অসমে বন্ধ মোবাইল-ইন্টারনেট পরিষেবা, উত্তর-পূর্বে ৫ হাজার আধাসেনা

0
CAB
প্রতীকী ছবি

নয়াদিল্লি: বুধবার রাজ্যসভায় নাগরিকত্ব (সংশোধনী) বিল নিয়ে আলোচনার মাঝেই ত্রিপুরা, অসম-সহ উত্তর-পূর্ব ভারতের কিছু অংশে সহিংস বিক্ষোভ শুরু হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সব মিলিয়ে পাঁচ হাজার আধাসেনা মোতায়েনের সিদ্ধান্ত নিল কেন্দ্র।

এ দিন ভারতীয় সেনাবাহিনী ত্রিপুরার কাঞ্চনপুর ও মনুতে ২ কলাম সেনা মোতায়েন করে। একই সঙ্গে ডিব্রুগড় ও বোঙ্গাইগাঁয়ে পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য সেনা প্রস্তুত রয়েছে বলে জানানো হয়। পাশাপাশি একটি পুলিশ কিউআরটি (কুইক রেসপন্স টিম) অসমের ডিব্রুগড় জেলায় পাঠানো হয়েছে। উত্তর-পূর্ব জুড়ে মোট পাঁচ হাজার আধাসেনা মোতায়েন করা হয়েছে।

এ দিন সন্ধ্যা ৭টা নাগাদ অসম সরকার রাজ্যের ১০টি জেলায় মোবাইল এবং ইন্টারনেট পরিষেবা স্থগিত করেছে এবং গুয়াহাটিতে অনির্দিষ্টকালের কারফিউ আরোপ করেছে।

বিজেপি শাসিত রাজ্য অসমের বিভিন্ন অংশে বিক্ষোভের সূত্রপাত ঘটেছে আগেই। পালিত হয়েছে বন্‌ধ। জানা গিয়েছে, সুরক্ষা বাহিনী দিশপুর, গুয়াহাটি, ডিব্রুগড় এবং জোরহাটে বিক্ষোভকারীদের উপর লাঠিচার্জ করে। সংবাদ পুলিশের তরফে কোনো তথ্য প্রকাশ না করা হলেও সংবাদ সংস্থা পিটিআইয়ের খবরে বলা হয়েছে, রাজ্যের রাজধানী গুয়াহাটি এবং ডিব্রুগড় ও জোরহাটের মতো অন্যান্য জায়গায় কয়েক’শ প্রতিবাদকারীকে আটক করা হয়েছে।

CAB

এমনকী বিক্ষোভের কারণে গুয়াহাটি বিমানবন্দরে অসমের মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সোনোয়ালকেও আটকে রাখার খবর পাওয়া যায়। সবমিলিয়ে অসমের বেশ কিছু অংশ এখন যুদ্ধক্ষেত্রের আকার ধারণ করেছে বলে সংবাদে প্রকাশ।

[ আরও পড়ুন: নাগরিকত্ব বিল নিয়ে বিক্ষোভের মধ্যে অরুণাচল, ত্রিপুরায় ইন্টারনেট বন্ধ ]

এর আগে প্রভাবশালী ছাত্র সংগঠন উত্তর-পূর্ব স্টুডেন্টস ইউনিয়ন (এনইএসও) এবং রাজনৈতিক দলগুলির সমর্থনে ১১ ঘন্টা বন্‌ধ পালিত হয়। মঙ্গলবারের ওই বিক্ষোভের জেরে রাজ্য জুড়ে মোবাইল ইন্টারনেট এবং এসএমএস পরিষেবা বন্ধ করে দেয় ত্রিপুরা সরকার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.