অসম এনআরসির কো-অর্ডিনেটর প্রতীক হাজেলাকে নিয়ে ফের সুপ্রিম কোর্টে কেন্দ্র

0
Prateek Hajela

ওয়েবডেস্ক: অসমে জাতীয় নাগরিকপঞ্জি বা এনআরসি তৈরির প্রক্রিয়া পরিচালনকারী কো-অর্ডিনেটর প্রতীক হাজেলাকে সরানোর নির্দেশ দিয়েছিল সুপ্রিম কোর্ট। বৃহস্পতিবার ফের হাজেলাকে নিয়ে শীর্ষ আদালতের দ্বারস্থ হল কেন্দ্র।

গত ১৮ অক্টোবর শীর্ষ আদালত কেন্দ্র এবং রাজ্য সরকারকে নির্দেশ দেয়, আইএএস অফিসার হাজেলাকে মধ্যপ্রদেশে স্থানান্তরিত করতে হবে। প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ বলেন, “হাজেলার ডেপুটেশনে কারণ রয়েছে। তা না হলে কারণ ছাড়াই কি কোনো আদেশ দেওয়া যেতে পারে”? ওই নির্দেশের দিন থেকে পরবর্তী সাত দিনের মধ্যে হাজেলার স্থানান্তর সম্পূর্ণ করার নির্দেশ দেয় সুপ্রিম কোর্টের বেঞ্চ।

কিন্তু হাজেলার স্থানান্তরের প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ করতে আরও বেশ কিছুটা সময় প্রয়োজন বলে মনে করে কেন্দ্র। সেই মর্মেই এ দিন সুপ্রিম কোর্টে হাজেলার স্থানান্তরের মেয়াদ বাড়ানোর আবেদন জমা পড়ে কেন্দ্রের তরফে।

এ দিন সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি এস এ বোবদে এবং বিচারপতি এ নাজির সরকারি আইনজীবীকে বলেন, “আপনি আবেদন জমা করুন”।

আরও পড়ুন মহারাষ্ট্র-হরিয়ানা বিধানসভা নির্বাচন ফলাফল লাইভ

এর আগেও হাজেলার স্থানান্তরের নির্দেশ দেওয়ার দিন অ্যাটর্নি জেনারেল কে কে বেণুগোপাল প্রধান বিচারপতি এবং বিচারপতি এস এ বোবদে ও বিচারপতি আর এফ নরিম্যানের বেঞ্চের কাছে জানতে চান, “হাজেলাকে সরানোর নির্দেশের নেপথ্য কি কোনো কারণ রয়েছে”?

জবাবে প্রধান বিচারপতি বলেন, “কারণ ছাড়া কি কোনো আদেশ দেওয়া হয়”? যদিও শীর্ষ আদালত এ দিন তাঁর স্থানান্তকরণ নিয়ে কোনো স্পষ্ট কারণের কথা উল্লেখ করেনি। ওয়াকিবহাল মহলের অনুমান, অসমে এনআরসি প্রকাশের পর থেকেই প্রাণহানির হুমকি পাচ্ছিলেন হাজেলা।

অসমের এনআরসি প্রকাশের পর হাজেলার বিরুদ্ধে দায়ের হয়েছিল একাধিক এফআইআর। তালিকা তৈরিতে তাঁর বিরুদ্ধে গোলযোগের অভিযোগেই ওই এফআইআর দায়ের হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

তাঁর বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করেছিলেন এক আইনজীবী এবং অল অসম গোরিয়া-মরিয়া যুব ছাত্র পরিষদ বা এএজিএমওয়াইসিপি। পৃথক ভাবে এই দু’টি এফআইআর দায়ের হয়েছিল ডিব্রুগড় এবং গুয়াহাটিতে। এএজিএমওয়াইসিপি-র অভিযোগ, রাজ্যের এনআরসি কো-অর্ডিনেটর ‘ইচ্ছাকৃত ভাবে’ তালিকা থেকে বিপুল সংখ্যক মানুষের নাম বাদ দিয়েছেন।

প্রসঙ্গত, গত আগস্টে প্রকাশিত অসমের এনআরসি তালিকা থেকে বাদ পড়েছে ১৯ লক্ষেরও বেশি মানুষের নাম। যার জেরে রাজ্য জুড়ে চলছে এনআরসি-বিরোধী আন্দোলন, বিক্ষোভ-সমাবেশ।

------------------------------------------------
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.