পদত্যাগ করলেন মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী

Devendra Fadnavis

ওয়েবডেস্ক: মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রীপদ থেকে পদত্যাগ করলেন দেবেন্দ্র ফডনবিস। শুক্রবার রাজ্যপাল ভগত সিং কোশিয়ারের সঙ্গে বৈঠক শেষে তিনি পদত্যাগপত্র জমা দেন। পূর্ব নির্ধারিত সূচি অনুযায়ী, আর কয়েক ঘণ্টা বাদেই শেষ হচ্ছে চলতি বিধানসভার মেয়াদ। তার আগেই পদত্যাগ করলেন ফডনবিস। যদিও একটি নতুন সরকার গঠন নিয়ে বিজেপি নিজের জোট শরিক শিবসেনার সঙ্গে এখনও পর্যন্ত ঐকমত্যে আসতে পারেনি।

সংবাদ মাধ্যমের কাছে ফডনবিস নিজের দল, সহকর্মী এমনকী শিবসেনাকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। একই সঙ্গে তিনি প্রশ্ন তুলেছেন, যে শিবসেনা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকেও আক্রমণ করা থেকে বিরত থাকেনি, তাদের সঙ্গে জোট চালিয়ে যাওয়ার উপযুক্ত কিনা?

তিনি এ দিনও বলেন, “গত ১৫ দিন ধরে শিবসেনার বিবৃতি বা তাদের দাবিতে যে ধরনের চুক্তির কথা উল্লেখ করা হয়েছে, আমরা কখনোই তেমন কোনো প্রতিশ্রুতি দিইনি। কমপক্ষে আমার উপস্থিতিতে শিবসেনাকে আড়াই বছরের জন্য মুখ্যমন্ত্রীপদ দেওয়ার বিষয়ে কোনো আলোচনা হয়নি”।

বিজেপি এবং শিবসেনা গত মাসে মহারাষ্ট্র নির্বাচনে সুস্পষ্ট সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনের কয়েক ঘণ্টা পরে শুরু হওয়া এই বিরোধের সমাধান এখনও অধরা।

তত্ত্বাবধায়ক মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “উদ্ধব ঠাকরের সঙ্গে আমার খুব ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল। আমি বেশ কয়েকবার তাঁর সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করেছি, এমনকী আমি তাঁকে ফোনে কল করেছিলাম কিন্তু তিনি কথা বলেননি। শিবসেনা সচেতন ভাবেই বিজেপির সঙ্গে সম্পর্ক রাখছে না, কিন্তু কংগ্রেস এবং এনসিপির সঙ্গে তা বজায় রয়েছে”।

একই সঙ্গে তিনি বলেন, “শিবসেনা এ ভাবে সরকার গঠন করতে পারবে না। বিজেপি জোট বজায় রাখতে চায়, ভেঙে ফেলতে নয়”।

উল্লেখ্য, ২৮৮ আসনের মহারাষ্ট্র বিধানসভায় সরকার গঠনের জন্য প্রয়োজন ১৪৫ বিধায়ক। এ বারের বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি, শিবসেনা, এনসিপি এবং কংগ্রেস পেয়েছে যথাক্রমে ১০৫, ৫৬, ৫৪ এবং ৪৪টি আসন। এমন আসন বিন্যাস এবং বর্তমান নাটকীয় পরিস্থিতিতে মহারাষ্ট্র সরকারের চেহারা ঠিক কী রকম হয়, সেটাই দেখার। 

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.