masood azhar and china
চিন ও মাসুদ আজহার। ছবি সৌজন্যে দ্য ফিনান্সিয়াল এক্সপ্রেস।

ওয়েবডেস্ক: মাসুদ আজহারকে ‘আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদী’ ঘোষণা করার বিষয়টি আরেক বার আটকে দিয়ে বিশ্বব্যাপী ব্যাপক ক্ষোভের মুখে পড়েছে চিন। যার ফলে সরকারি বিবৃতি দিয়ে এই পদক্ষেপের ব্যাখ্যা দিতে হল চিনকে।

চিন বলেছে, “জইশ-ই-মহম্মদ প্রধান মাসুদ আজহারকে ‘আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদী’ হিসাবে তালিকাভুক্ত করার ব্যাপারে আরও খুঁটিনাটি পুঙ্খানুপুঙ্খ অনুসন্ধান” চালাতে তাদের আরও সময় প্রয়োজন।

রাষ্ট্রপুঞ্জ নিরাপত্তা পরিষদের ১২৬৭ আল কায়দা নিষেধাজ্ঞা কমিটির অধীনে মাসুদ আজহারকে নিয়ে আসার জন্য পুলওয়ামা হামলার কিছু দিন পরে ২৭ ফেব্রুয়ারি প্রস্তাব আনে ফ্রান্স, ব্রিটেন এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। এই প্রস্তাবে আপত্তি তোলার ব্যাপারে ওই কমিটির সদস্যদের হাতে সময় ছিল ১০টি কাজের দিন। সময়সীমা শেষ হওয়ার ঠিক আগের মুহূর্তে ‘আরও সময় প্রয়োজন’ এই কারণ দেখিয়ে চিন প্রস্তাবটি টেকনিক্যাল কারণে ঝুলিয়ে (টেকনিক্যাল হোল্ড) রাখল।

গত দশ বছরে এই নিয়ে চার বার চিন এমন কাণ্ড করল।

আরও পড়ুন চিন আর একবার আটকে দিল, ভারত হতাশ

মাসুদ আজহারকে ‘আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদী’ হিসাবে তালিকাভুক্ত করার ব্যাপারে চিন কেন আবার বাধা দিল, জানতে চাওয়া হলে চিনা বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র লু কাং বলেন, “চিন আন্তরিক ভাবেই চায়, এই কমিটি প্রাসঙ্গিক যে ব্যবস্থা নেবে তাতে সংশ্লিষ্ট দেশগুলিকে আলোচনা ও পরামর্শের টেবিলে নিয়ে আসা যাবে এবং আঞ্চলিক শান্তি ও সুস্থিতিতে আরও জটিল বিষয়াদির প্রবেশ আটকানো যাবে।”

লু কাং বলেন, “সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন পক্ষকে আলোচনা আর পরামর্শের জন্য যথেষ্ট সময় দিতে কমিটি যাতে বিষয়টি নিয়ে পরীক্ষানিরীক্ষা করার যথেষ্ট সময় পায় তার জন্য ১২৬৭ কমিটিতে প্রস্তাবটি ‘টেকনিক্যাল হোল্ড’-এ রাখা হয়েছে।” তিনি বলেন, সব পক্ষের কাছে গ্রহণযোগ্য হবে এমন একটি সমাধানসূত্রই এই বিষয়ে স্থায়ী সমাধানের পথ প্রশস্ত করবে।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং চিনা প্রেসিডেন্ট জি ঝিনপিং-এর ইউহান শীর্ষ সম্মেলন নিয়ে প্রশ্ন করা হলে লু কাং বলেন, “জি আর মোদীর মধ্যে চার বার দেখা হয়েছে। তবে সব চেয়ে বেশি অগ্রগতি হয়েছে ইউহান শীর্ষ সম্মেলনে। দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে আরও এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য আমাদের নেতাদের সহমতের ভিত্তিতে ভারতের সঙ্গে কাজ করতে চিন খুবই আন্তরিক ও প্রস্তুত।”

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here