Kanhaiya Kumar

ওয়েবডেস্ক: সিপিআই নেতা কানহাইয়া কুমারের বিরুদ্ধে চার্জশিট জমা করেছিল দিল্লি পুলিশ। সেখানে বড়োসড়ো গলদ থাকায় শনিবার পুলিশকে ভর্ৎসনা করে চার্জশিট প্রত্যাহার করল দিল্লির নিম্ন আদালত।

আদালত পুলিশের উদ্দেশে বলেন, “আপনারা যে চার্জশিট জমা করেছেন সেখানে রাজ্য সরকারে আইন বিভাগের কোনো স্বীকৃতি নেই। অর্থাৎ, রাজ্য সরকারের অনুমোদন ছাড়াই ওই চার্জশিট জমা করা হয়েছে”।

Loading videos...

এমন আইনি জটিলতা মুখে পড়ে ম্রিয়মাণ হয়ে পড়েন সরকারি আইনজীবী। তিনি আদালতের কাছে আবেদন করেন, “১০ দিন সময় দেওয়া হোক, অনুমোদন-সহ চার্জশিট পুনরায় জমা করা হবে”।

উল্লেখ্য, গত সোমবার দিল্লি পুলিশের তরফে ১,২০০ পাতার ওই চার্জশিট জমা করা হয়। যেখানে জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র সংসদ নেতা দেশদ্রোহিতামূলক কাজের সঙ্গে যুক্ত।

২০১৬ সালে জেএনইউতে রাষ্ট্রদোহী কার্যকলাপ করেছিলেন তাঁরা। এমনই অভিযোগ এনে সিপিআই নেতা তথা জেএনইউ ছাত্র সংসদের প্রাক্তন সভাপতি কানহাইয়া কুমার, উমর খালিদ, অনির্বাণ ভট্টাচার্য এবং কাশ্মীরের আরও সাত পড়ুয়ার বিরুদ্ধে চার্জশিট জমা দিয়েছে দিল্লি পুলিশ। ওই সভা আয়োজনের পরেই গ্রেফতার করা হয়েছিল কানহাইয়াদের। তবে বেশি দিন হাজতবাস করতে হয়নি তাঁদের। জামিনে মুক্ত হয়ে যান তাঁরা।

[ আরও পড়ুন: মমতার ব্রিগেড দেখেই ‘প্ল্যান বি’ তৈরির প্রস্তুতি সিপিএমের ]

চার্জশিট জমা পড়ার পরই কানহাইয়া এর নেপথ্য রাজনৈতিক অভিসন্ধির অভিযোগ তুলেছিলেন। তাঁর দাবি ছিল, ম্যাজিস্ট্রেট পর্যায়ের তদন্তের পরেও দেশদ্রোহিতার সঙ্গে যুক্ত কোনো ছাত্রের হদিশ পাওয়া যায়নি। তবুও লোকসভা ভোটের মুখে প্রায় তিন বছর পরে ফের সেই চার্জশিট জমা করায় বিজেপির রাজনৈতিক চক্রান্তই স্পষ্ট হয়ে ধরা পড়ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.