Connect with us

দেশ

তথ্যে ভুল! রাফাল নিয়ে ফের সুপ্রিম কোর্টে দৌড়াল কেন্দ্র

নয়াদিল্লি: সুপ্রিম কোর্ট রাফলার মামলার রায় ঘোষণার পর মুহূর্ত থেকেই বিজেপি-কংগ্রেসে চাপান-উতোর অব্যাহত। শনিবারও সেই একই ইস্যুতে যখন প্রতিবাদে সরব কংগ্রেস, তখন তথ্যগত ‘ভুল’ সংশোধনে ফের সর্বোচ্চ আদালতের দ্বারস্থ হল কেন্দ্রের বিজেপি শাসিত সরকার।

গত শুক্রবার রায় ঘোষণার পর থেকেই কংগ্রেসের তরফে দাবি করা হয়, সুপ্রিম কোর্টে ভুল তথ্য পেশ করেছেন অ্যাটর্নি জেনারেল। সেই ধরনের কোনো ভুলের বিষয়ে অবশ্য, বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ নিজের সাংবাদিক সম্মেলনে টু শব্দটিও উত্থাপন করেননি। বা তাঁরে সাংবাদিকদের তরফেও এ বিষয়ে কোনো প্রশ্ন করা হয়নি। তবে ওই দিন সন্ধ্যায়  কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীই সাংবাদিক সম্মেলন করে কংগ্রেস নেতা মল্লিকার্জুন খারগেকে দিয়ে সেই ভুল প্রসঙ্গে প্রতিবাদ জানান।

আরও পড়ুন: রাফেল চুক্তি নিয়ে কোনো তদন্ত নয়, জানিয়ে দিল সুপ্রিম কোর্ট

শনিবার বিরোধীদের ক্রমাগত চাপের মুখে পড়েই সেই ‘তথ্যগত ভুলের’ কথা কার্যত স্বীকার করে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হল কেন্দ্র! জানা গিয়েছে, কেন্দ্রের হলফনামায় বলা হয়েছে, কেন্দ্রের তরফে মুখবন্ধ খামে জমা করা তথ্য বুঝতে ভুল করেছে সুপ্রিম কোর্ট। আসলে বলতে চাওয়া হয়েছে, কম্পট্রোলার অ্যান্ড অডিটর জেনারেল বা ক্যাগ জেটগুলির দাম মূল্যায়ন পরীক্ষা করেছিল এবং তার প্রতিবেদন জমা দিয়েছে।

আরও পড়ুন: সুপ্রিম কোর্টের রাফাল রায়: বিজেপির প্রশ্নের মুখে চাঁটি রাহুলের

উল্লেখ্য, গত শুক্রবার রায় ঘোষণার পর থেকেই কংগ্রেসের তরফে দাবি করা হচ্ছে, কেন্দ্র সুপ্রিম কোর্টকে ভুল পথে চালিত করছে।

দেশ

করোনার চিকিৎসায় আরও এক ওষুধ ব্যবহারের অনুমতি মিলল

তবে যে সব করোনা রোগীর প্রবল শ্বাসকষ্ট দেখা দেবে একমাত্র তাঁদের ক্ষেত্রেই এই ওষুধ ব্যবহার করা যাবে বলে জানানো হয়েছে

খবরঅনলান ডেস্ক: করোনার (Coronavirus) টিকা কবে আসবে এখনও পর্যন্ত কেউ নিশ্চিত নয়। খুব দ্রুত হলেও ২০২১-এর জানুয়ারির আগে ভারতে এই টিকা আসবে বলে মনে হয় না। কিন্তু এরই মাঝে বেশ কিছু ওষুধকে করোনার চিকিৎসায় ব্যবহারের জন্য ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে।

সম্প্রতি ইটোলিজুমাব একটি ওষুধকে সেই ছাড় দেওয়া হয়েছে। চর্মরোগ সোরিয়াসিস কমানোর জন্যে প্রধাণত ব্যবহৃত হলেও, ড্রাগ কনট্রোলার জেনারেল অফ ইন্ডিয়া (Drug Controller General of India) এই ওষুধ করোনা চিকিত্‍সায় ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছে।

তবে যে সব করোনা রোগীর প্রবল শ্বাসকষ্ট দেখা দেবে একমাত্র তাঁদের ক্ষেত্রেই এই ওষুধ ব্যবহার করা যাবে বলে জানানো হয়েছে। শুত্রবার সংবাদসংস্থা পিটিআই-কে এই খবর জানানো হয়েছে।

ইনজেকশনের মাধ্যমে এই ওষুধ রোগীর শরীরে প্রয়োগ করা হয়। প্রধাণত সাইটোকিন রিলিজ সিনড্রমের (Cytokine release syndrome) চিকিৎসাতেই এই ওষুধের ব্যবহার সীমিত রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

কেন্দ্রীয় ড্রাগ কনট্রোলের এক আধিকারিক জানিয়েছেন, “ভারতে কোভিড রোগীদের ওপর পরীক্ষা করে আশাপ্রদ ফল পাওয়ায় করোনা চিকিত্‍সায় ইটোলিজুমাব ব্যবহারের অনুমতি দেওয়া হয়েছে।” তবে রোগীর বা রোগীর পরিবারের সদস্যদের লিখিত অনুমতি ছাড়া এই ওষুধ ব্যবহার করা যাবে না।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (World Health Organization) কিছুদিন আগে জানিয়েছে ভ্যাকসিন সহযোগী সংস্থা গ্যাভির সঙ্গে হাত মিলিয়ে ভ্যাকসিন তৈরির কাজ করছে তারা। ২০২১ সালের মধ্যে কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের অন্তত ২০০ কোটি ডোজ বাজারে ছাড়াই লক্ষ্য তাদের।

এই মুহূর্তে বিশ্বে যত ভ্যাকসিন তৈরি হচ্ছে, তাদের মধ্যে সব থেকে এগিয়ে রয়েছে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়। এই মুহূর্তে জোরকদমে তৃতীয় ধাপের ট্রায়াল চালাচ্ছে তারা। আশা করা হচ্ছে এই বছরের শেষের আগেই ব্রিটেনে করোনার টিকা উৎপাদনের কাজ শুরু হয়ে যাবে। এর ফলে আগামী বছরের শুরু দিকে ভারতে করোনা টিকা চলে আসতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

Continue Reading

দেশ

দৈনিক আক্রান্তে রেকর্ডের দিনই সুস্থতা ছাড়াল ৫ লক্ষ

সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৫ লক্ষ ১৫ হাজার ৩৮৬ জন।

খবরঅনলাইন ডেস্ক: আরও একটা দিন। আরও একবার রেকর্ড সংক্রমণ ভারতে। যদিও তার থেকেও বেশি স্বস্তি দিচ্ছে করোনামুক্তির সংখ্যা। কারণ শনিবারই করোনাযুদ্ধে জয়ী হলেন ভারতের ৫ লক্ষ মানুষ।

ভারতের করোনা-তথ্য

শনিবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তথ্য বলছে ভারতে এখন মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৮ লক্ষ ২০ হাজার ৯১৬। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ২ লক্ষ ৮৩ হাজার ৪০৭ জন। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৫ লক্ষ ১৫ হাজার ৩৮৬ জন। মৃত্যু হয়েছে ২২,১২৩ জনের।

অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ২৭, ১১৪ জন আক্রান্ত হয়েছেন। সুস্থ হয়েছেন ১৯.৮৭৩ জন। মৃত্যু হয়েছে ৫১৪ জনের। সুস্থতার হার বর্তমানে রয়েছে ৬২.৭৮ শতাংশ।

চেন্নাইয়ে কমছে করোনার সংক্রমণ

আশার আলো দেখা যাচ্ছে চেন্নাইকে ঘিরে। করোনায় সব থেকে প্রভাবিত শহরগুলির মধ্যে তিন নম্বরে রয়েছে চেন্নাই। গত সপ্তাহে টানা বেশ কয়েক দিন দৈনিক দু’ হাজার করে মানুষ করোনায় আক্রান্ত হচ্ছিলেন। সেটা এখন ১২০০-এর ঘরে নেমে এসেছে।

তামিলনাড়ুতে কিছু দিন আগেই টানা ১৫ দিনের লকডাউন করা হয়েছিল। এখন কনটেনমেন্ট জোনের বাইরে সেই লকডাউন তুলে দেওয়া হয়েছে। তারই ফল মিলছে বলে মনে করা হচ্ছে।

পশ্চিমবঙ্গ ছাড়াও চিন্তা বাড়ছে অসম-ওড়িশাকে ঘিরে

গত ২৪ ঘণ্টায় অসমে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৯৩৬ জন। এর ফলে রাজ্যে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১৫ হাজার পার করেছে। ওড়িশায় আক্রান্ত হয়েছেন ৭৭৯ জন।

উল্লেখ্য, বাকি দেশের থেকে পূর্ব ভারতে করোনার বাড়বাড়ন্ত অনেকটাই দেরিতে শুরু হয়েছে। এর মধ্যে পশ্চিমবঙ্গ আক্রান্তের সংখ্যার নিরিখে অনেকটাই এগিয়ে থাকলেও এখন ওড়িশা আর অসমেও আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে।

এর মধ্যে আবার নমুনা পজিটিভ হওয়ার হার বাকি রাজ্যগুলির থেকে ওড়িশায় সব থেকে বেশি।

Continue Reading

দেশ

কোভিড আপডেট: নতুন করে আক্রান্ত ২৭১১৪, সুস্থ ১৯৮৭৩

খবরঅনলাইন ডেস্ক: ভারতে করোনা-আক্রান্তের সংখ্যায় কোনো রকম লাগাম না টানা গেলেও লকডাউনের কড়াকড়ি অনেকটাই শিথিল করা হয়েছে। শুরু হয়েছে আনলক পর্ব। মানুষ রাস্তায় বেরিয়ে পড়েছেন। স্বাভাবিক ভাবেই এখন আক্রান্তের সংখ্যা আগের থেকে অনেকটাই বাড়বে। মঙ্গলবার, তথা ১ জুলাই থেকে নতুন করে কোভিড আপডেট শুরু করল খবরঅনলাইন। ৩০ জুন পর্যন্ত যাবতীয় আপডেট পড়ার জন্য ক্লিক করুন এখানে

==================================================================

১১ জুলাই, সকাল সাড়ে ন’টা

শনিবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তথ্য বলছে ভারতে এখন মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৮ লক্ষ ২০ হাজার ৯১৬। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ২ লক্ষ ৮৩ হাজার ৪০৭ জন। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৫ লক্ষ ১৫ হাজার ৩৮৬ জন। মৃত্যু হয়েছে ২২,১২৩ জনের।

অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ২৭,১১৪ জন আক্রান্ত হয়েছেন। সুস্থ হয়েছেন ১৯,৮৭৩ জন। মৃত্যু হয়েছে ৫১৪ জনের। সুস্থতার হার বর্তমানে রয়েছে ৬২.৭৮ শতাংশ।

১০ জুলাই, সকাল সাড়ে ন’টা

শুক্রবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক (Ministry of Health and Family Welfare) যে রিপোর্ট দিয়েছে তাতে দেখা যাচ্ছে যে এই মুহূর্তে ভারতে মোট রোগীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৭ লক্ষ ৯৩ হাজার ৮০২। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ২ লক্ষ ৭৬ হাজার ৬৮৫। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৪ লক্ষ ৯৫ হাজার ৫১৩। মারা গিয়েছেন ২১,৬০৪ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছেন ২৬,৫০৬ জন। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১৯,১৩৪ জন। মারা গিয়েছেন ৪৭৫ জন। দেশে বর্তমানে সুস্থতার হার আরও কিছুটা বেড়ে ৬২.৪২ শতাংশ হয়েছে। মৃত্যুহার আরও কিছুটা কমে ২.৭২ শতাংশে এসেছে।

৯ জুলাই, সকাল সাড়ে ন’টা

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) তথ্য অনুযায়ী বৃহস্পতিবার দেশে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৭ লক্ষ ৬৭ হাজার ২৯৬। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ২ লক্ষ ৬৯ হাজার ৭৮৯। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৪ লক্ষ ৭৬ হাজার ৩৭৮। মারা গিয়েছেন ২১,১২৯ জন।

অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছেন ২৪,৮৭৯ জন। এই রেকর্ডের পাশাপাশি সুস্থতার সংখ্যাও বেড়েছে। এই সময়ে সুস্থ হয়েছেন ১৯,৫৪৭ জন। মৃত্যু হয়েছে ৪৪৭ জনের। সুস্থতার হার মঙ্গলবারের থেকে কিছুটা বেড়ে ৬২.০৮ শতাংশ হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় রোগী বেড়েছে ৩.৩৫ শতাংশ।

৮ জুলাই, সকাল সাড়ে ন’টা

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) তথ্য অনুযায়ী মঙ্গলবার দেশে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৭ লক্ষ ৪২ হাজার ৪১৭। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ২ লক্ষ ৬৪ হাজার ৯৪৪। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৪ লক্ষ ৫৬ হাজার ৮৩১। মারা গিয়েছেন ২০,৬৪২ জন।

অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ২২,৭৫২ জন গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ১৬,৮৮৩ জন। মৃত্যু হয়েছে ৪৮২ জনের। সুস্থতার হার মঙ্গলবারের থেকে কিছুটা বেড়ে সাড়ে ৬১ শতাংশ হয়েছে।

৭ জুলাই, সকাল সাড়ে দশটা

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) তথ্য অনুযায়ী মঙ্গলবার দেশে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৭ লক্ষ ১৯ হাজার ৬৬৫। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ২ লক্ষ ৫৯ হাজার ৫৫৭। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৪ লক্ষ ৩৯ হাজার ৯৪৮। মারা গিয়েছেন ২০,১৬০।

অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ২২,২৫২ জন। ৩ জুলাইয়ের পর নতুন আক্রান্তের সংখ্যায় এতটা পতন দেখা গেল। এর ফলে রোগী বৃদ্ধির হার এখন কমে এসেছে মাত্র ৩.১৯ শতাংশে।

গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ১৫,৫১৫ জন। মৃত্যু হয়েছে ৪৬৬ জনের। সুস্থতার হার আরও কিছুটা বেড়ে ৬১.১৩ শতাংশ হয়েছে। মৃত্যুহার কমে এসেছে ২.৮০ শতাংশে।

৬ জুলাই, সকাল সাড়ে দশটা

সোমবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক (Ministry of Health and Family Welfare) যে তথ্য প্রকাশ করেছে তাতে দেখা যাচ্ছে যে ভারতে এখন মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৬ লক্ষ ৯৭ হাজার ৪১৩। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ২ লক্ষ ৫৩ হাজার ২৮৭। সুস্থ হয়েছেন ৪ লক্ষ ২৪ হাজার ৪৩৩। মৃত্যু হয়েছে ১৯,৬৯৪ জনের।

গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ২৪,২৪৮ জন। সুস্থ হয়েছেন ১৫,৩৫০ জন। মৃত্যু হয়েছে ৪২৫ জনের। রবিবার মৃত্যু হয়েছিল ৬০৮ জনের।

৫ জুলাই, সকাল দশটা

রবিবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) তথ্য অনুযায়ী ভারতে করোনা-আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৬ লক্ষ ৭৩ হাজার ১৬৫। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ২ লক্ষ ৪৪ হাজার ৮১৪। সুস্থ হয়েছেন ৪ লক্ষ ৯ হাজার ৮৩। মৃত্যু হয়েছে ১৯২৬৮ জনের।

গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ২৪,৮৫০ জন। সুস্থ হয়েছেন ৯৩৮১ জন। মৃত্যু হয়েছে ৬১৩ জনের। দেশে সুস্থতার হার বর্তমানে রয়েছে ৬০.৭৭ শতাংশ।

৪ জুলাই, সকাল দশটা

শনিবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) তথ্য অনুযায়ী ভারতে করোনা-আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৬ লক্ষ ৪৮ হাজার ৩১৫। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ২ লক্ষ ৩৫ হাজার ৪৩৩। সুস্থ হয়েছেন ৩ লক্ষ ৯৪ হাজার ২২৭। মৃত্যু হয়েছেন ১৮,৬৫৫ জনের।

গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ২২,৭১১ জন। সুস্থ হয়েছেন ১৪,৩৩৫ জন। মৃত্যু হয়েছে ৪৪২। দেশে সুস্থতার হার বর্তমানে রয়েছে ৬০.৮০ শতাংশ।

৩ জুলাই, সকাল সাড়ে ন’টা

শুক্রবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) রিপোর্ট অনুযায়ী ভারতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৬ লক্ষ ২৫ হাজার ৫৪৪। এর মধ্যে সুস্থতার হারই পৌঁছে গিয়েছে ৬০.৭৯ শতাংশ মানুষ। অর্থাৎ ৩ লক্ষ ৭৯ হাজার ৮৯২ মানুষ সুস্থ হয়ে উঠেছেন।

দেশে বর্তমানে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ২ লক্ষ ২৭ হাজার ৪৩৯ জন। মৃত্যু হয়েছে ১৮,২১৩ জনের। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ২০,৯০৩ জন। সুস্থ হয়েছেন ২০,০৩২ জন। মৃত্যু হয়েছে ৩৭৯ জনের। উল্লেখযোগ্য বিষয় হল গত ২৪ ঘণ্টায় সক্রিয় রোগী বেড়েছে মাত্র ৮৯২।

২ জুলাই, সকাল সাড়ে ন’টা

বৃহস্পতিবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) রিপোর্টে দেখা গিয়েছে যে এই মুহূর্তে ভারতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৬ লক্ষ ৪ হাজার ৬৪১। যদিও এর মধ্যে ৫৯.৫১ শতাংশ মানুষই সুস্থ হয়ে উঠেছেন।

এখনও পর্যন্ত সুস্থ হয়ে ওঠা মানুষের সংখ্যা ৩ লক্ষ ৫৯ হাজার ৮৬০। বর্তমানে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ২ লক্ষ ২৬ হাজার ৯৪৭ জন। মৃত্যু হয়েছে ১৭,৮৩৪ জনের।

গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ১৯,১৪৮ জন। সুস্থ হয়েছেন ১১,৯১২ জন। মৃত্যু হয়েছে ৪৩৪ জনের। রোগীবৃদ্ধির হার কিছুটা কমে এখন রয়েছে ৩.২৭ শতাংশ।

১ জুলাই, সকাল সাড়ে ন’টা

বুধবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক (Ministry of Health and Family Welfare) যে পরিসংখ্যান দিয়েছে তাতে দেখা যাচ্ছে যে এই মুহূর্তে ভারতে করোনায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৫ লক্ষ ৮৫ হাজার ৪৯৩। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ২ লক্ষ ২০ হাজার ১১৪। সুস্থ হয়েছেন ৩ লক্ষ ৪৭ হাজার ৯৪৮। মৃত্যু হয়েছে ১৭,৪০০ জনের।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ১৮,৬৫৩ জন। সুস্থ হয়েছেন ১৩,১২৬ জন। মৃত্যু হয়েছে ৫০৭ জনের।

Continue Reading
Advertisement
দেশ3 hours ago

কোভিড আপডেট: নতুন করে আক্রান্ত ২৭১১৪, সুস্থ ১৯৮৭৩

কলকাতা3 days ago

কলকাতায় লকডাউনের আওতায় পড়া এলাকাগুলির পূর্ণাঙ্গ তালিকা প্রকাশিত

ক্রিকেট3 days ago

১১৬ দিন পর শুরু আন্তর্জাতিক ক্রিকেট, হাঁটু গেড়ে বসে জর্জ ফ্লয়েডকে স্মরণ ক্রিকেটারদের

দেশ2 days ago

সক্রিয় করোনা রোগীর ৯০ শতাংশই আটটি রাজ্যে!

রাজ্য2 days ago

ঘুমের মধ্যেই চলে গেলেন মহীনের অন্যতম ‘ঘোড়া’ রঞ্জন ঘোষাল

LPG
দেশ3 days ago

উজ্জ্বলা যোজনায় বিনামূল্যের এলপিজি সিলিন্ডার পাওয়ার মেয়াদ বাড়ল আরও তিন মাস

কলকাতা2 days ago

করোনার পাশাপাশি কলকাতা মেডিক্যাল কলেজে শুরু হচ্ছে অন্যান্য রোগের চিকিৎসা

শিক্ষা ও কেরিয়ার2 days ago

শুক্রবার আইসিএসই, আইএসসি-র ফল

কেনাকাটা

কেনাকাটা2 days ago

ঘরের একঘেয়েমি আর ভালো লাগছে না? ঘরে বসেই ঘরের দেওয়ালকে বানান অন্য রকম

খবরঅনলাইন ডেস্ক : একে লকডাউন তার ওপর ঘরে থাকার একঘেয়েমি। মনটাকে বিষাদে ভরিয়ে দিচ্ছে। ঘরের রদবদল করুন। জিনিসপত্র এ-দিক থেকে...

কেনাকাটা4 days ago

বাচ্চার জন্য মাস্ক খুঁজছেন? এগুলোর মধ্যে একটা আপনার পছন্দ হবেই

খবরঅনলাইন ডেস্ক : নিউ নর্মালে মাস্ক পরাটাই দস্তুর। তা সে ছোটো হোক বা বড়ো। বিরক্ত লাগলেও বড়োরা নিজেরাই নিজেদেরকে বোঝায়।...

কেনাকাটা5 days ago

রান্নাঘরের টুকিটাকি প্রয়োজনে এই ১০টি সামগ্রী খুবই কাজের

খবরঅনলাইন ডেস্ক : লকডাউনের মধ্যে আনলক হলেও খুব দরকার ছাড়া বাইরে না বেরোনোই ভালো। আর বাইরে বেরোলেও নিউ নর্মালের সব...

কেনাকাটা6 days ago

হ্যান্ড স্যানিটাইজারে ৩১ শতাংশ পর্যন্ত ছাড় দিচ্ছে অ্যামাজন

অনলাইনে খুচরো বিক্রেতা অ্যামাজন ক্রেতার চাহিদার কথা মাথায় রেখে ঢেলে সাজিয়েছে হ্যান্ড স্যানিটাইজারের সম্ভার।

নজরে