হায়দরাবাদ: স্কুলড্রেস না পরে আসার শাস্তি হিসেবে ছেলেদের বাথরুমে পাঠানো হল ১১ বছরের কিশোরীকে। ঘটনাটি ঘটেছে হায়দরাবাদের একটি বেসরকারি স্কুলে।

গত শনিবার ঘটনাটি ঘটেছে। অন্ধ্রপ্রদেশ শিশু অধিকার সংস্থায় দায়ের করা অভিযোগে ওই কিশোরীর বাবা, রামকৃষ্ণ জানিয়েছেন ওই দিন স্কুলের পোশাক না পরেই স্কুলে যায় বছর এগারোর ওই কিশোরী। ক্লাসে ঢুকতে যাওয়ার সময়ে ওই ছাত্রীকে আটকান ওই স্কুলের এক শিক্ষিকা। কেন স্কুলের পোশাক পরে আসেনি সে, তা জানতে চান ওই শিক্ষিকা। জবাবে কিশোরী জানায়, পোশাক কাচার জন্য একটি জায়গায় সে দিয়েছে, কিন্তু সেখান থেকে এখনও তার পোশাক ফেরত আসেনি। এই জবাবে ক্ষুব্ধ ওই শিক্ষিকা কিশোরীকে টানতে টানতে ছেলেদের বাথরুমের সামনে নিয়ে যান এবং কিছুক্ষণের জন্য তাকে সেখানে দাঁড় করিয়ে রাখেন।

শিশু অধিকার সংস্থায় একটি ভিডিও ক্লিপিং-ও পাঠিয়েছেন রামকৃষ্ণ। সেই ক্লিপিং-এ ওই কিশোরীর বয়ান রয়েছে। সেখানে ওই কিশোরী জানিয়েছে, “চতুর্থ শ্রেণির কয়েক জন আমাকে দেখে হাসছিল। প্রচণ্ড লজ্জা লাগছিল আমার।” কিছুক্ষণ পরে অবশ্য ক্লাসে বসার অনুমতি দেওয়া হয় কিশোরীকে। কিন্তু লজ্জা তার পিছু ছাড়েনি, কারণ তাকে দেওয়া শাস্তির ব্যাপারে সহকর্মী তিন শিক্ষিকাকে গর্ব করে বলছিলেন ওই শিক্ষিকা।

অভিযোগে রামকৃষ্ণ বলেছেন, “সে দিন স্কুল থেকে ফেরার পর থেকে আমার মেয়ে আর স্কুলে যেতেই চাইছে না। স্কুল বদলে দিতে বলছে।” এই অভিযোগের ভিত্তিতে রাজ্যের মানবাধিকার সংস্থা এবং পুলিশে অভিযোগ দায়ের করেছে শিশু অধিকার সংস্থা।

শিশু অধিকার সংস্থার সভাপতি পি অচ্যুত রাওয়ের মতে, এ রকম ভাবে কোনো মেয়েকে ছেলেদের বাথরুমের সামনে দাঁড় করিয়ে রাখা যৌননিগ্রহের থেকে কম কিছু নয়। স্কুল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য পুলিশের কাছে আবেদন করেছেন তিনি।

সোমবার সকাল থেকে ওই স্কুলের সামনে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেছে বিভিন্ন ছাত্র সংগঠন। স্কুলে ভাঙচুরও চালিয়েছেন ক্ষুব্ধ অভিভাবকরা।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন