ওয়েবডেস্ক: সীমান্ত উত্তেজনায় রাশ টানতে একাধিক বৈঠকে বসেছে ভারত-চিন। এরই মধ্যে পূর্ব লাদাখে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা (LAC) বরাবর অতিরিক্ত বাহিনী মোতায়েন করেছে বেজিং।

গত ১৫ জুন লাদাখের গলওয়ান উপত্যকায় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের পর ভারত-চিন দফায় দফায় সামরিক এবং কূটনৈতিক আলোচনায় অংশ নিয়েছে। এর আগে থেকেই এলএসি-তে অতিরিক্ত চিনা সেনার সংখ্যা কমানোর দাবি জানায় ভারত। সেই দাবি মেনে চিনা সেনা পিছু হঠতে শুরু করলেও ফের পরিস্থিতি অগ্নিগর্ভ হয়ে ওঠে।

সাম্প্রতিক পাওয়া খবর অনুযায়ী, এলএসির খুব কাছে উত্তর জিনজিয়াং প্রদেশে (Xinjiang province) অতিরিক্ত ১০ হাজার সেনা মোতায়েন করেছে চিন। এই বিষয়টিকেই ‘পাখির চোখ’ করে সব রকমের প্রস্তুত নিচ্ছে ভারতও।

একটি সরকারি সূত্র সংবাদ মাধ্যমের কাছে জানায়, “আমাদের সীমান্ত লাগোয়া এলাকায় সব মিলিয়ে প্রায় ২০ হাজার সেনা মোতায়েন করেছে চিন। জিনজিয়াং প্রদেশে মোতায়েন চিনা সেনা (Chinese military) মাত্র ৪৮ ঘণ্টায় মধ্যেই চরম অবস্থান নিয়ে ফেলতে পারে”।

চিনের গতিবিধির উপর কড়া নজর রেখে ভারতও সেনা সংখ্যা বাড়ানোর পাশাপাশি অন্যান্য সরঞ্জাম মজুত করতে শুরু করেছে।

চিনের যে কোনো ধরনের পদক্ষেপের জবাব দিতে ভারত স্থল ও আকাশ পথে যাবতীয় প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে। এমনকী জলপথেও সেনা টহলদারির জন্য নৌসেনার ভেসেল পাঠানো হচ্ছে। নৌসেনার ওই দলটি প্যাংগং লেকে এক ডজন স্টিলের নজরদারি ভেসেলের মাধ্যমে নজরদারি চালাবে। একই সঙ্গে অতিরিক্ত ট্যাঙ্ক এবং সশস্ত্র বাহিনীও পাঠাচ্ছে ভারত।

সরকারি সূত্রটি জানায়, যতই আলোচনা চলুক না কেন, ভিতরে ভিতরে সমস্ত রকমের প্রস্তুতি নিয়ে চলেছে বেজিং। উপগ্রহ চিত্রেও যা ধরা পড়েছে। স্বাভাবিক ভাবে ভারতের তরফেও কোনো খামতি রাখার প্রশ্ন নেই।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন