বাংলাদেশ থেকে এ রাজ্যে বেআইনি অনুপ্রবেশের অভিযোগ অনেক দিনের। এই অনুপ্রবেশ রুখতে এবার পদক্ষেপ করছে কেন্দ্রীয় সরকার। এবার থেকে বাংলাদেশের নাগরিকদের ভিসা রেজিস্ট্রেশন করবে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক।

রাজ্যের বিভিন্ন বিষয়ে হস্তক্ষেপ করার জন্য কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে বারবার অভিযোগ করে আসছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এর নবতম সংযোজন হল এই ভিসা নিয়ন্ত্রণ। ১ অক্টোবর থেকে বাংলাদেশের নাগরিকদের ভিসা নিয়ন্ত্রণ শুরু করবে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। আগে এই বিষয়টি রাজ্যের স্বরাষ্ট্র দফতরের নিয়ন্ত্রণে ছিল। ভিসা রেজিস্ট্রেশন ব্যাপারটা দেখত কলকাতা পুলিশ। গত ৩ আগস্ট অভিবাসন দফতরের ডিরেক্টর প্রবীণহর সিং রাজ্যের স্বরাষ্ট্রসচিব মলয় দে-কে চিঠি দিয়ে জানান, এখন থেকে আর কলকাতা পুলিশ ন,য় এ বিষয়টি দেখবেন কেন্দ্রীয় বৈদেশিক আঞ্চলিক রেজিস্ট্রিটেশন অধিকর্তা (এফআরআরও)। নিরাপত্তাই যে এই সিদ্ধান্তের পেছনে মূল কারণ তা রাজ্যেকে জানিয়ে দেয় কেন্দ্র। প্রবীণহরবাবু বলেন, বাংলাদেশের নাগরিকদের পরিচয়পত্র ও তাদের সম্বন্ধে যাবতীয় তথ্য নথিভুক্ত করা হবে। নিরাপত্তার কারণে তাঁদের গতিবিধি ও কার্যকলাপ অনুসন্ধান করা হবে। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক সরাসরি তা পর্যালোচনা করেছে। এ বিষয়টি নিয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের সাথে আলোচনা করতে আগামী সপ্তাহে দিল্লি যাচ্ছেন মলয় দে।

রাজ্য সরকারের এক অধিকর্তা জানিয়েছেন, প্রতি মাসে বাংলাদেশ থেকে প্রায় ৫ হাজার মানুষ এ রাজ্যে আসেন। তার মধ্যে বেশির ভাগই আসেন চিকিৎসার জন্য। ছাত্রছাত্রীরাও আসেন পড়াশনোর জন্য। এর মধ্যে প্রায় ৫০০ জনেরও বেশি বাংলাদেশি কাজের জন্য ভিসার মেয়াদ বাড়ানোর জন্য আবেদন করেন। তাঁর কথায় আইন-শৃঙ্খলার বিষয়টি রাজ্যের, সে বিষয়ে হস্তক্ষেপ করছে কেন্দ্র। এর ফলে কলকাতা পুলিশ ও কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের মধ্যে তথ্য আদানপ্রদানে সমস্যা দেখা দিতে পারে।  রাজ্যের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের অধীনে কলকাতা পুলিশ। কলকাতা পুলিশ সমস্ত তথ্য স্বরাষ্ট্র দফতরকে দেয়। নতুন এই ব্যবস্থায় কলকাতা পুলিশ আর কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের মধ্যে সমন্বয়ের অভাব দেখা দিতে পারে।

উল্লেখ্য ২০১৪-য় বর্ধমানে খাগড়াগড় বিস্ফোরণের পর বাংলাদেশ সীমান্ত এলাকায় নিরাপত্তা বাড়ানো হয়। দেখা যায় যথেষ্ট পরিমাণে বেআইনি অনুপ্রবেশ ঘটেছে। এই বেআইনি অনুপ্রবেশ রুখতেই কেন্দ্রীয় সরকারের এই সিদ্ধান্ত বলে মনে করা হচ্ছে। কেন্দ্রীয় সরকারের এই সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানিয়েছেন বিজেপির কেন্দ্রীয় সম্পাদক রাহুল সিনহা। তিনি বলেন, বেআইনি অনুপ্রবেশের সমস্যা দীর্ঘদিনের, এ ব্যাপারে রাজ্য সরকারকে অনেকবার বলা সত্ত্বেও তারা কোনও গুরুত্ব দেয়নি।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here