অভিযোগ ভারতীয় সৈন্য অনুপ্রবেশের, নাথু লা দিয়ে কৈলাস-মানসযাত্রা স্থগিত করে দিল চিন

0
329

বেজিং: দু’ দেশের ‘সীমান্ত সমস্যা’র জন্যই কৈলাস-মানসগামী ভারতীয় তীর্থযাত্রীদের নাথু লা দিয়ে সীমান্ত পেরোনো আটকে দিয়েছে চিন। ভারতীয় সৈন্য সীমান্ত পেরিয়ে চিনা ভূখণ্ডে অনুপ্রবেশ করেছে, এই অভিযোগ করে চিন বলেছে যত দিন না ভারতীয় সৈন্য সরে যাচ্ছে  তত দিন কৈলাস-মানসযাত্রা স্থগিত থাকবে। ভারতীয় সৈন্যদের ‘অনুপ্রবেশের’ ব্যাপারে চিন দিল্লিতে এবং বেজিং-এ ভারতীয় দূতাবাসে কূটনৈতিক প্রতিবাদ জানিয়েছে।

“আমাদের বৈধ অবস্থান বিস্তারিত বুঝিয়ে আমরা বেজিং ও দিল্লিতে যথার্থ অভিযোগ জানিয়েছি” – চিনা বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র লু কাং মঙ্গলবার সাংবাদিকদের এ কথা জানান।

কাং বলেন, “ভূখণ্ডগত সার্বভৌমত্ব ধরে রাখার ব্যাপারে আমাদের অবস্থান অটল। আমরা আশা করি ভারতও একই দিশায় চিন্তা করবে এবং যারা সীমান্ত পেরিয়ে চিনা ভূখণ্ডে অনুপ্রবেশ করেছে তাদের সরিয়ে নেবে।”

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র সচিব রাজীব মেহরিশি মঙ্গলবার জানান, দু’টি ব্যাচের প্রায় ১০০ জন যাত্রী নাথু লা দিয়ে সীমান্ত অতিক্রম করতে পারেননি। তাঁরা সিকিমের রাজধানী গ্যাংটকে ফিরে এসেছেন। তৃতীয় ব্যাচটিকে ভিসা দেওয়া হয়নি। তাঁরা দিল্লিতেই আটকে রয়েছেন। প্রতি বছর নাথু লা শ’ চারেক তীর্থযাত্রী কৈলাস যান এবং সীমান্তে তাঁদের স্বাগত জানান চিনা কর্তৃপক্ষ।

নাথু লা দিয়ে কৈলাসযাত্রা বন্ধ কেন?

সোমবার রাতে চিন বলেছিল, সীমান্ত সমস্যার পরিপ্রেক্ষিতে নিরাপত্তাজনিত কারণে ভারতীয় তীর্থযাত্রীদের নাথু লা হয়ে তিব্বতে যাওয়া আটকে দেওয়া হয়েছে।

গত রাতে চিনা বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র গেং শুয়াং এক বিবৃতিতে বলেন, “যে সব ভারতীয় সীমান্তরক্ষী সীমান্ত অতিক্রম করেছে তাদের ফিরিয়ে নেওয়া এবং এ ব্যাপারে পুঙ্খানুপুঙ্খ অনুসন্ধানের জন্য চিন ভারতকে অনুরোধ করছে। সম্প্রতি ভারতীয় সীমান্তরক্ষী চিন-ভারত সীমান্তে সিকিম শাখায় সীমান্ত অতিক্রম করে চিনা ভূখণ্ডে অনুপ্রবেশ করে এবং ডোংলাং এলাকায় চিনা সীমান্ত সৈন্যদলের নিত্যনৈমিত্তিক কাজে বাধা দেয়। চিনা কর্তৃপক্ষ তা ঠেকাতে পালটা ব্যবস্থা নেয়।

‘চিনা ভূখণ্ডে’ রাস্তা তৈরি করার ব্যাপারে ভারতীয় সৈন্যরা বাধা দিচ্ছে বলে চিনা প্রতিরক্ষা মন্ত্রক অভিযোগ করার পরেই গেং শুয়াং এই বিবৃতি দেন। এখন বোঝা যাচ্ছে, রাস্তা তৈরি নিয়ে বিবাদের জেরেই চিনা কর্তৃপক্ষ নাথু লা সীমান্তে ভারতীয় তীর্থযাত্রীদের আটকে দিয়েছে।

গেং শুয়াং বলেন, চিন-ভারত সীমান্তের সিকিম অংশটা দুই দেশের চুক্তি অনুযায়ী পুরোপুরি সুনির্দিষ্ট করা আছে। ভারত সরকারও বারবার লিখিত ভাবে জানিয়েছে, এতে তাদের কোনো আপত্তি নেই। চিন চায়, ভারত সীমান্ত চুক্তি এবং ভারত-চিন সীমান্তে শান্তি ও সুস্থিতি রক্ষা করতে চিনের ভূখণ্ডগত সার্বভৌমত্বকে সম্মান দিক। উপরিউক্ত ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে নিরাপত্তাজনিত কারণে নাথু লা পাস দিয়ে ভারতীয় তীর্থযাত্রীদের চিনে প্রবেশ করার ব্যাপারে ব্যবস্থাদি করা স্থগিত রাখা হয়েছে এবং চিনের এই অবস্থান ভারতকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে গেং জানান।

ভারতীয় ভূখণ্ডে ঢুকে বাঙ্কার ভেঙেছে চিন

বিগত কয়েক দিন ধরেই সিকিমের দুর্গম প্রত্যন্ত এলাকায় ভারতীয় সৈন্যবাহিনী ও চিনা পিএলএ-র (পিপলস্‌ লিবারেশন আর্মি) ঝামেলা চলছে। এর ফলে চিনা সৈন্যরা সীমান্তে ভারতীয় ভূখণ্ডে দু’টি বাঙ্কার ধ্বংস করে দেয়। সিকিমের ডোকা লা এলাকায় লালতেন পোস্টের কাছে দুই বাহিনীর মধ্যে বিবাদ বাধে। এর পরেই পিএলএ ভারতীয় ভূখণ্ডে ঢুকে দু’টি অস্থায়ী বাঙ্কার ভেঙে দেয়।

১৯৬২-এর ভারত-চিন যুদ্ধের পর থেকে সিকিম সীমান্তের এই এলাকায় পাহারা দেয় ভারতীয় সৈন্যবাহিনী ও আইটিবিপি।

ভারত থেকে তিব্বতের কৈলাস ও মানস সরোবর যাওয়ার সব চেয়ে প্রচলিত পথ উত্তরাখণ্ডের লিপুলেখ পাস হয়ে। কিন্তু সিকিমের নাথু লা পাস হয়ে পথটি অপেক্ষাকৃত সহজ। শেষ পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর অনুরোধে নাথু লা পাস হয়ে কৈলাস যাওয়ার পথটি খুলে দেয় চিন। এ বছর ১১ জুন নাথু লা পাস হয়ে কৈলাসযাত্রার সূচনা করেন বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ।

এক ক্লিকে মনের মানুষ,খবর অনলাইন পাত্রপাত্রীর খোঁজ

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here