২৬ হাজার ১৬৭। সুস্থ হয়েছেন ৭ লক্ষ ৮২ হাজার ৬০৬ জন। মৃত্যু হয়েছে ২৯,৮৬১ জনের।

অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৪৫,৭২০ জন। সুস্থ হয়েছেন ২৯,৫৫৭ জন। দৈনিক সুস্থতার সংখ্যায় এটা রেকর্ড। মৃত্যু হয়েছে ১,১২৯ জনের।

এক দিনে এত মৃত্যুর ফলে মৃত্যুহারে সামান্ন অবনতি হয়েছে। বর্তমানে সেটি বেড়ে হয়েছে ২.৪১ শতাংশ। অবশ্য খুব সামান্ন হলেও গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থতার হারও বেড়েছে (৬৩.১৮ শতাংশ)।

২২ জুলাই, সকাল সাড়ে ন’টা

বুধবার, কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের পেশ করা রিপোর্টে দেখা যাচ্ছে যে বর্তমানে ভারতে করোনা-আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১১ লক্ষ ৯২ হাজার ৯১৫। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ৪ লক্ষ ১১ হাজার ১৩৩। সুস্থ হয়েছেন ৭ লক্ষ ৫৩ হাজার ৫০। মৃত্যু হয়েছে ২৮,৭৩২ জনের।

অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৩৭,৭২৪ জন। সুস্থ হয়েছেন ২৮,৪৭১ জন। দৈনিক সুস্থতার সংখ্যায় এটা রেকর্ড। মৃত্যু হয়েছে ৬৪৮ জনের।

উল্লেখ্যজগ্য বিষয় হল ভারতে রোগীবৃদ্ধির হার বেশ কিছুটা কমে ৩.২৬ শতাংশ হয়েছে। দেশে বর্তমানে সুস্থতার হার কিছুটা বেড়ে ৬৩.১২ শতাংশ হয়েছে। মৃত্যুহার কমে ২.৪০ শতাংশ হয়েছে। মঙ্গলবার এটা ছিল ২.৪৩ শতাংশ।

২১ জুলাই, সকাল সাড়ে ন’টা

সোমবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) পেশ করা রিপোর্ট অনুযায়ী ভারতে বর্তমানে করোনা-আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১১ লক্ষ ৫৫ হাজার ১৯১। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ৪ লক্ষ ২ হাজার ৫২৯। সুস্থ হয়েছেন ৭ লক্ষ ২৪ হাজার ৫৭৮ জন। মৃত্যু হয়েছে জনের ২৮,০৮৪ জনের।

অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় ৩৭,১৪৮ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। পাশাপাশি, সুস্থ হয়েছেন ২৪,৪৯১ জন। এখনও পর্যন্ত দৈনিক সুস্থতার সংখ্যায় এটাই রেকর্ড। মৃত্যু হয়েছে ৫৮৭ জনের।

বর্তমানে দেশে সুস্থতার হার রয়েছে ৬২.৭১ শতাংশে। মৃত্যুহার কমে এসেছে ২.৪৩ শতাংশে।

২০ জুলাই, সকাল সাড়ে ন’টা

সোমবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের পেশ করা রিপোর্ট অনুযায়ী ভারতে বর্তমানে করোনা-আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১১ লক্ষ ১৮ হাজার ৪৩ । এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ৩ লক্ষ ৯০ হাজার ৪৫৯ । সুস্থ হয়েছেন ৭ লক্ষ ৮৭ জনের। মৃত্যু হয়েছে জনের ২৭,৪৯৭ জনের।

অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় ৪০,৪২৫ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। পাশাপাশি, সুস্থ হয়েছেন ২২,৬৬৪ জন। মৃত্যু হয়েছে ৬৮১ জনের।

বর্তমানে দেশে সুস্থতার হার রয়েছে ৬২.৬১ শতাংশে। মৃত্যুহার কমে এসেছে ২.৪৫ শতাংশে।

১৯ জুলাই, সকাল ১০টা

রবিবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) তথ্য অনুযায়ী ভারতে করোনা-আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১০ লক্ষ ৭৭ হাজার ৬১৮। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ৩ লক্ষ ৭৩ হাজার ৩৭৯। সুস্থ হয়েছেন ৬ লক্ষ ৭৭ হাজার ৪২৩। মৃত্যু হয়েছে ২৬ হাজার ৮১৬ জনের।

এ দিন স্বাস্থ্যমন্ত্রক জানায়, গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে নতুন করে করোনাভাইরাস আক্রান্ত হয়েছেন ৩৮ হাজার ৯০২ জন। সুস্থ হয়েছেন ২৩ হাজার ৬৭২ জন। মৃত্যু হয়েছে ৫৪৩ জনের।

১৮ জুলাই, সকাল সাড়ে ন’টা

শনিবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক যে তথ্য প্রকাশ করেছে তাতে দেখা যাচ্ছে যে বর্তমানে ভারতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১০ লক্ষ ৩৮ হাজার ৭১৬। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন তিন লক্ষ ৫৮ হাজার ৬৯২। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৬ লক্ষ ৫৩ হাজার ৭৫১। মৃত্যু হয়েছে ২৬,২৭৩ জনের।

অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৩৪,৮৮৪ জন। সুস্থ হয়েছেন ১৭,৯৯৪ জন। মৃত্যু হয়েছে ৬৭১ জনের।

ভারতে বর্তমানে সুস্থতার হার রয়েছে ৬২.৯৩ শতাংশে। মৃত্যুহার কমে এসেছে ২.৫২ শতাংশে।

১৭ জুলাই, সকাল সাড়ে ন’টা

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তথ্য বলছে ভারতে এই মুহূর্তে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১০ লক্ষ ৩ হাজার ৮৩২। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ৩ লক্ষ ৪২ হাজার ৪৭৩ জন। সুস্থ হয়েছেন ৬ লক্ষ ৩৫ হাজার ৭৫৭ জন। মৃত্যু হয়েছে ২৫,৬০২ জনের।

অর্থাৎ, গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে মতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৩৪,৯৫৬ জন। সুস্থ হয়েছেন ২২,৯৪২ জন। মৃত্যু হয়েছে ৬৮৭ জনের।

১৬ জুলাই, সকাল সাড়ে ন’টা

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) বৃহস্পতিবার হিসেব বলছে বর্তমানে ভারতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৯ লক্ষ ৬৮ হাজার ৮৭৬ । এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ৩ লক্ষ ৩১ হাজার ১৪৬ জন। সুস্থ হয়েছেন ৬ লক্ষ ১২ হাজার ৮১৫ জন। মৃত্যু হয়েছে ২৪,৯১৫ জনের।

অর্থাৎ, গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছেন ৩২,৬৯৫ জন, সুস্থ হয়েছেন ২০,৭৮৩ জন। এই সময়ে মৃত্যু হয়েছে ৬০৬ জনের। বর্তমানে দেশে মৃত্যুহার কমে এসেছে ২.৫৭ শতাংশে।

১৫ জুলাই, সকাল সাড়ে ন’টা

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) প্রকাশিত তথ্যে দেখা যাচ্ছে যে এই মুহূর্তে ভারতে মোট করোনারোগীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৯ লক্ষ ৩৬ হাজার ১৮১ । এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ৩ লক্ষ ১৯ হাজার ৮৪০। সুস্থ হয়েছেন ৫ লক্ষ ৯২ হাজার ৩২ জন। মৃত্যু হয়েছে ২৪৩০৯ জনের।

অর্থাৎ, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ২৯,৪২৯ জন। সুস্থ হয়েছেন ২০,৫৭২ জন। মৃত্যু হয়েছে ৫৮২ জনের। দেশে বর্তমানে সুস্থতার হার রয়েছে ৬৩.২৩ শতাংশে। মৃত্যুর হার আরও কিছুটা কমে ২.৫৯ শতাংশে নেমে এসেছে।

১৪ জুলাই, সকাল দশটা

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের প্রকাশিত তথ্য দেখা যাচ্ছে যে এই মুহূর্তে ভারতে মোট করোনারোগীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৯ লক্ষ ৬ হাজার ৭৫২। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ৩ লক্ষ ১১ হাজার ৫৬৫। সুস্থ হয়েছেন ৫ লক্ষ ৭১ হাজার ৪৬০ জন। মৃত্যু হয়েছে ২৩৭২৭ জনের।

অর্থাৎ, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ২৮,৪৯৮ জন। সুস্থ হয়েছেন ১৭,৯৯০ জন। মৃত্যু হয়েছে ৫৪৯ জনের। দেশে বর্তমানে সুস্থতার হার রয়েছে ৬৩.০২ শতাংশে। মৃত্যুর হার আরও কিছুটা কমে ২.৬২ শতাংশে নেমে এসেছে।

১৩ জুলাই, সকাল ১০টা

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) সোমবারের হিসেব বলছে, এই মুহূর্তে দেশে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৮ লক্ষ ৭৮ হাজার ২৫২। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ৩ লক্ষ ১ হাজার ৬০৯। সুস্থ হয়েছেন ৫ লক্ষ ৫৩ হাজার ৪৭০ জন। মৃত্যু হয়েছে ২৩,১৭৪ জনের।

অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছেন ২৮,৭০১ জন। রেকর্ড সংক্রমণের পাশাপাশি সুস্থ হয়েছেন ১৮,৮৪৯ জন। মৃত্যু হয়েছে ৫০০ জনের।

১২ জুলাই, সকাল ১০টা

রবিবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) তথ্য অনুযায়ী ভারতে করোনা-আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৮ লক্ষ ৪৯ হাজার ৫৫৩। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ২ লক্ষ ৯২ হাজার ২৫৮। সুস্থ হয়েছেন ৫ লক্ষ ৩৪ হাজার ৬২১। মৃত্যু হয়েছে ২২ হাজার ৬৭৪ জনের।

এ দিন স্বাস্থ্যমন্ত্রক জানায়, শনিবার সকাল ৮টার পর থেকে গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে নতুন করে করোনাভাইরাস আক্রান্ত হয়েছেন ২৮ হাজার ৬৩৭ জন। সুস্থ হয়েছেন ১৯ হাজার ২৩৫ জন। মৃত্যু হয়েছে ৫৫১ জনের।

১১ জুলাই, সকাল সাড়ে ন’টা

শনিবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তথ্য বলছে ভারতে এখন মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৮ লক্ষ ২০ হাজার ৯১৬। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ২ লক্ষ ৮৩ হাজার ৪০৭ জন। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৫ লক্ষ ১৫ হাজার ৩৮৬ জন। মৃত্যু হয়েছে ২২,১২৩ জনের।

অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ২৭,১১৪ জন আক্রান্ত হয়েছেন। সুস্থ হয়েছেন ১৯,৮৭৩ জন। মৃত্যু হয়েছে ৫১৪ জনের। সুস্থতার হার বর্তমানে রয়েছে ৬২.৭৮ শতাংশ।

১০ জুলাই, সকাল সাড়ে ন’টা

শুক্রবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক (Ministry of Health and Family Welfare) যে রিপোর্ট দিয়েছে তাতে দেখা যাচ্ছে যে এই মুহূর্তে ভারতে মোট রোগীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৭ লক্ষ ৯৩ হাজার ৮০২। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ২ লক্ষ ৭৬ হাজার ৬৮৫। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৪ লক্ষ ৯৫ হাজার ৫১৩। মারা গিয়েছেন ২১,৬০৪ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছেন ২৬,৫০৬ জন। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১৯,১৩৪ জন। মারা গিয়েছেন ৪৭৫ জন। দেশে বর্তমানে সুস্থতার হার আরও কিছুটা বেড়ে ৬২.৪২ শতাংশ হয়েছে। মৃত্যুহার আরও কিছুটা কমে ২.৭২ শতাংশে এসেছে।

৯ জুলাই, সকাল সাড়ে ন’টা

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) তথ্য অনুযায়ী বৃহস্পতিবার দেশে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৭ লক্ষ ৬৭ হাজার ২৯৬। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ২ লক্ষ ৬৯ হাজার ৭৮৯। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৪ লক্ষ ৭৬ হাজার ৩৭৮। মারা গিয়েছেন ২১,১২৯ জন।

অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছেন ২৪,৮৭৯ জন। এই রেকর্ডের পাশাপাশি সুস্থতার সংখ্যাও বেড়েছে। এই সময়ে সুস্থ হয়েছেন ১৯,৫৪৭ জন। মৃত্যু হয়েছে ৪৪৭ জনের। সুস্থতার হার মঙ্গলবারের থেকে কিছুটা বেড়ে ৬২.০৮ শতাংশ হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় রোগী বেড়েছে ৩.৩৫ শতাংশ।

৮ জুলাই, সকাল সাড়ে ন’টা

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) তথ্য অনুযায়ী মঙ্গলবার দেশে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৭ লক্ষ ৪২ হাজার ৪১৭। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ২ লক্ষ ৬৪ হাজার ৯৪৪। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৪ লক্ষ ৫৬ হাজার ৮৩১। মারা গিয়েছেন ২০,৬৪২ জন।

অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ২২,৭৫২ জন গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ১৬,৮৮৩ জন। মৃত্যু হয়েছে ৪৮২ জনের। সুস্থতার হার মঙ্গলবারের থেকে কিছুটা বেড়ে সাড়ে ৬১ শতাংশ হয়েছে।

৭ জুলাই, সকাল সাড়ে দশটা

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) তথ্য অনুযায়ী মঙ্গলবার দেশে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৭ লক্ষ ১৯ হাজার ৬৬৫। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ২ লক্ষ ৫৯ হাজার ৫৫৭। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৪ লক্ষ ৩৯ হাজার ৯৪৮। মারা গিয়েছেন ২০,১৬০।

অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ২২,২৫২ জন। ৩ জুলাইয়ের পর নতুন আক্রান্তের সংখ্যায় এতটা পতন দেখা গেল। এর ফলে রোগী বৃদ্ধির হার এখন কমে এসেছে মাত্র ৩.১৯ শতাংশে।

গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ১৫,৫১৫ জন। মৃত্যু হয়েছে ৪৬৬ জনের। সুস্থতার হার আরও কিছুটা বেড়ে ৬১.১৩ শতাংশ হয়েছে। মৃত্যুহার কমে এসেছে ২.৮০ শতাংশে।

৬ জুলাই, সকাল সাড়ে দশটা

সোমবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক (Ministry of Health and Family Welfare) যে তথ্য প্রকাশ করেছে তাতে দেখা যাচ্ছে যে ভারতে এখন মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৬ লক্ষ ৯৭ হাজার ৪১৩। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ২ লক্ষ ৫৩ হাজার ২৮৭। সুস্থ হয়েছেন ৪ লক্ষ ২৪ হাজার ৪৩৩। মৃত্যু হয়েছে ১৯,৬৯৪ জনের।

গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ২৪,২৪৮ জন। সুস্থ হয়েছেন ১৫,৩৫০ জন। মৃত্যু হয়েছে ৪২৫ জনের। রবিবার মৃত্যু হয়েছিল ৬০৮ জনের।

৫ জুলাই, সকাল দশটা

রবিবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) তথ্য অনুযায়ী ভারতে করোনা-আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৬ লক্ষ ৭৩ হাজার ১৬৫। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ২ লক্ষ ৪৪ হাজার ৮১৪। সুস্থ হয়েছেন ৪ লক্ষ ৯ হাজার ৮৩। মৃত্যু হয়েছে ১৯২৬৮ জনের।

গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ২৪,৮৫০ জন। সুস্থ হয়েছেন ৯৩৮১ জন। মৃত্যু হয়েছে ৬১৩ জনের। দেশে সুস্থতার হার বর্তমানে রয়েছে ৬০.৭৭ শতাংশ।

৪ জুলাই, সকাল দশটা

শনিবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) তথ্য অনুযায়ী ভারতে করোনা-আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৬ লক্ষ ৪৮ হাজার ৩১৫। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ২ লক্ষ ৩৫ হাজার ৪৩৩। সুস্থ হয়েছেন ৩ লক্ষ ৯৪ হাজার ২২৭। মৃত্যু হয়েছেন ১৮,৬৫৫ জনের।

গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ২২,৭১১ জন। সুস্থ হয়েছেন ১৪,৩৩৫ জন। মৃত্যু হয়েছে ৪৪২। দেশে সুস্থতার হার বর্তমানে রয়েছে ৬০.৮০ শতাংশ।

৩ জুলাই, সকাল সাড়ে ন’টা

শুক্রবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) রিপোর্ট অনুযায়ী ভারতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৬ লক্ষ ২৫ হাজার ৫৪৪। এর মধ্যে সুস্থতার হারই পৌঁছে গিয়েছে ৬০.৭৯ শতাংশ মানুষ। অর্থাৎ ৩ লক্ষ ৭৯ হাজার ৮৯২ মানুষ সুস্থ হয়ে উঠেছেন।

দেশে বর্তমানে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ২ লক্ষ ২৭ হাজার ৪৩৯ জন। মৃত্যু হয়েছে ১৮,২১৩ জনের। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ২০,৯০৩ জন। সুস্থ হয়েছেন ২০,০৩২ জন। মৃত্যু হয়েছে ৩৭৯ জনের। উল্লেখযোগ্য বিষয় হল গত ২৪ ঘণ্টায় সক্রিয় রোগী বেড়েছে মাত্র ৮৯২।

২ জুলাই, সকাল সাড়ে ন’টা

বৃহস্পতিবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) রিপোর্টে দেখা গিয়েছে যে এই মুহূর্তে ভারতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৬ লক্ষ ৪ হাজার ৬৪১। যদিও এর মধ্যে ৫৯.৫১ শতাংশ মানুষই সুস্থ হয়ে উঠেছেন।

এখনও পর্যন্ত সুস্থ হয়ে ওঠা মানুষের সংখ্যা ৩ লক্ষ ৫৯ হাজার ৮৬০। বর্তমানে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ২ লক্ষ ২৬ হাজার ৯৪৭ জন। মৃত্যু হয়েছে ১৭,৮৩৪ জনের।

গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ১৯,১৪৮ জন। সুস্থ হয়েছেন ১১,৯১২ জন। মৃত্যু হয়েছে ৪৩৪ জনের। রোগীবৃদ্ধির হার কিছুটা কমে এখন রয়েছে ৩.২৭ শতাংশ।

১ জুলাই, সকাল সাড়ে ন’টা

বুধবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক (Ministry of Health and Family Welfare) যে পরিসংখ্যান দিয়েছে তাতে দেখা যাচ্ছে যে এই মুহূর্তে ভারতে করোনায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৫ লক্ষ ৮৫ হাজার ৪৯৩। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ২ লক্ষ ২০ হাজার ১১৪। সুস্থ হয়েছেন ৩ লক্ষ ৪৭ হাজার ৯৪৮। মৃত্যু হয়েছে ১৭,৪০০ জনের।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ১৮,৬৫৩ জন। সুস্থ হয়েছেন ১৩,১২৬ জন। মৃত্যু হয়েছে ৫০৭ জনের।

Continue Reading
Advertisement
Advertisement

রবিবারের খবর অনলাইন

কেনাকাটা

কেনাকাটা4 days ago

ঘর ও রান্নাঘরের সরঞ্জাম কিনতে চান? অ্যামাজন প্রাইম ডিলে রয়েছে ৫০% পর্যন্ত ছাড়

খবরঅনলাইন ডেস্ক : অ্যামাজন প্রাইম ডিলে রয়েছে ঘর আর রান্না ঘরের একাধিক সামগ্রিতে প্রচুর ছাড়। এই সেলে পাওয়া যাচ্ছে ওয়াটার...

কেনাকাটা4 days ago

এই ১০টির মধ্যে আপনার প্রয়োজনীয় প্রোডাক্টটি প্রাইম ডে সেলে কিনতে পারেন

খবরঅনলাইন ডেস্ক : চলছে অ্যামাজনের প্রাইমডে সেল। প্রচুর সামগ্রীর ওপর রয়েছে অনেক ছাড়। ৬ ও ৭  তারিখ চলবে এই সেল।...

কেনাকাটা4 days ago

শুরু হল অ্যামাজন প্রাইম ডে সেল, জেনে নিন কোন জিনিসে কত ছাড়

খবরঅনলাইন ডেস্: শুরু হল অ্যামাজন প্রাইম ডে সেল। চলবে ২ দিন। চলতি মাসের ৬ ও ৭ তারিখ থাকছে এই অফার।...

things things
কেনাকাটা1 week ago

করোনা আতঙ্ক? ঘরে বাইরে এই ১০টি জিনিস আপনাকে সুবিধে দেবেই দেবে

খবরঅনলাইন ডেস্ক : করোনা পরিস্থিতিতে ঘরে এবং বাইরে নানাবিধ সাবধানতা অবলম্বন করতেই হচ্ছে। আগামী বেশ কয়েক মাস এই নিয়মই অব্যাহত...

কেনাকাটা2 weeks ago

মশার জ্বালায় জেরবার? এই ১৪টি যন্ত্র রুখে দিতে পারে মশাকে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: একে করোনা তায় আবার ডেঙ্গুর প্রকোপ শুরু হয়েছে। এই সময় প্রতি বারই মশার উৎপাত খুবই বাড়ে। এই বারেও...

rakhi rakhi
কেনাকাটা2 weeks ago

লকডাউন! রাখির দারুণ এই উপহারগুলি কিন্তু বাড়ি বসেই কিনতে পারেন

সামনেই রাখি। কিন্তু লকডাউনের মধ্যে মনের মতো উপহার কেনা একটা বড়ো ঝক্কি। কিন্তু সেই সমস্যা সমাধান করতে পারে অ্যামাজন। অ্যামাজনের...

কেনাকাটা3 weeks ago

অনলাইনে পড়াশুনা চলছে? ল্যাপটপ কিনবেন? দেখে নিন ৪০ হাজার টাকার নীচে ৬টি ল্যাপটপ

ইনটেল প্রসেসর সহ কোন ল্যাপটপ আপনার অনলাইন পড়াশুনার কাজে লাগবে জেনে নিন।

কেনাকাটা3 weeks ago

করোনা-কালে ঘরে রাখতে পারেন ডিজিটাল অক্সিমিটার, এই ১০টির মধ্যে থেকে একটি বেছে নিতে পারেন

শরীরে অক্সিজেনের মাত্রা বুঝতে সাহায্য করে এই অক্সিমিটার।

কেনাকাটা3 weeks ago

লকডাউনে সামনেই রাখি, কোথা থেকে কিনবেন? অ্যামাজন দিচ্ছে দারুণ গিফট কম্বো অফার

খবরঅনলাইন ডেস্ক : সামনেই রাখি। কিন্তু লকডাউনের মধ্যে দোকানে গিয়ে রাখি, উপহার কেনা খুবই সমস্যার কথা। কিন্তু তা হলে উপায়...

laptop laptop
কেনাকাটা4 weeks ago

ল্যাপটপ কিনবেন? দেখে নিন ২৫ হাজার টাকার মধ্যে এই ৫টি ল্যাপটপ

খবরঅনলাইন ডেস্ক : কোভিভ ১৯ অতিমারির প্রকোপে বিশ্ব জুড়ে চলছে লকডাউন ও ওয়ার্ক ফ্রম হোম। অনেকেই অফিস থেকে ল্যাপটপ পেয়েছেন।...

নজরে

Click To Expand